RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১১ ১৪২৭ ||  ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

বান্দরবানে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জমি দখলের অভিযোগ

বান্দরবান প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:২৯, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
বান্দরবানে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জমি দখলের অভিযোগ

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় ভূমি দখলের অভিযোগে মানববন্ধন করেছে ক্ষতিগ্রস্ত ১১টি পাড়ার ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর লোকেরা।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শফিউল্লাহ কর্তৃক পর্যটনের নামে চাক ও মারমা সম্প্রদায়ের জুম চাষের ভূমি জবর দখলের অভিযোগে এই মানববন্ধন করা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বান্দরবান প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে অনতিবিলম্বে পর্যটনের নামে সব কার্যক্রম বন্ধ করে সরকারি অর্থ অপচয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান তারা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ির ২৭০, ২৭২ ও ২৬৯ নং সোনাইছড়ি মৌজায় ১১টি পাড়ার চাক এবং মারমারা জুমচাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। কিন্তু হঠাৎ করে শফিউল্লাহ পর্যটনের নামে জুম চাষের শতাধিক একর জমি দখল করে জনশূন্য এলাকায় জেলা পরিষদের অর্থায়নে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা অপচয় করছেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন থোয়াইগ্যা চাক, ওয়াই মং চাক, অলকা তঞ্চগ্যা, মমে মারমা প্রমুখ। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে স্মারকলিপি দেন চাক ও মারমা সম্প্রদায়ের নেতারা।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি তসলিম ইকবাল চৌধুরী বলেন, পর্যটনকেন্দ্র হলে এলাকায় উন্নয়ন হবে, কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। তবে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর ভূমি জবর দখল করে পর্যটন করার পক্ষে তারা নন।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ বলেন, এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে সরকারি খাস জায়গায় পর্যটনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পর্যটন হলে ওই এলাকায় মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে, এখানে ব্যক্তিগত স্বার্থ নেই।


বান্দরবান/এস বাসু দাশ/বকুল

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়