ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২১ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

অভাব দমাতে পারেনি আইয়ুব মোড়লকে

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-২০ ১১:৪২:৪৩ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-২০ ১১:৪২:৪৩ এএম

অভাব দমাতে পারেনি দরিদ্র আইয়ুব মোড়লকে। বরং অভাব আর শত প্রতিবন্ধকতা দূরে ঠেলে মেধা আর অদম্য প্রাণ শক্তিতে সে জায়গা করে নিয়েছে প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

ছেলের এমন প্রাপ্তিতে খুশি বাবা জামান মোড়ল ও মা রেহেনা বেগম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পাওয়ার খবরে আনন্দের বন্যায় ভাসছে আইয়ুব মোড়লের বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশী।

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের উত্তর খৈকড়া গ্রামের কৃষক বাবা ও গৃহিনী মায়ের সন্তান আইয়ুব মোড়ল। দরিদ্র পরিবারে জন্ম, তাই দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ ছোটকাল থেকেই। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে আইয়ুব সবার বড়। ছোট ভাই ৫ম ও একমাত্র বোন ২য় শ্রেণিতে বক্তারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ছে।

আইয়ুব মোড়ল ২০১৭ সালে কালীগঞ্জ আরআরএন পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কমার্স বিভাগ নিয়ে জিপিএ-৪.৭৭ পেয়ে এসএসসি পাস করে। এবং চলতি বছর গাজীপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে একই বিভাগ নিয়ে জিপিএ-৪.৯২ পেয়ে এইচএসসি পাস করে।

মেধাবী আইয়ুব এসএসসি পড়া অবস্থায় নতুন বই ক্রয় করতে পারেনি। তাই শিক্ষক-সহপাঠীদের সহযোগিতায় পুরাতন বই সংগ্রহ করে বইয়ে পড়াশোনা করতো সে। বাবাকে বললে হয়তো বই কিনে দিত। কিন্তু সংসারের বড় ছেলে হিসেবে বাবাকে কখনো সেই চাপ দিতনা সে। এইচএসসিতে পড়ার সময় নিজের লেখাপড়ার খরচ যোগাতে এবং বাবাকে সহযোগিতা করতে টিউশনি করতো সে। এতো কিছুর পরও নিজের মেধার আর যোগ্যতায় আইয়ুব জিপিএ-৪.৯২ পেয়ে এইচএসসি পাস করে। পড়াশুনার প্রতি তার প্রবল আগ্রহ তাকে এগিয়ে নিয়েছে।

এরপর গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ-ইউনিটের (বিজনেস স্ট্যাডিস) ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে আইয়ুব। ২৬ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে ১২৫০ জন মেধাবীর মধ্যে আইয়ুব মোড়ল ৮৫১তম হয়। বিষয় নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করলেও গত ১৬ অক্টোবর বিষয় নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত হয়। সে পায় তার পছন্দের বিষয় ম্যানেজমেন্ট স্টাডিস।

এ ব্যাপারে আইয়ুব মোড়ল জানায়, তার এত দূর আসার পিছনে পরিবার তো অবশ্যই তা ছাড়াও পরিবারের বাহিরেও আত্মীয়-স্বজন আর্থিকভাবে ও শিক্ষক-সহপাঠী বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত এক পরিচিত বড় ভাই তাকে বিনা পয়সায় কোচিং করিয়েছেন। এজন্য তাদের সবার কাছেই সে কৃতজ্ঞ। দেশ সেরা ব্যবস্থাপক হওয়ার জন্য দোয়া চেয়েছেন আইয়ুব।

 

কালীগঞ্জ/রফিক সরকার/বুলাকী

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন