ঢাকা     শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ৩১ ১৪২৭ ||  ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সঞ্জয়-মাধুরী: প্রেম নাকি শুধুই বন্ধুত্ব

বিনোদন ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৫৯, ২ আগস্ট ২০২০  
সঞ্জয়-মাধুরী: প্রেম নাকি শুধুই বন্ধুত্ব

বলিউডের সাড়া জাগানো জুটি সঞ্জয় দত্ত ও মাধুরী দীক্ষিত। রিল লাইফে তাদের রসায়ন দর্শককে মুগ্ধ করেছে। পাশাপাশি রিয়েল লাইফেও বলিপাড়ায় তাদের প্রেমের চর্চা কম হয়নি।

ড্যান্সিং ডিভা মাধুরীর সঙ্গে ‘খলনায়ক’ সিনেমাখ্যাত সঞ্জয়ের প্রেমের গুঞ্জন শুরু হয় নব্বইয়ের দশকের শুরুতে। ‘সাজন’ (১৯৯১) মুক্তির আগে ও পরে মিডিয়ায় নিয়মিত তাদের নিয়ে চর্চা হতে থাকে।  অনেক বিনোদন ম্যাগাজিনের মূল বিষয়বস্তু ছিল তাদের প্রেমকাহিনি। 

খাতড়ো কি খিলাড়ি (১৯৮৮), ইলাকা (১৯৮৯), কানুন আপনা আপনা (১৯৮৯), থানেদার (১৯৯০), সাজন (১৯৯১), খলনায়ক (১৯৯৩), সাহিবান (১৯৯৩) ইত্যাদি সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেছেন সঞ্জয়-মাধুরী। গুঞ্জন শোনা যায়, সিনেমার সেটেই তাদের ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। এরপর তা প্রেমের সম্পর্ক পর্যন্ত গড়ায়। সেসময় সঞ্জয়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ থাকতেন মাধুরী।

এক সাক্ষাৎকারে এই অভিনেত্রী বলেন, ‘সঞ্জয় আমার সবচেয়ে প্রিয় সহ-অভিনেতা। তিনি সত্যিই জোকার। তার গল্প শুনে আমি সবসময় হাসি। কিন্তু তিনি খুবই ভদ্র মানুষ। এবং তার হৃদয় ভালোবাসায় ভরপুর। তিনি কোনো গেম খেলেন না। তার মন স্বচ্ছ এবং জটিলতামুক্ত।’

প্রকাশ্যে সঞ্জয়কে নিয়ে মাধুরীর প্রশংসা, তাদের ঘনিষ্ঠতা- সব মিলিয়ে আলোচনায় ছিলেন এই জুটি। এমনকি তাদের ঘনিষ্ঠজনরা বিভিন্ন ম্যাগাজিনে জানিয়েছেন, বিয়ের পরিকল্পনা করেছিলেন তারা। তবে ব্যতিক্রম ছিলেন সুভাষ ঘাই। এই নির্মাতা স্পষ্ট বলেছিলেন, ‘মাধুরীকে কখনোই বিয়ে করবেন না সঞ্জয়।’

প্রেমের গুঞ্জন যখন তুঙ্গে তখনও মুখে কুলুপ এঁটে ছিলেন সঞ্জয়। কারণ তিনি বিবাহিত। তখন তার প্রথম স্ত্রী রিচা শর্মা নিউইয়র্কে ক্যানসারের চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। সঞ্জয়-মাধুরীর প্রেমের গুঞ্জন তার কানে পৌঁছালে তিনি চিকিৎসা শেষ না করেই দেশে ফিরে আসেন। এরপর এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমি সঞ্জয়কে মন থেকে ভালোবাসি। যাই হোক না কেন- আমি তার পাশে থাকব। আমি চলে আসায় সঞ্জয় আমার সঙ্গে খুবই খারাপ আচরণ করেছে।’

কিন্তু ১৯৯৩ সালে সঞ্জয় যখন অস্ত্র মামলায় গ্রেপ্তার হন তখন মাধুরীর সঙ্গে প্রেমের গুঞ্জন ভিন্ন দিকে মোড় নেয়। সঞ্জয় যখন কারাগারে ছিলেন তখন মাধুরী এই অভিনেতার কাছ থেকে নিজেকে সম্পূর্ণ দূরে সরিয়ে নেন। পাশাপাশি সঞ্জয়ের সঙ্গে প্রেমের ‍গুঞ্জন অস্বীকার করতে শুরু করেন।

পরবর্তী সময়ে কারামুক্ত হয়ে এক সাক্ষাৎকারে সঞ্জয় বলেন, ‘তার (মাধুরী) কথায় কষ্ট পাইনি। আমি তার সহকর্মী এবং একসঙ্গে অনেক সিনেমা করেছি। সব সহকর্মীর সঙ্গে আমার সুসম্পর্ক রাখতে হয়, সেটা মাধুরী হোক অথবা শ্রীদেবী। যেমন ধরুন, ‘গুমরাহ’ সিনেমার শুটিংয়ের প্রথম দিকে আমি স্বস্তিবোধ করছিলাম না। কারণ শ্রীদেবীর বিষয়ে আপনারা সবাই জানেন। তিনি মোটেও বন্ধুসুলভ ছিলেন না এবং এ নিয়ে তার সঙ্গে আমার আলোচনা করতে হয়েছে। তাই মাধুরী যা বলেছে তাতে আমি মোটেও বিরক্ত নই।’

শুধু তাই নয়, প্রেমের গুঞ্জনের কারণে মাধুরীর কাছে নাকি ক্ষমাও চেয়েছিলেন এই অভিনেতা। সঞ্জয় এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‘সাজন’ সিনেমার সময় থেকে প্রেমের গুঞ্জন ছড়ায়। তখন ‘খেল’ সিনেমার শুটিংয়ের জন্য মাধুরী কেনিয়াতে ছিল। সে দেশে ফিরে এলে আমি তার কাছে গিয়ে ক্ষমা চেয়েছি। কারণ তার কোনো দোষ ছিল না। তবুও তাকে সবার বিদ্রূপ শুনতে হয়েছে। মাধুরী বিষয়টি ইতিবাচকভাবেই নিয়েছে।’

মাধুরীর সঙ্গে সত্যিই কী প্রেমের সম্পর্ক ছিল? প্রশ্ন করা হলে সঞ্জয় বলেন, ‘সব সহকর্মীর সঙ্গেই আমার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। যদি রাভিনার সঙ্গে আমার সম্পর্ক দেখেন মনে করবেন আমরা প্রেম করছি। তবে বিয়ে করার মতো কোনো সম্পর্ক আমাদের মধ্যে তৈরি হয়নি।’

এদিকে ২০১৭ সালে এক সাক্ষাৎকারে সঞ্জয়ের সঙ্গে প্রেমের বিষয়ে মাধুরী দীক্ষিত বলেন, ‘আমি বর্তমানে যে অবস্থানে তাতে এ প্রসঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন বোধ করছি না। অনেক সময় গড়িয়েছে। আমি জানি না এ সব রিপোর্ট কোথা থেকে আসে? এতে আমার কোনো কিছু যায় আসে না।’

ঢাকা/মারুফ/তারা

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়