RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১১ ১৪২৭ ||  ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সড়কের বেহাল দশায় ভোগান্তিতে লক্ষাধিক মানুষ

আল আমিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:৫৯, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
সড়কের বেহাল দশায় ভোগান্তিতে লক্ষাধিক মানুষ

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের দুলভারচর এলাকা থেকে রক্তি নদী ফেরিঘাট পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার রাস্তার বেহাল দশা। 

এ সড়ক নির্মাণের পর থেকে সংস্কার না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকার লক্ষাধিক মানুষ জেলা শহরে আসা-যাওয়ার জন্য বাইপাস যাতায়াত সড়ক হিসাবে ব্যবহার করে আসছেন।

এতে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন চলাচলকারীরা। এই দীর্ঘ সড়ক সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়ন ও তাহিরপুর উপজেলার আনোয়ারপুর ইউনিয়নের প্রধান সড়ক এটি। এই সড়ক দিয়ে ফতেপুর ইউনিয়নের সংগ্রামপুর, জিরাগ তাহিরপুর, সালমারা, হরিপুর, কচুখালী, কলাইয়া, ফতেপুর ও নিয়ামতপুর ও তাহিরপুর উপজেলার আনোয়ারপুরসহ বিভিন্ন এলাকার লক্ষাধিক মানুষ আসা-যাওয়া করে প্রতিদিন। চলাচল করে ট্রাক, মোটরসাইকেল, রিকশা, অটোরিকশা। সড়কের অধিকাংশ ভাঙ্গা থাকায় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্থানীয়দের।

অন্যদিকে এই সড়ক দিয়ে ইয়াকুব উল্লা উচ্চ বিদ্যালয় ও ইসলামগঞ্জ ডিগ্রি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া আসা করেন কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। ধুলোবালির জন্য নাক চেপে প্রতিদিন যেতে হচ্ছে স্কুল-কলেজে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সড়কের স্থানে স্থানে পিচ-ঢালাই উঠে গেছে। গাড়ি চলাচল করার সময় চারদিকে ধুলোবালি উড়ছে। দীর্ঘদিন ধরে সড়কের সংস্কার কাজ না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত।

খোকন মিয়া নামের এক মোটরসাইকেল চালক বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় সড়কটির অবস্থা দিন দিন খারাপ হয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে সড়ক দিয়ে চলাচল করতে খুবই কষ্ট হচ্ছে আর বৃষ্টির মৌসুমে এই সড়কের গর্তে মোটরসাইকেল উল্টে নানা দুর্ঘটনা ঘটে।

ইসলামগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী কামরুল হাসান বলেন, সড়কটি অনেক দিন আগেই চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। গাড়ি চলার সময় ধুলোবালির অত্যাচার সয়ে চলাচল করতে হচ্ছে।

স্থানীয় ফতেহপুর গ্রামের সাইফ উল্লাহ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ সড়কের বেহাল অবস্থা। কিন্তু সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কটি দ্রুত সংস্কার করার প্রয়োজন।

কচুখালী গ্রামের সহিদ মিয়া বলেন, ছয়-সাত বছর ধরে সড়কের বিভিন্ন স্থানে গর্ত থাকায় বয়স্ক মানুষ ও রোগীদের চলাচলে মারাত্মক কষ্ট হয়।

স্থানীয় ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রনজিত চৌধুরী রাজন বলেন, নির্মাণের পর থেকে এই সড়ক সংস্কার করা হয়নি। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন লক্ষাধিক মানুষ জেলা শহরে আসা-যাওয়া করেন। কিন্তু সড়ক সংস্কার না হওয়ায় এই অঞ্চলের মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। 

তিনি অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা মিটিংয়ে এই সড়ক নিয়ে একাধিকবার কথা বললেও এ সড়কের কাজ হচ্ছে না। জরুরি ভিত্তিতে সড়ক সংস্কারের দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ফতেহপুর-নিয়ামতপুর ও আনোয়ারপুর পর্যন্ত সাড়ে ৮ কিলোমিটার সড়কের একটি প্রকল্প তৈরি করে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন হয়ে আসলে সড়কের সংস্কার কাজ শুরু হবে।

 

সুনামগঞ্জ/আল আমিন/জেনিস

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়