RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১৪ ১৪২৭ ||  ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মায়ের মৃত্যুর শোকে হৃদরোগে ২ মেয়ের মৃত্যু

পঞ্চগড় সংবাদদাতা   || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৩১, ১১ নভেম্বর ২০২০  
মায়ের মৃত্যুর শোকে হৃদরোগে ২ মেয়ের মৃত্যু

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার খলিফাপুর গ্রামে বার্ধক্যজনিত কারণে মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) সকালে পঞ্চমী বেওয়ার (৯০) মৃত্যু হয়। মৃত্যুর খবর পেয়ে ছুটে আসেন স্বজনেরা। স্বামীর বাড়ি থেকে মাকে শেষবারের মতো দেখতে আসেন ছয় মেয়েও। পরে সেখানে মায়ের মৃত্যুর শোকে অচেতন হয়ে পড়েন বড় মেয়ে স্বরজনী বালা ও ছোট মেয়ে চৈতী রাণী। সন্ধ্যায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাদের মৃত্যু হয়। 

পঞ্চমী বেওয়ার ছয় মেয়ে ও দুই ছেলে। মারা যাওয়া বড় মেয়ে স্বরজনী বালা একই উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে সুশীল চন্দ্র রায়ের স্ত্রী ও ছোট মেয়ে চৈতী রাণী ঠাকুরগাঁওয়ের সদর উপজেলার ফারাবাড়ী গ্রামের পলাশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী। 

পঞ্চমী বেওয়ার পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে চন্দনবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জাকারিয়া হাবিব বলেন, মঙ্গলবার সকালে পঞ্চমী বেওয়া মারা যাওয়ার পর তার ছয় মেয়েই স্বামীর বাড়ি থেকে মায়ের লাশ দেখতে আসেন। মেয়েরা দিনভর মায়ের জন্য আহাজারি করেন। বিকেলে পঞ্চমীর লাশ বাড়ির পাশের শ্মশানে সৎকার শেষ করে স্বামীর বাড়ি ফেরার প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বুকে ব্যথা অনুভব করে অচেতন হয়ে পড়েন ছোট মেয়ে চৈতী রাণী। তখন তাকে মাইক্রোবাসে করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিলেন স্বজনেরা। ওই মাইক্রোবাসে স্বরজনী বালাও যাচ্ছিলেন ছোট বোনকে চিকিৎসক দেখাতে। পথে স্বরজনী বালাও অচেতন হয়ে পড়েন। এরপর ঠাকুরগাঁও হাসপাতালে নেওয়ার পথে সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাইক্রোবাসে দুই বোন মারা যান। এ ঘটনায় এলাকায় শোক নেমে এসেছে।

মারা যাওয়া পঞ্চমী বেওয়ার নাতি কামিনী কুমার রায় বলেন, ‘পরপর তিনজনের মৃত্যুতে আমরা হতবাক। স্বজনদের কান্না থামছে না।’

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রাকিবুল আলম বলেন, দুই বোনকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। স্বজনরা জনিয়েছেন তারা হার্টের অসুখে ভুগছিলেন। মায়ের মৃত্যুর শোক সইতে না পেরে হার্টের সমস্যা থেকে তারা মারা গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নাঈম/বকুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়