RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০১ অক্টোবর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৬ ১৪২৭ ||  ১৩ সফর ১৪৪২

ঈদের পঞ্চম দিনেও কুয়াকাটা সৈকতে পর্যটকদের ভিড় 

ফরাজী মো.ইমরান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:২০, ৫ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
ঈদের পঞ্চম দিনেও কুয়াকাটা সৈকতে পর্যটকদের ভিড় 

ঈদের পঞ্চম দিনেও পর্যটকদের উৎসবমুখর উপস্থিতি ছিলো কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে। সমুদ্রপ্রিয় মানুষের উচ্ছ্বাসের পুরোনো চিত্র ছিল কুয়াকাটায়। তবে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা এসব পর্যটকরা স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে ছিলেন উদাসীন। আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সৈকতে চলাফেরার জন্য মাইকিং করতে দেখা গেছে ট্যুরিস্ট পুলিশকে।

সৈকত ঘুরে দেখা গেছে, সোমবার বিকাল থেকেই শুরু হয় থেমে থেমে হালকা মাঝারি বৃষ্টির মধ‌্যে মানুষের সরব উপস্থিতি। বুধবার পর্যন্ত তিন দিনেও দেখা মেলেনি সূর্যের। আর এ বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেই দীর্ঘ ১৮ কিলোমিটার সৈকতে জুড়ে ছিলো পর্যটকদের ভিড়। উত্তাল সমুদ্রে ঢেউয়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হৈ হুল্লোর, গোসল, দৌড়-ঝাপ ও উম্মাদনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন পর্যটকরা। ওয়াটার বাইক নিয়ে সমুদ্রের গভীরে অ‌্যাডভাঞ্চারপ্রিয়দের দাপিয়ে বেড়ানো ছিলো চোখে পড়ার মতো। সৈকতে নতুন যুক্ত হওয়া ঘোড়ার গাড়িতে চেপে শিশু ও বয়স্করা এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে সমুদ্র ও প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখেছেন। কেউ কেউ আবার চার চাকার বিচ বাইকার নিয়ে জলকেলিতে মিলিত হয়েছেন। সুন্দরবনের পূর্বাংশ টেংরাগিরি বনাঞ্চল, লেম্বুরবন, গঙ্গামতির লেক, জাতীয় উদ্যান, লাল কাঁকড়ার চর, বৌদ্ধ বিহার ও রাখাইনপল্লীতে অসংখ্য পর্যটকদের ভিড় দেখা গেছে। যুবক-যুবতীরা ৩০ থেকে ৪০টি মোটরসাইকেলের বহর নিয়ে সৈকত এলাকায় ঘুরতে দেখা গেছে। সব মিলিয়ে করোনার প্রার্দুভাবের পর দীর্ঘদিনের সুনশান পর্যটন কেন্দ্রগুলো কুয়াকাটা পুনরায় ফিরে পেয়েছে পূর্ণতা। তবে আগত এসব পর্যটকদের স্বাস্থ‌্যবিধি মানতে পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার মাইকিংসহ সচেতনামূলক প্রচার চালালেও তা মানতে দেখা যায়নি।

টাঙ্গাইল থেকে আসা পর্যটক রহমান মিয়া জানান, গত ঈদে উত্তাল সমুদ্রের ঢেউ ও গর্জন তাদেরকে বিমোহীত করেছে। তাই এবার ঈদের ছুটিকে উপভোগ্য করতে তারা কয়েক বন্ধু মিলে মোটরসাইকেল নিয়ে কুয়াকাটায় এসেছেন।

আরেক পর্যটক শিবলী সাদিক জানান, তার কয়েক বন্ধু ঢাকা থেকে মটোরসাইকেল যোগে কুয়াকাটায় এসেছেন এবং উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে সমুদ্রে গোসলের মাধ্যমে তারা ভ্রমণের পূর্নতা পেয়েছেন।

কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স অ‌্যাসোসিয়েশন’র সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, পর্যটকদের কুয়াকাটায় টানতে ৩০-৪০ ভাগ ছাড়ে রুম বুকিং দেওয়া হয়েছে। এমন ইতিবাচক সিদ্ধান্তে প্রত্যেক আবাসিক হোটেলে আশানুরূপ রুম বুকিং রয়েছে। এ ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে করোনাকালীন লোকসান পুষিয়ে অচিরেই লাভের মুখ দেখবেন ব্যবসায়ীরা।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জহিরুল ইসলাম বলেন, ঈদ পরবর্তী কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে অগণিত পর্যটকদের নিরাপত্তায় দর্শনীয় স্থানগুলোতে নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। এছাড়া পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে বারবার ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে সচেতন করা হয়েছে। 

কলাপাড়া/সাজেদ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়