ঢাকা     শনিবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১১ ১৪২৭ ||  ০৮ সফর ১৪৪২

কোভিড-১৯: টেস্ট কতটা সংকটে

মোহাম্মদ হানিফ, দক্ষিণ কোরিয়া || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০৭, ২৯ জুন ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
কোভিড-১৯: টেস্ট কতটা সংকটে

বিশ্বজুড়ে করোনা রোগীর সংখ্যা কোটি ছাড়িয়ে গেল। শুরুর গল্পটা সবার জানা থাকলেও শেষের গল্পটা কেউ জানে না। কোভিড-১৯–এর স্বাস্থ্যঝুঁকি বিশ্বকে শেষ পর্যন্ত কোথায় নিয়ে যাবে, তা এখনো অজানা। গোটা বিশ্বে সব ব্যবস্থাপনাকে পঙ্গু করে রাখা করোনা ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে উঠছে।

সুস্থ থাকাটাই মানুষের এখন একমাত্র লক্ষ্য। প্রতিদিন দেশের খবরের পাতায় অপ্রত্যাশিত সংবাদ-‘বিক্রি হচ্ছে স্কুল!’ ‘সংকীর্ণ হতে যাচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম।’ ‘চাকরি হারিয়ে চিরচেনা শহর ছেড়ে গ্রামের উদ্দেশে যাত্রা।’ ‘চারদিকে অসহায় মানুষদের অভাবের আর্তনাদ।’ ‘কিটের অভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র।’ বিষয়গুলো সত‌্যিই বেদনাদায়ক।

যত দিন যাচ্ছে করোনা প্রতিরোধের সংগ্রাম ক্রমেই কঠিন হয়ে উঠছে। আক্রান্তের সংখ্যা ঊর্ধ্বমুখী। প্রতিদিনই তৈরি হচ্ছে নতুন রেকর্ড। যে কারণে এখন আরো বেশিসংখ্যক মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা খুব বেশি প্রয়োজন হয়ে পড়ছে।

কিটই হচ্ছে বর্তমান করোনা প্রতিরোধের হাতিয়ার। আর সেই কিটের সরবারহ নেই বলে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে দেশের করোনা পরীক্ষার কেন্দ্রগুলো। কোথাও আবার নির্দিষ্ট সংখ্যার বাইরে চাইলেও টেস্ট করা সম্ভব হচ্ছে না। দেশজুড়ে রোগী বাড়লেও সেই তালে বাড়ছে না টেস্টের সংখ্যা।

বর্তমানে সরকারি–বেসরকারি মিলিয়ে মোট ৬৬টি পরীক্ষাকেন্দ্রে করোনার নমুনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা চলছে বাংলাদেশে। কিটের অভাবে কয়েকটি ল্যাবরেটরিতে ইতোমধ্যে করোনা পরীক্ষা স্থগিত রাখছে। দেশের অন্তত ৯টি জেলার ১২টি পরীক্ষাকেন্দ্রে কিটের সংকট দেখা দিয়েছে। যার জন্য সংক্রমণের সাথে কিটের সংকটও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সোয়া লাখ এবং সংক্রমণ মৃত্যু দেড় হাজার ছাড়িয়ে গেছে। ভাইরাসের ব্যাপক সামাজিক সংক্রমণের কারণে এখন ঢাকার বাইরেও প্রত্যন্ত এলাকায় প্রচুর রোগী শনাক্ত হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বুলেটিনেও বলা হচ্ছে প্রতিদিনই হাসপাতালের বাইরে বাড়িতে মারা যাচ্ছেন বেশকিছু রোগী।

সংক্রমণের শুরুর দিকে কিছু সঠিক পদক্ষেপের অভাব ছিলো। সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে হলে সন্দেহভাজন ব্যক্তি চিহ্নিত করা, রোগ শনাক্ত করা, শনাক্ত হওয়া রোগীকে আইসোলেশনে নেওয়া, কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং করা জনস্বাস্থ্যবিষয়ক এসব পদক্ষেপ নেওয়া দরকার ছিলো। সেই মৌলিক কাজগুলো হয়নি বলেই সংক্রমণ প্রতিনিয়ত বাড়ছে।

