ঢাকা     শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ২০ ১৪২৯

মালয়েশিয়ায় নির্মাণ খাতে ঘাটতি ৪ লাখ শ্রমিক

এস.এ সৌরভ, মালয়েশিয়া || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৫৪, ৮ ডিসেম্বর ২০২২  
মালয়েশিয়ায় নির্মাণ খাতে ঘাটতি ৪ লাখ শ্রমিক

শ্রমের ঘাটতি, সাথে ক্রমবর্ধমান কাঁচামালের খরচ বাড়তি এবং ডলারের বিপরীতে রিংগিতের ব্যবধান বাড়ায় সুদের হার স্থানীয় নির্মাণ খাতের ওপর চাপ অব্যাহত রেখেছে। মালয়েশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রাতারাতি পলিসি রেট (ওপিআর) বৃদ্ধির ফলে শিল্পে প্রভাব পড়েছে। যদিও মহামারি পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করছে।

কনস্ট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রি ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (সিআইডিবি) মালয়েশিয়ার প্রধান নির্বাহী দাতুক আহমেদ আসরি আবদুল হামিদ বলেছেন, স্থানীয় পর্যায়ে প্রবেশের ফলে নির্মাণ কার্যক্রম উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। কারণ সমস্ত নির্মাণ সাইট কঠোর স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) ছাড়াই কাজ করতে পারে। তবে নির্মাণ শিল্পে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৪ লাখ শ্রমিকের আনুমানিক ঘাটতি রয়েছে। সিআইডিবি (নির্মাণ সাইটে কাজের বিশেষ পাস) সমস্যাটি সমাধানের সুবিধার্থে শিল্প সমিতি এবং মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে।

ন্যাশনাল রিকভারি কাউন্সিল সম্প্রতি বিদেশি কর্মীদের ঘাটতির সমস্যা দ্রুত সমাধান করার আহ্বান জানিয়েছে। কাউন্সিলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তান শ্রী সুলাইমান মাহবুব ৩১ অক্টোবর জানান, কোটা অনুমোদন এবং শুল্ক পরিশোধের ডেটা ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অনুমোদিত কোটা ছিল ৪,৬৭,২২৩ জন কর্মী। একই সময়ের জন্য ১২টি সোর্স কান্ট্রি থেকে মাত্র ৭৬,০০০ জন শ্রম এন্ট্রি রেকর্ড করা হয়েছিল।

মাহবুব বলেন, আমরা দেখেছি অনেক শ্রমিক আবেদন করেছেন।  অর্থ প্রদান করেছেন। কিন্তু কম লোক এসেছেন। প্রশ্ন হলো কেন তারা আসেনি?

তিনি বলেন, এটা কি তাদের দেশের সমস্যা বা অন্য কোনো কারণে জড়িত? এই বিষয়টির ওপর জোর দেওয়া দরকার, অন্যথায় কৃষি খাত, বিশেষ করে পাম তেল, ক্ষতিগ্রস্ত হতে থাকবে।

তিনি আরও বলেন, শ্রমঘন শিল্প যেমন উৎপাদন, পর্যটন, নির্মাণ এবং খুচরা, সেই সাথে ইলেকট্রনিক্স এবং কৃষিও শ্রম ঘাটতির কারণে প্রভাবিত হয়েছে।

আহমদ আসরি উল্লেখ করেন, মার্চ থেকে মার্কিন ডলারের বিপরীতে রিংগিত দুর্বল হয়েছে। আরএম ৪.২০ এর নিচে থেকে অক্টোবরে আরএম ৪.৭২-এ পৌঁছেছে। যার ফলে আমদানিকৃত পণ্য ও উপকরণের দাম বেড়েছে।

‘একটি দুর্বল দেশীয় মুদ্রার মানে হলো যে বিদেশি পণ্যের দাম সাধারণত বৃদ্ধি পাবে। ক্ষতিগ্রস্ত নির্মাণ সামগ্রীর মধ্যে সিমেন্ট  এবং ইস্পাত রয়েছে। যান্ত্রিক এবং বৈদ্যুতিক (M&E) উপাদানগুলোর দামও বেড়েছে কারণ অনেক উপাদান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করা হয়৷ আমরা ভবিষ্যতে মুদ্রা শক্তিশালী হওয়ার সাথে পরিস্থিতির উন্নতি দেখবো।’

আহমদ আসরি বলেন, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির দুর্বলতা এবং সেই সাথে অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার বিষয়ে উদ্বেগ দ্বারা চালিত স্থানীয় মুদ্রা এই বছরের শুরু থেকে গ্রিনব্যাকের বিপরীতে নিম্নগামী গতিতে রয়েছে।

তিনি বলেন, দেরিতে রিংগিত গ্রিনব্যাকের বিপরীতে লাভ করতে শুরু করেছে। এটি ১ ডিসেম্বরে ইউএস ডলারের বিপরীতে আরএম ৪.৪০ এ বেড়েছে।

আহমদ আসরি বলেন, নির্মাণ খাতের কর্মক্ষমতা আগামী দুই বছরের জন্য স্থির হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়া নির্মাণ শিল্প এখনও মহামারি থেকে পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে। প্রধান চ্যালেঞ্জগুলোর মধ্যে রয়েছে কিছু নির্মাণ সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি, শ্রমিকের অভাব, শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের ঘরের খরচ এবং ঠিকাদারদের নগদ প্রবাহের সমস্যা।

‘আমরা নির্মাণ শিল্পের বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে অবকাঠামো উন্নয়ন এবং অন্যান্য নির্মাণ প্রকল্পের জন্য আরও বরাদ্দের আশা করি। কারণ এটি অন্যান্য অনেক অর্থনৈতিক খাতের বৃদ্ধিকে অনুঘটক করবে,’ তিনি যোগ করেন।

/হাসান/সাইফ/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়