RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৯ নভেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৭ ||  ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

টাঙ্গাইলে দলবেঁধে ধর্ষণ: সুবিচার নিয়ে শঙ্কা কাদের সিদ্দিকর

টাঙ্গাইল সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:০৮, ২২ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২০:৩২, ২২ অক্টোবর ২০২০
টাঙ্গাইলে দলবেঁধে ধর্ষণ: সুবিচার নিয়ে শঙ্কা কাদের সিদ্দিকর

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ করে দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়েরের তিনদিন অতিবাহিত হলে ধর্ষকদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশ বলছে, আসামীরা পলাতক থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা যাচ্ছে না। এদিকে ওই নির্যাতিতা কলেজ ছাত্রীকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম সুবিচার না পাওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) দুপুরে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর আব্দুল কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম চিকিৎসাধীন ওই ছাত্রীর খোঁজখবর নিতে হাসপাতালে দেখতে যান। এছাড়া তিনি গতকাল বুধবার গোপালপুর ওই কলেজ ছাত্রীর বাড়িতেও যান।
এদিকে ওই কলেজ ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার জন্য একটি প্রভাবশালী মহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ‌্যম ফেসবুকসহ সোস্যাল মিডিয়ায় অশালীন মন্তব‌্য, হুমকিসহ বিভিন্ন লেখা দিয়ে ওই ছাত্রীর বিরুদ্ধে প্রচারণা ও সামাজিকভাবে হেয় করার চেষ্টা করছে।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিভাগের চিকিৎসক জাকিয়া শাফি ছাত্রীকে শারীরিক নির্যাতনের প্রমাণের কথা বললেও সোয়াপ রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তিনি কোন মন্তব‌্য রাজি হননি। 

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের তত্বাধায়ক ডা. সদর উদ্দীন বলেন, কলেজ ছাত্রীকে নির্যাতন ও ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। 
বাংলাদেশ মানবাধিবার বাস্তবায়ন সংস্থার জেলা শাখার সম্পাদক অ‌্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ বলেন, ‘ধর্ষণের মেডিক‌্যাল রিপোর্ট পেতেই হবে এরকম কোন বাধ‌্যবাধকতা নেই। সামাজিক ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা এবং ভিকটিমের জবানবন্দির ভিত্তিতেও বিজ্ঞ আদালত ইতোপূর্বেও আসামিদের শাস্তি দিয়েছেন। হাইকোর্টেরও এমন নির্দেশনা আছে। 

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, ‘গণধর্ষনের বিষয়টি খুবই গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। আসামিরা পলাতক রয়েছে। খুব দ্রুত তাদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।’

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘মেয়েটির স্বাস্থ্যগত এবং মামলার অগ্রগতি বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে কথা হয়েছে। এসময় ন্যায় বিচারের স্বার্থে প্রভাবমুক্ত তদন্তের আহ্বান জানিয়েছি।’

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘আমাদের দেশে অশান্তির কারণ হচ্ছে, সব কিছু প্রভাবিত হয়। এ ঘটনার বিচার প্রভাবমুক্ত করতে হবে। তদন্ত হয়ে সঠিক বিচার হলে এখান থেকে আমরা অনেক কিছু পাবো।  বাংলাদেশে ছোট বড় সকলের ক্ষেত্রে আইনের শাসন একইভাবে হবে। এটা মুখে হলেও এখন হচ্ছে না। এ ঘটনার বিচার নিয়ে আমি শঙ্কিত।’
তিনি আরো বলেন, ‘একজন মেয়ে ডাক্তার এ ঘটনায় তিনি প্রাথমিকভাবে কী পেয়েছেন, তা প্রকাশ করছেন না। আমার মতো একজন প্রবীণ মানুষের সামনেও তিনি বললেন না। আমার মনে হয়, এখানে একটা পক্ষপাতিত্ব আছে। এখান থেকে আমাদের উঠতে হবে। আশা করি, পুলিশ অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সঠিক তদন্ত করে এ ঘটনাটি বের করার চেষ্টা করবে।’

কাওছার/সাজেদ 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়