ঢাকা, সোমবার, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

মতিন-ইব্রাহিমে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-১৯ ৬:০৪:৪৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২০ ৮:১৭:৫৭ এএম

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে স্বাগতিক বাংলাদেশ কি দর্শক হয়ে যাবে? পরিস্থিতি এমনটাই দাঁড়িয়েছিল যখন ফিলিস্তিনের বিপক্ষে ভালো খেলেও যোগ করা সময়ে দুই গোলে হেরে যায় শ্রীলঙ্কা।

লঙ্কানদের ওই ম্যাচের পারফম্যান্স বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীদের শঙ্কায় ফেলে দেয়। বাংলাদেশকে দাঁড় করিয়ে দেয় কঠিন সমীকরণের সামনে। সেমিফাইনালে যেতে হলে শেষ ম্যাচে জিততেই হবে বাংলাদেশকে। কিন্তু ফিলিস্তিনের বিপক্ষে গোল পাওয়ার জন্য বাংলাদেশ যে হাপিত্যেশ করেছে তাতে লাল-সবুজের পক্ষে বাজি ধরার লোক কমই ছিল।

তাহলে কী গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিবে বাংলাদেশ? কী হয় সেটা দেখতে আজ রোববার হাজার পাঁচেক দর্শক মাঠে হাজির হয়। ব্যান্ডপার্টি নিয়ে মাঠে আসে তারা। শুরু থেকেই উল্লাস, উচ্ছ্বাসে বাংলাদেশকে সমর্থন দিতে থাকে। তাদের হতাশ করেনি মতিন-ইব্রাহিমরা। শ্রীলঙ্কাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের হয়ে জোড়া গোল করেছেন মতিন মিয়া। অপর গোলটি করেছেন মোহাম্মদ ইব্রাহিম।

অবশ্য বাংলাদেশের হরিষে বিষাদ হয়ে দেখা দিয়েছে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক তপু বর্মনের লাল কার্ড। ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন তিনি। সেমিফাইনালে তাকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ বুরুন্ডি।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাঁচা মরার ম্যাচে চার পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে রক্ষণাত্মক খেলা বাংলাদেশ আজ খেলে ৪-৪-২ ফরম্যাটে। তাতে শুরু থেকেই আক্রমণে যায়। দ্বিতীয় মিনিটেই কর্নার পায়। যদিও কর্নার থেকে গোল আদায় করতে পারেনি বাংলাদেশ। ১১ মিনিটে গোলের দারুণ সুযোগ পেয়েছিল স্বাগতিকরা। এ সময় বাম দিক থেকে মোহাম্মদ ইব্রাহিম ডি বক্সের মধ্যে ক্রসে বল বাড়িয়ে দেন সাদ উদ্দিনকে লক্ষ্য করে। অবশ্য বলটি রিসিভ করতে পারেননি সাদ। বলটি পেলে গোল হতে পারত। ১৩ মিনিটে বিশ্বনাথ ঘোষের আক্রমণে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করে শ্রীলঙ্কা।

১৭ মিনিটে লিড নেয় বাংলাদেশ। গোল করেন মতিন মিয়া। এ সময় মাঝমাঠ থেকে রিয়াদুলের ক্রস ডি বক্সের মধ্যে পেয়ে যান মতিন। শ্রীলঙ্কার রক্ষণভাগের একজনকে কাটিয়ে ডান পায়ের জোরালো শটে জালে জড়ান।

২১ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারত বাংলাদেশ। কিন্তু মোহাম্মদ ইব্রাহিমের স্বার্থপরতায় সেটা হয়নি। এ সময় তিনি একাই বল নিয়ে ডি বক্সের মধ্যে ঢুকে পড়েন। নিজেই গোল করতে চেয়েছিলেন। কারণ, তার সামনে ছিল কেবল শ্রীলঙ্কার গোলরক্ষক। কিন্তু ইব্রাহিম তার পায়ে মেরে দেন। অথচ এ সময় ডানদিকে ছিলেন সুফিল। তাকে বল দিয়ে ফাঁকা পোস্টে বল জড়াতে পারতেন।

২৬ মিনিটে মাহবুবুর রহমান সুফিল অবশ্য দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিলেন। এ সময় ডি বক্সের মধ্যে বল পেয়ে যান তিনি। কিন্তু ফাঁকা পোস্টেও বল জড়াতে পারেননি। প্রথমার্ধের শেষ দিকে গোল শোধের সুযোগ পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। এ সময় বাংলাদেশের গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল দিতে পারেনি লঙ্কান অধিনায়ক মোহাম্মেদ ফজল। যোগ করা সময়ে দারুণ একটি সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু সেটা থেকেও গোল আদায় করে নিতে পারেনি। তাতে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধের খেলা শেষ করে।

বিরতি থেকে ফিরে ৫১ মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। এ সময় নিশ্চিত গোল মিস করেন সোহেল রানা। বাম দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠেন তিনি। ঢুকে পড়েন ডি বক্সের মধ্যে। সামনে ছিলেন কেবল শ্রীলঙ্কার গোলরক্ষক রুয়ান অরুণাশ্রী। তার মাথার উপর দিয়ে মারেন। মারে জোর বেশি থাকায় বারের উপর দিয়ে চলে যায়।

তবে ৬৩ মিনিটে দুর্দান্ত এক গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মতিন মিয়া। এ সময় মতিন মাঝমাঠে শ্রীলঙ্কার রক্ষণভাগের খেলোয়াড় জুদে সুপানের কাছ থেকে বল কেড়ে নেন। তখন শ্রীলঙ্কার অর্ধে গোলরক্ষক ছাড়া আর কেউ ছিল না। মতিন বামদিক দিয়ে দ্রুত ডি বক্সের মধ্যে ঢুকে পড়েন। লঙ্কান গোলরক্ষক অরুণাশ্রীকে বোকা বানিয়ে ফাঁকা জালে বল জড়ান। ৬৯ মিনিটে সোহেল রানার আচমকা দূর থেকে শট নেন। তার নেওয়া শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন শ্রীলঙ্কার গোলরক্ষক।

৮৩ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান মোহাম্মদ ইব্রাহিম। এ সময় বামদিক থেকে বদলি খেলোয়াড় রাকিব হোসেনের পাস ডি বক্সের মধ্যে পেয়ে যান ইব্রাহিম। আলতো টোকায় বল জালে পাঠান। ৮৮ মিনিটে লঘু-পাপে গুরু দণ্ড দেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক তপু বর্মন। এ সময় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন তিনি। শেষ ম্যাচে তাকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। নিঃসন্দেহে কষ্টের ব্যাপার তপুর জন্য। তবে তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বাঁচা-মরাচ ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে উঠেছে, সেটা ভেবে স্বস্তি পেতে পারেন। অবশ্য সেমিফাইনালে ফিরবেন নিয়মিত অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্বিতীয়বারের মতো বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে উঠতে পারে কিনা দেখার বিষয়।

 

ঢাকা/আমিনুল