RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৭ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১৩ ১৪২৭ ||  ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

অভাব ঘোচাতে ফ্যান কারখানায় কাজ নিয়েছিল ফরিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:৫০, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
অভাব ঘোচাতে ফ্যান কারখানায় কাজ নিয়েছিল ফরিদ

রোববার রাত। চারদিকে ঘুটঘুটে অন্ধকার। পোড়া গন্ধ।  গাজীপুরের কেশরিতা এলাকায় আগুনে ফ্যান কারখানার টিনসেড ভবন পুড়ে ছাই। 

এরপর থেকেই বিদ্যুৎ বন্ধ রয়েছে। বেশিরভাগ লোকের ভরসা মোবাইল ফোনের লাইট। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা একে একে লাশ ওই শেড থেকে বের করে আনছেন। এক লাশ দেখে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তাজ উদ্দীন। 

অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের মধ্যে ভাতিজা ফরিদকে দেখে নিজেকে সামলাতে পারেননি তিনি। 

ফরিদের বয়স আনুমানিক ১৫ বছর। রংপুর সিটি করপোরেশনের কাচুবকুলতলা এলাকার তাজুল ইসলামের ছেলে সে।

দুই বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে ফরিদ ছিল মেঝ। পরিবারের অভাব লাঘব করতে প্রায় চার বছর আগে অপ্রাপ্ত বয়সে ওই ফ্যান কারখানায় কাজ নিয়েছিল সে।

তাজ উদ্দীন জানান, তার বড়ভাই তাজুল ইসলামের নিজের জমি নেই। মায়ের জমি থেকে ২/৩ শতক জমি পাবেন তারা। অভাব-অনটনের সংসারে তাজুল ইসলাম তার স্ত্রী দুই মেয়ে- এক ছেলেকে নিয়ে প্রায় ১০ বছর আগে গ্রামের বাড়ি ছেড়ে ঢাকায় আসেন।

আশুলিয়ার এক পোশাক কারখানায় চাকরি নিয়ে স্থানীয় খেজুরবাগান এলাকায় বসবাস শুরু করেন তিনি। শুধু তাজুল ইসলামই নয়, পরিবারের স্বচ্ছলতার জন্য তার স্ত্রী ও বড় মেয়েও পোশাক কারখানায় চাকরি শুরু করেন।  আর ছোট ফরিদ পরিবারের অভাব লাঘব করতে লাক্সারি ফ্যান লি. কারখানার চাকরি নেয়। সে থাকত পাশের এক মেসে। 

রোববার সন্ধ‌্যার আগুন ফরিদের সেই স্বপ্ল চুরমার করে দিয়েছে। আগুনে পুড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত‌্যুবরণ করে সে।

তাজ উদ্দীন আরো জানান, ফরিদের লাশ পাওয়ার পর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে দাফন করা হবে।

উল্লে‌খ‌্য, রোববার সন্ধ্যায় গাজীপুর সদর উপজেলার বাড়িয়া ইউনিয়নের কেশরিতা এলাকায় ওই ফ্যান কারখানার তৃতীয় তলায় টিনসেডের তৈরি ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনে ওই শেডে কর্তব্যরত ১৯ শ্রমিকরে মধ্যে ১০ শ্রমিক ঘটনাস্থলেই নিহত এবং দুই শ্রমিক দগ্ধ হয়।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অ‌্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ডিরেক্টর জেনারেল (ডিজি) বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. সাজ্জাদ হোসাইন, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রীনা পারভীনসহ জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

ঘটনা তদন্তে গাজীপুর জেলা প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

গাজীপুর/হাসমত/বুলাকী

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়