ঢাকা     শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১০ ১৪২৭ ||  ০৭ সফর ১৪৪২

খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে রূপান্তরিত হয়েছে বাংলাদেশ: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:২৭, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে রূপান্তরিত হয়েছে বাংলাদেশ: তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলছে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণের পথে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন স্বল্পোন্নত দেশ নয়, মধ্যম আয়ের দেশ। বাংলাদেশে কবিতায় কুঁড়েঘর আছে, বাস্তবে কুঁড়েঘর খুঁজে পাওয়া কঠিন। বাংলাদেশে প্রথিবীর সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। পঞ্চাশের দশকের মাঝামাঝি যখন লোকসংখ্যা ছিল ৪ কোটি ৭০ লাখ তখন খাদ্য ঘাটতি ছিল। আজ লোকসংখ্যা ১৬ কোটি ৭০ লাখ কিংবা তারও বেশি, সাড়ে তিনগুণের বেশি বেড়েছে। পঞ্চাশের দশকের তুলনায় মাথাপিছু জমি ২০-৩০ শতাংশ কমেছে। এরপরও পৃথিবীর সর্বনিম্ন মাথাপিছু জমি নিয়ে পৃথিবীকে অবাক করে দিয়ে খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে রূপান্তরিত হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী শুক্রবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সুবর্ণজয়ন্তীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি চুয়েটের ক্যাম্পাসে এসেছি বহু বছর আগে। কিন্তু প্রায় প্রতি সপ্তাহে অন্তত মাসে দু-একবার এ ক্যাম্পাসের সামনে দিয়ে আমার যাওয়া হয়, কিন্তু ভেতরে আসা হয়নি। এমন অপরূপ সুন্দর ক্যাম্পাস খুব কম বিশ্ববিদ্যালয়ের, কম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আছে। প্রকৃতির অপরূপ শোভায় শোভিত, যেন প্রকৃতি পরম আদরে লালন করছে এ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে। এমন ক্যাম্পাস সত্যিই বিরল। আজ থেকে ৫১ বছর আগে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে এটি কলেজ ছিল। ৫১ বছরের পথচলায় এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বহু প্রকৌশলী তৈরি করেছে। যারা শুধু বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সমৃদ্ধির ক্ষেত্রে অবদান রাখছে তা নয় তারা সমস্ত পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন দেশে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে অবদান রাখছে। যারা মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করছে তারা মরুভূমিতে সুরম্য অট্টালিকা তৈরিতে অনেক অবদান রেখেছেন। যারা প্রাচ্যের কিংবা পাশ্চাত্যের বিভিন্ন দেশে কাজ করছে তারা সেই দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে অবদান রাখছেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ব্যক্তি জীবনে স্বপ্ন না থাকলে যেমন স্বপ্ন পূরণের তাগাদা, তাড়না থাকে না। রাষ্ট্রীয় জীবনেও স্বপ্ন থাকতে হয়। তা না হলে তাগাদা থাকে না, তাড়না থাকে না। প্রধানমন্ত্রী দুইটি স্বপ্নের কথা বলেছিলেন, দিনবদল ও ডিজিটাল বাংলাদেশ। আজ দিনবদল হয়েছে। সন্ধ্যার পরে কিংবা ভরদুপুরে মা বাসি ভাত দেন এ ডাক শোনা যায় না। বাসি ভাতের সমস্যা আমরা সমাধান করেছি। আকাশ থেকে চট্টগ্রাম শহর চেনা যায় না। ঢাকা শহর চেনা যায় না। দিন বদল হয়েছে। ১৫ কোটি মানুষ মোবাইল ব্যবহারকারী। মোবাইল ফোনে ভিডিও কল করা যায়। মোবাইল ফোনে দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে টাকা পাঠানো যায়। ভোলার মনপুরা থেকে টেলিমেডিসিন সেবা মেলে। আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা হবে, স্বপ্নের ঠিকানাকে অতিক্রম করা।

প্রকৌশলী হারুনুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। বক্তব্য রাখেন চুয়েটের উপাচার্য ড. রফিকুল আলম।

অনুষ্ঠানে বিআইটির সাবেক পরিচালক ড. একেএম ইকবাল হোসেন, অধ্যাপক সৈয়দ মতিনুর রশিদ, অধ্যাপক আ ক ম রেজাউল করিম, সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মো. মোজাম্মেল হক, অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর আলমকে সম্মাননা জানানো হয়।


চট্টগ্রাম/রেজাউল/সাইফ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়