ঢাকা, শনিবার, ২৭ চৈত্র ১৪২৬, ১১ এপ্রিল ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

হত্যা মামলার বিচার চাওয়ায় মায়ের ওপর হামলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৯ ৯:০৪:১৫ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৯ ১১:২৫:২৬ এএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাফুজুর রহমান (২৪) নামে এক যুবককে হত্যার ঘটনায় নিহতের মায়ের ওপর হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এঘটনায় মঙ্গলবার নিহতের পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে।

মানববন্ধনে কাইয়ুম মিয়া নামে মামলার এজহারভুক্ত আসামি হামলা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী, মামলা বাদীর পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে মাহফুজুর রহমান হত্যা মামলার পাঁচ নম্বর আসামি কাইয়ুম মিয়া জেলা শহরের দক্ষিণ পৈরতলার রেলওয়ে কলোনির দিকে যান। এসময় মাহফুজুর রহমানের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কাইয়ুমের কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

এক পর্যায়ে কাইয়ুম নিহত মাহফুজের পরিবারের সদস্যের ওপর হামলা চালায়।  পরে স্থানীয় লোকজন কাইয়ুমকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।  আর হামলায় আহত মাহফুজুর রহমানের মা বাছিয়া পারভীনকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

এদিকে, বিকেল ৩টার দিকে নিহত মাহফুজের পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী বিক্ষুদ্ধ হয়ে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়করে পৈরতলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থান করে যান চলাচল বন্ধ করে দেন।

এসময় মহাসড়কের উভয়পাশে প্রায় আধা ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে আনে।

এরপর এলাকাবাসী ও নিহত মাহফুজের পরিবারের লোকজন সেখানে থেকে সরে এক বিক্ষোভ মিছিল করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে গিয়ে মানববন্ধন করেন। মানববন্ধনে বক্তারা হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।

নিহত মাহফুজের মা বাছিয়া পারভীন বলেন, ‘বছর তিনেক আগে স্বামী মারা গেছে। স্বামী হারানোর শোক কাটিয়ে না ওঠতেই আমার একমাত্র ছেলেকেও আমার সামনে কুপিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে বাড়িতে কেউ না থাকায় মামলার আসামি কাইয়ুম এসে আমাকে হুমকি ধামকি দিতে শুরু করে।  সে আমাকে মামলা তুলে নেবার হুমকি দেয়।  তারপর আমাকে মারধর শুরু করে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন জানান, মামলা তুলে নিতে হুমকির অভিযোগটি নিহতের পরিবার থেকে শুনেছি।এ ব‌্যাপারে ব‌্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ২ জানুয়ারি চাঁদার জের ধরে জেলা শহরের উত্তর মৌড়াইলের দুবৃর্ত্তরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে জেলা শহরের সরকার এলাকায় মাহফুজকে কুপিয়ে জখম করে। পরে মাহফুজকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়।  গত ৮ জানুয়ারি ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মাহফুজ মারা যান।  ১০ জানুয়ারি নিহতের মা বাদী হয়ে ১০ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় আসামিরা উচ্চ আদালত থেকে জামিন পান। 

 

রুবেল/বুলাকী

     
 

আরো খবর জানতে ক্লিক করুন : ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম বিভাগ