ঢাকা, শুক্রবার, ৩ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

‘জ্বীন আসবে, তাই রাতে দরজা খোলা রাখতে হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-০৮ ১:৫১:১৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-০৮ ৫:৪৯:০২ পিএম

‘বাড়িতে জ্বীন আসবে, তাই রাতে দরজা খোলা রাখতে হবে’, এমন প্রতারণামূলক কথা বলেই কৌশলে ঘরে প্রবেশ করেন হত্যাকারীরা।

এরপর তিনজনকে হত্যার পর মালামাল নিয়ে সটকে পরেন তারা।

শুক্রবার গভীর রাতে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর গ্রামে হাওলাদার বাড়িতে একসঙ্গে তিনজন হত্যার চাঞ্চল্যকর রহস্য উদ্ঘাটন এবং এ ঘটনায় জড়িত দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে বরিশাল র‌্যাব-৮ এর সদস্যরা।

র‌্যাব জানান, ৭ ডিসেম্বর শনিবার ভোররাতে বানারীপাড়ায় সলিয়াবাক পুর গ্রামের কুয়েত প্রবাসী আব্দুর রবের বাড়িতে তিনজনকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এই লোমহর্ষক ঘটনার রহস্য উন্মোচনে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-৮ ছায়া তদন্ত শুরু করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ও র‌্যাব-৮ যৌথ অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে মো. জাকির হোসেন (৩৫) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আটক মো. জাকির নলছিটি উপজেলার সিদ্ধকাঠী ইউনিয়নের উত্তর রাজপাশা গ্রামের চুন্নু হাওলাদারের ছেলে। তাকে ঘটনাস্থল থেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।

জাকির কবিরাজি কাজে ওই বাড়িতে প্রায়ই আসতেন। যার ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) রাতেও তিনি আসেন। পরে আবার চলে যান। তাই জাকিরকে আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বানারীপাড়া থানায় আনা হয়। পরে র‌্যাব তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

স্থানীয়ভাবে কবিরাজ নামে পরিচিত জাকির জ্বীন হাজির ও ঝাড় ফুঁকের মাধ্যমে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা করে বলে প্রচার করে তিনি বাড়ির সবার বিশ্বস্ততা অর্জন করেন। এর সুযোগ নিয়ে তিনি ওই বাড়ির লোকজনদের বোঝাতে সক্ষম হন যে, ‘শুক্রবার রাতে বাড়িতে জ্বীন আসবে, তাই রাতে দরজা খোলা রাখতে হবে’।

জাকিরের এমন প্রতারণামূলক কথাকে বিশ্বাস করে রাতে ঘর খোলা রাখেন প্রবাসী আব্দুর রবের মা মরিয়ম বেগম (৭০)। এ সুযোগে জাকির তার সহযোগী জুয়েলকে সঙ্গে নিয়ে শুক্রবার রাতে ওই বাড়িতে কৌশলে প্রবেশ করেন। পরে পর্যায়ক্রমে কুয়েত প্রবাসী আব্দুর রবের মা মরিয়ম বেগম (৭০), তার মেজ বোন মমতাজ বেগমের স্বামী অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শফিকুল আলম (৬০) ও খালাত ভাই মো. ইউসুফকে (২২) হত্যা করেন। পরে হত্যাকারীরা ওই বাড়ি থেকে বেশকিছু মালামাল নিয়ে সটকে পরেন।

এ ঘটনায় র‌্যাব-৮ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও জাকিরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডের অপর আসামি মো. জুয়েল হাওলাদারকে (৩৪) বরিশাল মহানগরীর কোতয়ালী থানাধীন পশ্চিম মতাশুর মুহুরী কান্দা এলাকা থেকে আটক করে।

আটককৃত দুইজনই প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন।

এরপর জাকির হোসেন ও জুয়েল হাওলাদারের স্বীকারোক্তি মতে র‌্যাব-৮ ও পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে জাকির হোসেনের ভাড়া বাড়ি সাগরদীর মুন্সি বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডের পর ওই বাড়ি থেকে ছিনতাই করে আনা স্বর্ণালংকার, তিন মোবাইল ফোন ও এক চাকু উদ্ধার করে।

গ্রেপ্তারকৃত আসামি ও আলামতসমূহ বানারীপাড়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে যে, লোভের বশবর্তী হয়ে তারা এধরণের ঘৃণ‌্য কাজ করেছে।

এদিকে, এ ঘটনায় রোববার রাতে বানারীপাড়া থানায় অজ্ঞাত নামা আসামি করে এক দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় আটক দুইজনকে আসামি দেখিয়ে দুজনকে আটক দেখানো হয়েছে বলে জানান বানারীপাড়া থানার ওসি (তদন্ত) জাফর আহম্মদ।

উল্লেখ্য, শনিবার সকালে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর গ্রামের হাওলাদার বাড়ি এলাকার আব্দুর রবের বাড়ি থেকে তার মা মরিয়ম বেগম (৭০), তার মেজ বোন মমতাজ বেগমের স্বামী অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শফিকুল আলম (৬০) ও খালাত ভাই মো. ইউসুফ (২২) এর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শুক্রবার মধ্যরাতের পর যেকোনো সময় তাদের হত্যা করা হয়। সকালে এলাকাবাসী তাদের খবর দিলে তারা লাশ উদ্ধার করেন। এর মধ্যে মরিয়ম বেগমের লাশ বাড়ির ব‌ারান্দা থেকে, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শফিকুল আলমের লাশ ঘরের মধ্যে এবং মো. ইউসুফের লাশ বাড়ির পাশে পুকুরে হাত-পা বাধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।



বরিশাল/স্বপন/বুলাকী

     
 

আরো খবর জানতে ক্লিক করুন : বরিশাল, বরিশাল বিভাগ