ঢাকা     বুধবার   ১২ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৮ ১৪২৭ ||  ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

লেবুর বাম্পার ফলনেও হাসি নেই চাষিদের মুখে

মামুন চৌধুরী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:১২, ২ আগস্ট ২০২০  
লেবুর বাম্পার ফলনেও হাসি নেই চাষিদের মুখে

হবিগঞ্জে লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে দাম কম থাকায় হতাশ চাষিরা।  ১ হাজার লেবু (বড় সাইজের) বিক্রি হচ্ছে ১৫০০ থেকে ১৬০০ টাকায়। আর ছোট সাইজের হাজার লেবু বিক্রি হয়েছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকায়। 

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গত বছরের চেয়ে এবার হবিগঞ্জের পাহাড়ে লেবুর ফলন ভালো হয়েছে। জেলার চুনারুঘাট, নবীগঞ্জ, বাহুবল ও মাধবপুর উপজেলার বিশাল এলাকাজুড়ে একের পর এক দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ি টিলা। টিলার ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত লেবু গাছে ছাওয়া। গাছে গাছে ঝুলছে লেবু।

লেবু চাষিরা জানান, সারা বছরই লেবু হয়। তবে বর্ষায় লেবুর ফলন তুলনামূলক বেশি। শুষ্ক মৌসুমে সেচ দিলেও লেবুর ভালো ফলন পাওয়া যায়। তাই পাহাড়ি এলাকার লোকজন পতিত জমি ফেলে না রেখে লেবু চাষ করছেন। কলম চারায় রোপনের বছরই ধরছে লেবু। আবার লেবু গাছের ফাঁকে ফাঁকে কলা, পেঁপে, মরিচ, কাঁঠাল গাছও লাগিয়েছেন অনেকে।

হবিগঞ্জ কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, জেলায় প্রায় ৬ হাজার একর জমিতে লেবু চাষ হচ্ছে। প্রতি একরে ৮ থেকে ১০ মেট্রিক টন লেবু উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। লেবু চাষকে কেন্দ্র করে জেলার মুছাই ও মিরপুরে প্রায় ১০টি আড়ৎ গড়ে উঠেছে। আরও নতুন করে কিছু আড়ৎ গড়ে উঠছে। চাষিরা বাগান থেকে লেবু সংগ্রহ করে এসব আড়তে নিয়ে যান। সেখান থেকে পাইকারি ব্যবসাযীরা লেবু কিনে দেশের নানা প্রান্তে পাঠান।

বাগান মালিক মর্তুজ আলী বলেন, ‘লেবু চাষে কোনো ঝুঁকি নেই। পাহাড়ি মাটিতে রোপনের বছর যেতেই ফলন পাওয়া যাচ্ছে। গোড়া পরিষ্কার করে অল্প কিছু সার দিলে ভালো ফলন পাওয়া যায়।’ 

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে লেবুর দাম কম। তবে কোরবানির ঈদকে সামনে লেবুর দাম বাড়ার একটা সম্ভাবনা ছিল। এ আশায় গাছ থেকে কম লেবু সংগ্রহ করা হয়। তবে লাভ হয়নি। যদিও করোনা পরিস্থিতির শুরুতে লেবুর দাম বেশি ছিল। কিন্তু প্রায় দুই মাস হলো দাম কমে গেছে।’

মখলিছ মিয়া নামে এক লেবু চাষি বলেন, ‘লেবুর দাম অনেক কমে গেছে। আশা ছিল, ঈদে দাম বাড়বে। কিন্তু বাড়েনি। গাছে প্রচুর লেবু আছে। তবে গাছ থেকে লেবু সংগ্রহ করে আড়তে বিক্রি করে শ্রমিকের খরচ যোগান দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।’

আড়ৎ মালিক সানু মিয়া বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে পরিবহন সমস্যা রয়েছে। ঈদে লেবুর ভালো দাম ওঠার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু এবার তাও হলো না।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) মো. জালাল উদ্দিন বলেন, ‘হবিগঞ্জের পাহাড়ি এলাকায় সম্ভাবনাময় ফসল লেবু। আমরা লেবু চাষিদের নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছি। তারা লেবুর ভালো ফলনও পাচ্ছেন। এবার পাহাড়ে লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে এখন দামটা কিছু কম। সামনে দাম বাড়তে পারে।’
 

হবিগঞ্জ/ইভা    

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়