ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৪ ১৪২৭ ||  ১১ সফর ১৪৪২

১ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার, সাড়ে ৪ লাখ মানুষের দুর্ভোগের অবসান 

বগুড়া সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৩, ১১ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
১ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার, সাড়ে ৪ লাখ মানুষের দুর্ভোগের অবসান 

বগুড়ার শিবগঞ্জে মাত্র এক কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের মাধ্যমে অবসান করা হয়েছে চার লাখ এলাকাবাসীর ভোগান্তি। পৌরসভার ভেতরে সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতাধীন থাকায় এটির সংস্কার নিয়ে এতোদিন এটির দায়িত্ব কেউ নিচ্ছিল না। পৌর মেয়র নিজ উদ‌্যোগে ও নিজের টাকায় এটির সংস্কার করায় সাময়িকভাবে বাসিন্দাদের ভোগান্তি শেষ হলো। তবে স্থায়ীভাবে সড়ক পুনর্নিমাণ করে স্থায়ীভাবে জনদুর্ভোগ লাঘব করা বলে জানিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

বুধবার সড়কটির সংস্কার করায় সাড়ে চার লাখ মানুষের ভোগান্তি অবসান করা হয়েছে।

শিবগঞ্জ পৌরসভার মধ্যে সড়ক ও জনপথের এই রাস্তাটি হওয়ায় পৌরসভার পক্ষ থেকে কোনো সংস্কার করা এর আগে সম্ভব হয়নি।

উপজেলার পৌর এলাকার জনতা ব্যাংক থেকে নাগরবন্দর পর্যন্ত সড়ক ও জনপথ বিভাগের এক কিলোমিটার সড়ক দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় সাড়ে চার লাখ মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছিল। সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় মহাস্থান টু আমতলী পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার সড়কটি সড়ক ও জনপথের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ইতিমধ্যে সড়কটির প্রায় ৮ কিলোমিটার কয়েকটি প্যাকেজে সংস্কার করা হয়েছে।

জনতা ব্যাংক হতে নাগরবন্দর পর্যন্ত এই সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হওয়ায় জনসাধারণের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে ৮ জুন সোমবার থেকে নিজ উদ্যোগে এবং নিজ খরচে সড়কটির খানা খন্দকে ভরা অংশগুলি সংস্কার করেছেন শিবগঞ্জ পৌর মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক।

এ ব্যাপারে মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক বলেন, ‘সড়কটি সড়ক ও জনপদ বিভাগের। জনগণের দুর্দশার কথা ভেবে কিছু অংশের কাজ নিজ অর্থায়নে সড়কটি চলাচলের যোগ্য করার চেষ্টা করেছি। এতে করে এলাকাবাসী ভোগান্তি থাকবে না।

এ বিষয়ে সওজ’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুজ্জামান বলেন, ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের বাইপাস সড়ক হিসেবে মহাস্থান টু আমতলী পর্যন্ত সড়কটি সড়ক ও জন পথের আওতায় নেওয়া হয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ প্রায় ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে সড়কটি সংস্কার কাজ সমাপ্ত করেছে। ইতিমধ্যে কয়েকটি প্যাকেজে সড়কটি সম্পূর্ণ সংস্কারের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। এ ১ কিলোমিটার অধিক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সড়কটি পাকাকরণের মাধ্যমে পুনর্নির্মাণ করা হবে। বর্তমানে বর্ষা মৌসুমের জন্য কাজ বন্ধ আছে। কিছু দিনের মধ্যেই কাজ শুরু করা হবে। তাহলেই আর জনসাধারণের ভোগান্তি থাকবে না। 

আলমগীর/সাজেদ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়