RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০১ নভেম্বর ২০২০ ||  কার্তিক ১৭ ১৪২৭ ||  ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সামনে কি পড়ে থাকলো?

অরুন্ধতি রায় || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:১৫, ৬ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২০:১৭, ৬ অক্টোবর ২০২০
সামনে কি পড়ে থাকলো?

ভাষান্তর: অনিরুদ্ধ বিশ্বাস

আমি যখন আমার সর্বশেষ বইয়ের শিরোনাম নিয়ে আলোচনা করছিলাম; যুক্তরাজ্যে আমার প্রকাশক, সাইমন প্রজের, আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আজাদী’ বিষয়ে আমার ভাবনা কী ছিলো? এক মুহূর্ত দ্বিধা না করে উত্তর দিয়ে আমি নিজেই নিজেকে অবাক করে দিয়েছিলাম, ‘একটি উপন্যাস’। কারণ, উপন্যাস একজন লেখককে তার ইচ্ছানুযায়ী জটিল করার স্বাধীনতা দেয়- যার দরুণ সে বিশ্ব, ভাষা, সময়, সমাজ, সম্প্রদার ও রাজনীতিতে চলাচল করতে পারে। উপন্যাস অবিরাম জটিল, স্তরযুক্ত হতে পারে, তবে এর মানে এই নয় যে, এটি আলগা, বেঢপ বা এলোমেলো হবে। আমার কাছে একটি উপন্যাস হলো দায়বদ্ধতার সঙ্গে স্বাধীনতা। বাস্তব, নিরপেক্ষ আজাদীর স্বাধীনতা।

‘আজাদী: ফ্রিডম, ফ্যাসিজম, ফিকশন’- এর কয়েকটি প্রবন্ধ উপন্যাস আকারে এবং তার উপন্যাসের আবহের মধ্যে দিয়ে রচিত হয়েছিল। তাদের মধ্যে কিছু কীভাবে বিশ্বের সঙ্গে যুক্ত হয় এবং বিশ্বে পরিণত হয় সেই বিষয় ছিলো। সবগুলো ২০১৮ থেকে ২০২০ এর মধ্যে রচিত হয়েছিল, দুই বছর যা ভারতে দুই শতাব্দীর মতো অনুভূত হয়েছিল। এই সময়ে, করোনাভাইরাস মহামারি আমাদের ভোগাচ্ছে, সঙ্গে সঙ্গে আমাদের পৃথিবী একটি তোরণের মধ্যে দিয়ে চলেছে। আমরা এমন জায়গায় যাত্রা করেছি যেখান থেকে অন্তত অতীতের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং আদর্শগত গুরুতর কোনো স্ফোটন ব্যতীত আমাদের প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনা কম দেখায়।

করোনা ভাইরাসের সঙ্গে ‘আজাদী’র আরও একটি ভয়ানক ধারণা এসেছে। এই মুক্ত ভাইরাসটি বিশ্বের সীমান্ত রেখাগুলোকে তুচ্ছ করে দিয়েছে, গোটা জনগোষ্ঠীকে কারাগারে বন্দি করে ফেলেছে এবং বিশ্বকে স্থির করে দিয়েছে, যা আগে কোনো দিক কেউ করতে পারেনি। এটি আমাদের প্রথাগত জীবনযাপনের ওপর ভিন্নভাবে আলোকপাত করে। আমাদের আধুনিক সমাজের মূল্যবোধগুলোকে প্রশ্নবিদ্ধ করে- আমরা উপাসনা করার জন্য কী বেছে নিয়েছি এবং কী বাদ দিতে চাই। যখন আমরা এই তোরণের মধ্যে দিয়ে অন্য দুনিয়ায় পা রাখছি, আমাদের নিজেদের প্রশ্ন করতে হবে যে- আমরা আমাদের কী সঙ্গে নিতে চাই এবং আমরা কী পেছনে ছেড়ে যাবো। সবসময় আমাদের কোনো পছন্দ নাও থাকতে পারে, তবে এটি নিয়ে চিন্তা না করা কোনো বিকল্প হবে না। এবং এই বিষয়ে ভাবতে হলে আমাদের অতীতের পৃথিবী, গ্রহে যে ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে এসেছি এবং মানুষের মধ্যে গভীর অবিচার সম্পর্কে আরও গভীর বোঝাপড়া প্রয়োজন। আশা করা যায়, যে প্রবন্ধগুলো এই মহামারি আসার আগে লেখা হয়েছিল সেগুলো আমাদের বিচ্ছেদ সম্পর্কে আলোচনার সহায়ক হবে। বা, অন্য কিছু না হলেও, ইতিহাসের একটি মুহূর্ত যা একজন লেখক অক্ষরবন্দী করেছিলেন, যেখানে আমরা সবাই একটি রূপক রানওয়ের সামনে রাখা বিমানে চেপে অজানা গন্তব্যের জন্য যাত্রা করেছিলাম।

