ঢাকা     বুধবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ৮ ১৪২৭ ||  ০৫ সফর ১৪৪২

এপার বাংলায় ওরা ৭ জন!

শাহীন রহমান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৩১, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
এপার বাংলায় ওরা ৭ জন!

বাংলা ভাষার ইতিহাস জানতে কাঁটাতারের বেড়া ডিঙিয়ে বাইসাইকেল নিয়ে ওপার বাংলা থেকে ভ্রমণে এসেছেন একদল বাংলা ভাষাপ্রেমী মানুষ।

তাদের উদ্দেশ্য এপার বাংলার ভাষা সংগ্রামের ইতিহাস জেনে ওপার বাংলায় পৌঁছে দেয়া। এর মাধ্যমে দুই দেশের মৈত্রীর বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করবে বলে মনে করেন তারা।

৭ সদস্যের দলটির স্লোগান ‘বাংলা কখনো হয় না ভাগ, বাংলা ভাষায় আমরা এক’। ‘ভাষা সূত্র’ নামের এ ভ্রমণকারী দলটি প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসে বাইসাইকেলে বাংলাদেশ ভ্রমণে আসেন। মুজিববর্ষকে সামনে রেখে এবারের ভ্রমণটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতি উৎসর্গ করেছেন তারা।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার চন্দননগর এলাকা থেকে ৭ সদস্যের এই দলটি বাইসাইকেল নিয়ে যাত্রা শুরু করে। এদের মধ্যে ৬ জন পুরুষ এবং একজন নারী সদস্য রয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের রানাঘাট, গেদে ও চুয়াডাঙ্গার দর্শনা চেকপোস্ট হয়ে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে প্রবেশ করে দলটি। সেখানে অবস্থিত শহীদ মিনারে তারা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে ওই দিন রাতে দলটি মেহেরপুরের মুজিবনগরে পৌঁছায়। ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে সেখানে তারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ভাস্কর্যে বিনম্র শ্রদ্ধা জানান।

একই দিন বিকেলে কুষ্টিয়ার রবীন্দ্র কুঠিবাড়ি হয়ে পদ্মানদী পাড়ি দিয়ে বিকেল ৪টায় প্রবেশ করে পাবনা শহরে। এ সময় জেলা প্রশাসকের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোকলেসুর রহমান তাদের বরণ করেন। পরে তাদের নিরাপত্তা এবং রাতে থাকার ব্যবস্থা করেন।

পাবনা জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে প্রতিনিধি দলটি কিংবদন্তি মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের পৈত্রিক বাড়ি ও ঐতিহাসিক রাজবাড়ি তাড়াশ ভবন পরিদর্শন করে। রাতে তারা পাবনাতে অবস্থান করে মঙ্গলবার জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো পরিদর্শন ও কেন্দ্রীয় শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণের পরে বিকেলে যাত্রা করবেন টাঙ্গাইলের পথে।

কলকাতা থেকে আসা সাইক্লিস্ট লোপা মুদ্রা রায় জানান, ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূত্রপাত হয়। আর এই দেশ স্বাধীনের নেতৃত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু। একজন বাঙালির নেতৃত্বেই কোটি কোটি মানুষ উদ্বুদ্ধ হয়েছিল। তাই এবারের ভ্রমণটা সেই মহান মানুষটির প্রতি উৎসর্গ করা হয়েছে।

দলনেতা স্বরজিত রায় বলেন, ‘বাংলাদেশের আতিথেয়তায় মুগ্ধ আমরা। কাঁটাতারের বেড়া দু’দেশকে বিভক্ত করলেও ভাষাকে বিভক্ত করতে পারেনি। তাই তরুণ প্রজন্মের কাছে বাংলা ভাষার মাহাত্য পৌঁছে দেবার লক্ষ্যে কাজ করছি আমরা।’

বাংলা ভাষা রক্ষার্থে যারা প্রাণ দিয়েছেন তাদের ইতিহাস জেনে ওপার বাংলার তরুণদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।


পাবনা/হাকিম মাহি

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়