ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৬ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২১ ১৪২৭ ||  ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

বড় বেলার ঈদ

তানভীর মাহতাব আবীর || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৩৩, ১ আগস্ট ২০২০  

মহামারির দুঃসময়টার মাঝে আরও একটি ঈদ। সবকিছু থেমে থাকার মাঝেও সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টি আর ত্যাগের মহিমায় মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা এবার পবিত্র ঈদুল আজহা পালন করছেন।

আগে এক একটা ঈদ আসতো বহু প্রতীক্ষার প্রহর নিয়ে। বড় বেলায় এসে ঈদের নিয়ম বাঁধা একঘেয়েমিতায় ঠিক ঈদের মতো আনন্দটা কেন জানি এখন আর পাওয়া যায় না। হয়তো বাস্তবতা বুঝতে শিখে যাওয়া কিংবা দায়িত্বের চোখ রাঙানির কারণে ঈদের খুশি অনেকেরই চার দেয়ালে বন্দি। তবু আমরা ভালো থাকা কিংবা রাখার আয়োজনে কখনো জিতে গেলে অনুভূতিগুলো ছোটবেলায় ফিরে যায় যেন।  

প্রিয় মানুষের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নিতে বাড়িতে ছুটে যায় কম বেশি অনেকেই। বছরের অন্যান্য সময় নানা কারণে সব আত্মীয়দের সাথে হয়তো যোগাযোগ রাখা সম্ভব হয় না। স্বাভাবিকভাবেই যোগাযোগ না থাকলে পারস্পারিক দূরত্ব তৈরি হয়ে যায়। ঈদের এই সময়টায় সেই দূরত্ব দূর করে সব আত্মীয়ের খোঁজ নেওয়া, ইগোটা অন্তত এই একদিনের জন্য দূরে সরিয়ে রাখাতেই আনন্দ আর মনে শান্তির পরশ বুলিয়ে দিতে চান আপামর বাঙালি। 

এখন ঈদ মানে রাত জাগা, নামাজ থেকে এসে ঘুমানো, ভার্চুয়াল উইশ আর টিভির বিজ্ঞাপনের ফাঁকে ঈদ নাটক। শহুরে যান্ত্রিকতায় মানুষগুলো খাপ খাইয়ে নিতে গিয়ে নিজেদের বন্ধুত্বটাও হয়ে যায় যান্ত্রিকতার সাথে। স্বার্থ আমাদের মনের গভীরে পৌঁছে গিয়ে হারিয়ে দেয় নিষ্পাপ হাসি আর পাশে থাকার মানসিকতা। 

আমরা তবু সুযোগ খুঁজি, এই পথ হারিয়ে চিরায়ত স্বস্তি আর ভালো লাগার পথে পা বাড়ানোর। হয়তো বাস্তবতার কাছে আটকে যাই, বিষন্নতার চোখ রাঙানিটাও উপেক্ষা করা দায় হয়ে যায়। তবু সীমাবদ্ধতার মাঝেই সবার হাসিমুখটা দেখতে পাওয়া পরম সৌভাগ্যই কি নয়?

উৎসবের এই দিন সবার ভালো যায় না, আমি আপনি আমরা সবাই মিলে খারাপের মাঝেই ভালো থাকা আর ভালো দিনের প্রার্থনায় দু’হাত তুলি। পৃথিবীর সব অসুখ কেটে যাক, মুছে যাক মন থেকে মনে আমাদের যত বিরহের সাতকাহন।

ঈদের আগে-পরের রাতগুলোয় অনেকেই বাজি ফুটানো আর উচ্চ স্বরে গান বাজানোকে উৎসব পালনের মাধ্যম মনে করেন। আমরা এই কাজগুলো করার আগে আশেপাশের পরিবেশ আর মানুষগুলোর কথা ভাবার চেষ্টা করবো। বাজির স্প্লিন্টারে আহত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, শহরে খালি থাকা বাসা-বাড়িতে বাজির আগুনে দুর্ঘটনার আশঙ্কা তো আছেই। 

আপনার আশেপাশের বাড়িতে যদি বয়স্ক বা অসুস্থ কেউ থেকে থাকেন, বাজি আর গানের বিকট শব্দ তাদের জন্য বিপদের কারণ হতে পারে। মসজিদের মাইকে পর্যন্ত বাজি ফুটাতে নিষেধ করা হয়। আমরা সবাই সচেতন থাকার চেষ্টা করবো এই ব্যাপারে।

অনুভূতিগুলো বাঁচিয়ে রাখার গল্পে ছড়িয়ে যাক ঈদের আনন্দ। ঈদ মোবারক।

 

লেখক: শিক্ষার্থী, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

নোবিপ্রবি/মাহি 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়