২০১৮ সালের জুনে ‘ডব্লিউ. জি. সেবাল্ড লেকচার অন লিটারেলি ট্রান্সলেসন’ বিষয়ে ব্রিটিশ লাইব্রেরিতে যেই বক্তৃতা দিয়েছিলাম সেটিই ‘আজাদী’র প্রথম প্রবন্ধ। এর বেশিরভাগই আমরা হিন্দুস্তানি হিসেবে যে ভাষাটি জানতাম তার অগোছালো বিভক্তি নিয়ে- এখন দুঃখজনকভাবে এবং কিছুটা নির্বিচারে হিন্দি এবং উর্দু বলতে হয়েছে (যার মধ্যে একটি ভুল ভিত্তিতে হিন্দি হিন্দুদের সঙ্গে এবং মুসলমানদের সঙ্গে উর্দু জড়িত)- হিন্দু জাতীয়তাবাদের বর্তমান প্রকল্পটি এক শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে চাপিয়ে দিয়েছিল।

আমাদের মধ্যে অনেকেই আশা করেছিলেন যে ২০১৮ সালে নরেন্দ্র মোদী এবং তার হিন্দু জাতীয়তাবাদী দলের শাসনের শেষ বছর হবে। ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচন এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে জরিপগুলো দেখাল মোদী এবং তার দলের জনপ্রিয়তা নাটকীয়ভাবে হ্রাস পাচ্ছে। আমরা জানতাম এটি একটি বিপজ্জনক মুহূর্ত। আমাদের মধ্যে অনেকেই একটি ফলস-ফ্ল্যাগ আক্রমণ বা এমন একটি যুদ্ধের প্রত্যাশা করেছিল যা দেশের মেজাজ পরিবর্তন নিশ্চিত করবে। অন্যতম একটি প্রবন্ধ হলো ‘ইলেকশন সিজন ইন এ ডেঞ্জারাস ডেমোক্রেসি’ যেটি এই নির্বাচনের ভয়ের বিষয়ে রচিত। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে, সাধারণ নির্বাচনের কয়েক সপ্তাহ আগে, আক্রমণটি এসেছিল। কাশ্মীরে একটি আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী নিজেকে উড়িয়ে দিয়েছিল, তাতে চল্লিশজন নিরাপত্তা কর্মী নিহত হয়েছিল। ফলস ফ্ল্যাগ হোক বা না হোক, সময় নিখুঁত ছিল। মোদী এবং ভারতীয় জনতা পার্টি ক্ষমতায় ফিরে গেল। এবং এখন, তার দ্বিতীয় মেয়াদের ১ বছরের মধ্যেই, একাধিক ভয়াবহ পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে মোদী ভারতের চেহারা বদলে দিয়েছেন। ফ্যাসিবাদের অবকাঠামো আমাদের মুখে ঝকঝকে করছে, মহামারি অভাবনীয় উপায়ে সেই প্রক্রিয়াটিকে ত্বরান্বিত করছে, এবং তবুও আমরা এটা স্বীকার করতে দ্বিধা করছি।

আমি ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে এটি লিখতে শুরু করি যখন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সপরিবারে ভারত সফরে ছিলেন। ৩০ জানুয়ারি ভারতে করোনাভাইরাসের প্রথম ঘটনাটি ঘটেছিল। সরকার একেবারেই এদিক ভ্রুক্ষেপ করেনি। প্রায় দুই মাস ধরে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যটি তার বিশেষ মর্যাদাকে ছিনিয়ে নিয়ে একটি তথ্য অবরোধের অধীনে রাখা হয়েছিল এবং দুই মাসেরও বেশি সময় পেরিয়েছিল, যখন নতুন একটি মুসলিমবিরোধী, অসাংবিধানিক নাগরিকত্ব আইন আনা হয়েছিল যে কারণে লাখ লাখ বিক্ষোভকারী রাস্তায় নেমে এসেছিল। মোদী এবং ট্রাম্পের মুখোশ পরা জনতার উদ্দেশে প্রকাশ্য ভাষণে, ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতীয়দের জানিয়েছিলেন যে তারা ক্রিকেট খেলেন, দিওয়ালি উদযাপন করেন এবং বলিউডের চলচ্চিত্র তৈরি করেন। আমরা নিজের সম্পর্কে এটি জানতে পেরে কৃতজ্ঞ ছিলাম। বাস্তবপক্ষে, তিনি আসলে আমাদের তিন বিলিয়ন ডলার মূল্যের এমএইচ-৬০ হেলিকপ্টার বিক্রি করেছিলেন। কদাচিৎ ভারত প্রকাশ্যে নিজেকে এভাবে অপমান করেছে।