কিট নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মত, এই ক্রান্তিকালে কিটের সংকট ভীষণ উদ্বেগের জন্ম দিয়েছে। কেননা, এর কারণে শুধু আক্রান্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করাই বিলম্বিত হচ্ছে তা নয়, কোনো আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ হয়ে উঠেছেন কিনা তাও জানা যাচ্ছে না। দেশের জনসংখ্যার বিচারে যথেষ্ট সংখ্যক মানুষের করোনা পরীক্ষা হচ্ছে না।

এদিকে টেস্টিং কিটের চেয়ে ল্যাবরেটরির অভাবকে বড় সংকট হিসাবে দেখছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। যেখানে প্রতিদিন ন্যূনতম ২০ হাজার নমুনা পরীক্ষা করা উচিত। কিন্তু এ পর্যন্ত দিনে সর্বোচ্চ ১৭ হাজার ৫৫২টি নমুনা পরীক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। তাও মাত্র এক দিন, ১৭ জুন।

পরীক্ষার হিসাবে বাংলাদেশ পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তুলনায় তো বটেই, দক্ষিণ এশিয়ায়ও বেশ পিছিয়ে। যে কয়জনের পরীক্ষা হচ্ছে তাদের রিপোর্ট পেতে কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হচ্ছে যার ফলে অন্যদেরও সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে।

এদিকে, যত বেশি পরীক্ষা হবে, তত বেশি মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়বে। আর যত বেশি ধরা পড়বে তাদের অতি দ্রুত আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হবে। এমন সূত্রকে ফলো করে লাগাম টেনে ধরছে করোনা প্রতিরোধের রোল মডেল দক্ষিণ কোরিয়া। গণহারে বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষা বিশ্বে কোরিয়া এগিয়ে। শুধু কিট আবিষ্কারে তারা বসে নেই এটার দ্রুত কার্যক্ষমতা নিয়ে কাজ করছে দেশটি। আক্রান্ত ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষার দ্রুত ফলাফলের প্রত্যাশায় এমন কিটের গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে কোরিয়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। যা কিনা মাত্র এক ঘণ্টার মধ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্ত করতে সক্ষম হবে।

কোরিয়ার ইউনহাপের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন কিটগুলো জরুরি চিকিৎসা, প্রসূতি মায়ের প্রসবের আগে কোনো করোনায় আক্রান্ত কি না, তা দ্রুত নির্ধারণ এবং অন্যান্য জরুরি পরিস্থিতিতে যেখানে ভাইরাসের সংক্রমণের জন্য সন্দেহজনক রোগীদের পরীক্ষা করা। করোনারোধে এমন জরুরি ডায়াগনস্টিক কিট প্রবর্তন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। যদিও বর্তমান কোভিড-১৯ পরীক্ষার কিটগুলো ফলাফল দেখাতে প্রায় ছয় ঘণ্টা সময় নেয়।

কোরিয়ার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, ক্লিনিক্যাল পারফরম্যান্স মূল্যায়ন এবং বিশেষজ্ঞ পর্যালোচনার মাধ্যমে এটি দ্রুত অনুমোদন দেওয়া যেতে পারে।

করোনা মোকাবিলায় কোরিয়া সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগ এবং বৈশ্বিক প্রাদুর্ভাব রোধে বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় ৬০টি দেশে কিটসহ চিকিৎসাসামগ্রী সহায়তার জন্য দক্ষিণ কোরিয়া সরকার বন্ধুত্বের অপূর্ব নিদর্শন স্থাপন করেছে।

তবে এ মুহূর্তে দেশ এবং দেশের মানুষদের বাঁচাতে হলে অনেক বেশি পরীক্ষার প্রয়োজন আর তার জন্য লাগবে কিট। এদিকে কড়া নজর রাখতে হবে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠকদের। যদিও স্বাস্থ্য খাতকে সর্বাপেক্ষা অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে এবারের বাজেটে, যা বর্তমান প্রেক্ষাপটের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অর্থের সঠিক পরিচালনায় হয়তো করোনা প্রতিরোধে অনেকটা সহায়ক হবে বলে মনে করছি।

 

দক্ষিণ কোরিয়া/হানিফ/সাইফ

 

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়