RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শুক্রবার   ২২ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ৮ ১৪২৭ ||  ০৬ জমাদিউস সানি ১৪৪২

১ ডিসেম্বর: কালীগঞ্জের গণহত্যা দিবস 

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৫, ১ ডিসেম্বর ২০২০  
১ ডিসেম্বর: কালীগঞ্জের গণহত্যা দিবস 

স্মৃতি স্তম্ভ “শহীদের স্মরণে ১৯৭১”

আজ ১ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন এইদিনে গাজীপুরের কালীগঞ্জের বাহাদুরসাদী ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে ন্যাশনাল জুট মিলের ভিতর কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মুক্তিযোদ্ধা সহযোগীসহ ১৩৬ জন বাঙালিকে ব্রাশ ফায়ার করে নির্মমভাবে গণহত্যা চালায় পাকবাহিনী। 

এর পর থেকে প্রতি বছর ১ ডিসেম্বর কালিগঞ্জে গণহত্যা দিবস পালিত হয়ে আসছে। 

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে সেদিনের শহীদদের গণকবরে উপজেলা প্রশাসন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলাবাসী শ্রদ্ধা নিবেদন, পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল করেন।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ সালে ১ ডিসেম্বর কালীগঞ্জ ন্যাশনাল জুট মিলের শ্রমিক কর্মচারীরা সকালের নাস্তা খেতে বসার সময় পশ্চিম পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী পার্শ্ববর্তী ঘোড়াশাল ক্যাম্প থেকে নদী পার হয়ে মিলের ভিতর ঢুকে মুক্তিযোদ্ধাদের খুঁজতে থাকে। ওই দিন সকাল থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত ন্যাশনাল জুট মিলের নিরীহ বাঙালী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এক লাইনে দাঁড় করিয়ে হানাদার বাহিনীরা গুলি করে নির্মম গণহত্যা চালায়। 

পাক বাহিনী গণহত্যা চালিয়ে দক্ষিণ দিকের দেয়াল ভেঙে মিল ত্যাগ করে। ৩/৪ দিন ধরে মিলের সুপারি বাগানে পড়ে থাকে মৃতদেহগুলো। পাক বাহিনীর ভয়ে এলাকার কেউ মিলের ভিতরের লাশগুলো উদ্ধার করতে সাহস পায়নি। 

দেশ স্বাধীন হলে এলাকাবাসী মিলের ভিতর গিয়ে ১৩৬ জনের মৃতদেহ বিকৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে। পরে বিকৃত ওই মৃতদেহ ন্যাশনাল জুট মিলের দক্ষিণ পাশে গণকবরে সমাহিত করা হয়। 

মিল কর্তৃপক্ষ গণহত্যার শিকার শহীদদের স্মৃতি রক্ষার্থে “শহীদের স্মরণে ১৯৭১” নামক একটি শহীদ মিনার নির্মাণ করেছেন। শহীদের গণকবরের পাশে একটি পাকা মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে। 

প্রতি বছর ১ ডিসেম্বর এলে ১৩৬ জন শহীদের গণকবরে উপজেলা প্রশাসন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও উপজেলাবাসী শ্রদ্ধা নিবেদন, পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

রফিক সরকার/সনি

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়