দিল্লি হোটেলের গ্র্যান্ড প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট থেকে খুব বেশি দূরে নয় যেখানে ট্রাম্প রাত কাটিয়েছিলেন, এবং হায়দরাবাদ হাউস, যেখানে তিনি মোদির সঙ্গে বাণিজ্য আলোচনা করেছিলেন, দিল্লি উত্তাল ছিল। পুলিশ সমর্থিত উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে সশস্ত্র হিন্দু নজরদারি জনতা শ্রমিকশ্রেণি পাড়া-মহল্লায় মুসলমানদের আক্রমণ করেছিল। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভকারী মুসলিম মহিলাদের ক্ষমতাসীন দলের অন্তর্ভূক্ত রাজনীতিবিদরা প্রকাশ্য হুমকি দিয়েছিলেন বলে সহিংসতা কিছুটা সময় ধরে ছিল। আক্রমণ শুরুর পরে পুলিশকে উভয় পাশে একসঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকা বা জনতা সমর্থন করা দেখা গেছে। মুসলমানরা লড়াইয়ে ফিরে এসেছিল। ঘরবাড়ি, দোকানপাট, যানবাহন পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এক পুলিশ সদস্যসহ অনেকে মারা গিয়েছিলেন। গুলিবিদ্ধ ক্ষত নিয়ে আরও অনেককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ভয়াবহ ভিডিওগুলি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়েছিল। এর মধ্যে একটিতে গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তায় শোয়া মুসলিম যুবকদের ইউনিফর্মধারী পুলিশ সদস্যরা জাতীয় সংগীত গাইতে বাধ্য করেছিল। (এরপরে, তাদের মধ্যে একজন, ফাইজান, পুলিশ সদস্যের লাঠির আঘাতে মারা গিয়েছিল।)

ট্রাম্প তার চারদিকে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ ঘটনাগুলো নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। বরং, তিনি আধুনিক ভারতের সবচেয়ে বিভাজক, ঘৃণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নরেন্দ্র মোদীকে ‘জাতির জনক’ উপাধিতে ভূষিত করেছিলেন। কিছুক্ষণ আগে পর্যন্ত, এটি গান্ধীর খেতাব ছিল। আমি গান্ধীর কোনো অনুরাগী নই, তবে অবশ্যই তিনি এই প্রাপ্যও নন।

ট্রাম্প চলে যাওয়ার পরে, সহিংসতা কয়েক দিন স্থায়ী হয়েছিল। পঞ্চাশ জনেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। প্রায় তিনশতাধিক মানুষকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। হাজার হাজার মানুষ শরণার্থী শিবিরে চলে গিয়েছিল। সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিজের এবং পুলিশের প্রশংসা করেছিলেন। ক্ষমতাসীন দলের সদস্যরা তাদের বুদ্ধিমান সমর্থকদের বক্তব্য দিয়েছিলেন যাতে তারা মুসলমানদের কমবেশি দোষারোপ করেছিল যে তারাই সহিংসতায় প্ররোচিত করেছে, নিজের উপর হামলা করেছে, নিজের দোকানপাট এবং ঘরবাড়ি পুড়িয়েছে এবং তাদের নিজের দেহকে তাদের পাশের অঞ্চলে ছড়িয়ে থাকা খোলা নর্দমার খালে ফেলে দিয়েছে। পুরো ব্যাপারটিকে একটি হিন্দু-মুসলিম ‘দাঙ্গা’ হিসেবে চিত্রিত করার জন্য ক্ষমতাসীন দল, তার সোশ্যাল মিডিয়া ট্রলগুলি এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া সবরকম চেষ্টাই করেছিল। প্রকৃতপক্ষে, এটা কোনো দাঙ্গা ছিল না। এটি ছিল একটি সশস্ত্র, ফ্যাসিবাদী কিছু জনতার নেতৃত্বে মুসলমানদের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা। এবং যখন মৃতদেহগুলি ধূলায় পড়েছিল, তখন ভারতীয় সরকারী কর্মকর্তারা ভাইরাস সম্পর্কে তাদের প্রথম সভা করেছিলেন। মোদি যখন ২৪ মার্চ দেশব্যাপী লকডাউনের ঘোষণা দিচ্ছিল তখন ভারত তার গোপন ভয়াবহ মানসিকতা সমস্ত বিশ্বের কাছে দেখার জন্য ছড়িয়ে দিয়েছিল।
সামনে কি পড়ে থাকলো?
শুধুই বিশ্বকে নতুন করে ভাবা।

লেখাটি অরুন্ধতি রায়ের ‘আজাদী: ফ্রিডম, ফ্যাসিজম, ফিকশন’ বইয়ের ভূমিকা থেকে নেওয়া হয়েছে। বইটি চলতি মাসের শুরুতে ‘হেমার্কেট বুকস’ থেকে প্রকাশ হয়েছে। ভূমিকাটি গত ১৫ সেপ্টেম্বর ‘প্যারিস রিভিউ’ পত্রিকায় ছাপা হয়। 

 

ঢাকা/তারা

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়