ঢাকা, সোমবার, ৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

থানায় বিচার চাইতে এসে হাজতবাস!

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-২৯ ১০:১৭:৪৬ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২৯ ২:৩৫:৫১ পিএম

বিরোধীদের হামলায় গুরুত্বর আহত হয়ে থানায় অভিযোগ জানাতে এসে উল্টো সাত ঘণ্টা হাজতবাস করতে হয়েছে জাকির হোসেন (২৫) নামের এক সিএনজি চালককে।

মঙ্গলবারে এমন ঘটনা ঘটেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে।

জানা যায়, মঙ্গলবারে উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নের চামারী ফতেপুর গ্রামের আদম আলী তার আহত স্ত্রী বেগম ও ছেলে জাকিরকে নিয়ে এক প্রতিবেশী আত্মীয়ের বিরুদ্ধে মারধর করার অভিযোগ জানাতে মির্জাপুর থানায় আসেন।

তাদের অভিযোগ, গত রোববার সন্ধ্যার দিকে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে জাকিরের সঙ্গে তাদের প্রতিবেশি (সম্পর্কে চাচা) ফেরদৌস মিয়ার বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে ফেরদৌস তাকে লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে। এ ঘটনা দেখে তার (জাকিরের) মা বেগম এগিয়ে গেলে ফেরদৌস মিয়া তাকে লাঠি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন।

এতে জাকির ও তার মা গুরুতর আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে মির্জাপুরের জামুর্কী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কিন্তু মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে আহত থাকায় ব্যান্ডেজ নিয়ে তারা মির্জাপুর থানায় অভিযোগ করতে আসলে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজলুর রহমান অভিযোগ না নিয়ে উল্টা জাকিরকে আটক করে থানা হাজতে রাখেন। এ সময় তারা অনেক অনুরোধ করলেও তিনি তাকে ছাড়েননি।

পরে বিষয়টি মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সায়েদুর রহমান জানলে তার নির্দেশে সন্ধ‌্যা ৭টার দিকে ফজলুর রহমান জাকিরকে ছেড়ে দেন।

জাকির হোসেনের মা বেগম বলেন, ‘থানায় অভিযোগ করতে গেলে পুলিশ আমার আহত ছেলেকে আটক করে। আহত দেখেও পুলিশের ওই কর্মকর্তার মায়া হয়নি।’

এ ব্যাপারে এসআই ফজলুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিচারপ্রার্থীকে আটকে রাখার অভিযোগ আংশিক অস্বীকার করে জানান, মারামারির ঘটনায় জাকিরদের প্রতিপক্ষ থানায় এক অভিযোগ দিয়েছে। এলাকায় গিয়ে তাদের না পাওয়ার কারণে থানার কাছে এক দোকানের পাশে পেয়ে বিকেল ৪টার দিকে তাকে আটক করা হয়। পরে ওসি সাহেবের নির্দেশে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।’

এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সায়েদুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আটকের বিষয়টি জানতে পেরে তাকে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


টাঙ্গাইল/সিফাত/বুলাকী

     
 

আরো খবর জানতে ক্লিক করুন : টাঙ্গাইল, ঢাকা বিভাগ