ঢাকা     সোমবার   ১০ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৬ ১৪২৭ ||  ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

করোনাকালেও আয় কমেনি মোংলা বন্দরের

আলী আকবর টুটুল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:৪০, ১৩ জুলাই ২০২০  
করোনাকালেও আয় কমেনি মোংলা বন্দরের

করোনাকালের প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও নিজেদের আয় কমেনি মোংলা বন্দরের। করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর থেকে নানামুখী পদক্ষেপের কারণে বন্দরের সকল কার্যক্রম সচল রয়েছে। ফলে ৯১ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার টাকার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১১৫ কোটি ১৫ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা মুনাফা অর্জন করেছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ।

বন্দর কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে ৯১২টি দেশি-বিদেশি বাণিজ্যিক জাহাজ এই বন্দরে আসে। হ্যান্ডিলিং হয় ১ কোটি ১৩ লাখ মেট্রিক টন বাল্ক কার্গো এবং ৫৭ হাজার ৭৩২ টিইউজ কন্টেইনার। আর ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে ৯০৩টি বাণিজ্যিক জাহাজ বন্দরে ভেড়ে এবং ১ কোটি ১০ লাখ মেট্রিক টন পণ্য হ্যান্ডলিং হয়। একই সঙ্গে ৫৯ হাজার ৪৭৬ টিইউজ কন্টেইনার হ্যান্ডলিং হয়েছে। এতে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে বন্দর কর্তৃপক্ষ ১৩৩ কোটি টাকা মুনফা অর্জন করেছে।

২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে আমদানি-রপ্তানি খাতের পণ্য হ্যান্ডলিং করে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের আয় হয়েছে ৩২০ কোটি ৬০ লাখ টাকা। কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি, সংস্কার ও উন্নয়ন কাজে ২০৫ কোটি টাকা ব্যয় হওয়ার পরও ৯১ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার টাকার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১১৫ কোটি ১৫ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা মুনাফা (লাভ) অর্জন করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান বলেন, করোনা পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর থেকে আমরা কখনও বন্দরের সেবা বন্ধ রাখিনি। সব সময় বন্দর সচল ছিল। আসলে করোনার প্রভাবে সড়ক পথে বেশকিছু ঝামেলা ছিল। বন্দরে পণ‌্য আনা নেওয়া ও সরবরাহের ক্ষেত্রে সড়ক ও নৌ পথে যাতে কোন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না হয়। সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় করেছি। যার ফলে বন্দরের পণ‌্য আনা নেওয়ার ক্ষেত্রে কোন ব্যাঘাত ঘটেনি। এছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে বন্দরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিরলস পরিশ্রম করেছে। যার ফল আমরা পেয়েছি।আমাদের কার্যক্রম আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে বন্দরের আয়ের লক্ষ মাত্রা ছিল ৯১ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার। আমরা লক্ষ্যমাত্রার ছাড়িয়ে আমার মুনাফা হয়েছে ১১৫ কোটি ১৫ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা।সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বন্দরের এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উৎপাদিত পাটজাত পণ্য রপ্তানির ওপর ভর করে ১৯৫০ সালের ১ ডিসেম্বর মোংলা সমুদ্র বন্দরের যাত্রা শুরু হয়। কালের পরিক্রমায় এবং চাহিদার প্রয়োজনে এক সময় আমদানি ও রপ্তানি পণ্যের প্রসার ঘটে এ বন্দরে।


বাগেরহাট/টুটুল/সাজেদ

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়