ঢাকা     শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১০ ১৪২৭ ||  ০৭ সফর ১৪৪২

খুলনায় অপহৃত শিশু কুষ্টিয়া থেকে উদ্ধার, দম্পতি গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:৫৮, ১৫ জুলাই ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
খুলনায় অপহৃত শিশু কুষ্টিয়া থেকে উদ্ধার, দম্পতি গ্রেপ্তার

উদ্ধারকৃত শিশুটিকে উপহার সামগ্রিসহ তার বাবা-মায়ের হাতে তুলে দেয় পুলিশ। পাশে গ্রেপ্তারকৃত অপহরণকারী দম্পতি

মুক্তিপণের দাবিতে খুলনা মহানগরী থেকে অপহৃত চার বছরের একটি কন্যা শিশুকে কুষ্টিয়া থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার মধ্যরাতে জেলা সদরের মডেল থানার ভাদালিয়া গ্রাম থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। এ সময় অপহরণকারী দম্পতিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বুধবার দুপুরে শ্বাসরুদ্ধকর এ সফল অভিযানের বিষয়টি খুলনা সদর থানায় সাংবাদিকদের ব্রিফিং করা হয়। প্রেস ব্রিফিং করেন কেএমপি’র ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (সাউথ) এমএম শাকিলুজ্জামান। একই সময় পুলিশের পক্ষ থেকে শিশুটিকে উপহার সামগ্রীসহ তার বাবা-মায়ের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

প্রেস ব্রিফিংয়ে এডিসি (সাউথ) খোন্দকার লাবনী, সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. হাফিজুর রহমান ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা মো. আশরাফুল আলম উপস্থিত ছিলেন।

গ্রেপ্তারকৃত অপহরণকারী দম্পতি হলেন আরজান বিবি ওরফে রুবিনা আক্তার (৪৫) এবং তার স্বামী ফারুক বিশ্বাস (৪৭) । এরা কুষ্টিয়া জেলা সদরের কাঞ্চনপুর গ্রামের বাসিন্দা।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে নগরীর মিয়াপাড়ার বাসিন্দা জনি মোল্লা ও নাসরিন বেগমের শিশু কন্যা রাইসা আক্তার রোজা ঘরের বাইরে খেলাধূলা করছিল। এ সময় তাকে জনৈক নারী সেখান থেকে তুলে নিয়ে যায়। তাৎক্ষনিক তারা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও শিশুটির কোন সন্ধান পাননি। এর কিছুক্ষণ পরই একটি মোবাইল ফোন থেকে অপহরণকারীরা তাদের কাছে ফোন করে মুক্তিপন হিসেবে দুই লাখ টাকা দাবি করে। অন্যথায় শিশুটিকে হত্যার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় তারা খুলনা সদর থানায় অভিযোগ দাখিল করেন। ওই ফোন নম্বরের সূত্র ধরে পুলিশ সদর দপ্তরের সংশ্লিষ্ট সেলের সহায়তায় খুলনা থানার একটি চৌকস দল রাতেই কুষ্টিয়ায় অভিযান চালায়।

রাত সাড়ে ৩টার দিকে শিশুটিকে উদ্ধার এবং অপহরণকারী দম্পতিকে গ্রেপ্তার করে খুলনায় আনা হয়। অভিযানের নেতৃত্ব দেন খুলনা থানার উপ-পরিদর্শক আবু সাঈদ।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা মো. আশরাফুল আলম বলেন, এ ঘটনায় উদ্ধারকৃত শিশুর পিতা জনি মোল্লা বাদি হয়ে থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। প্রাথমিক বিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্তরা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। এরা অপহরণকারী চক্রের সদস্য বলে তথ্য পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদে আরও তথ্য এবং নেপথ্যে অন্য কেউ আছে কিনা তা বের করা হবে।

 

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান/সাজেদ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়