RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||  ফাল্গুন ১২ ১৪২৭ ||  ১২ রজব ১৪৪২

মেয়রের স্ত্রীসহ তিনজনকে ডিম নিক্ষেপ, হামলা

বরগুনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৬:২৯, ২৫ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ০৭:২৮, ২৫ জানুয়ারি ২০২১
মেয়রের স্ত্রীসহ তিনজনকে ডিম নিক্ষেপ, হামলা

বরগুনা পৌরসভার মেয়র ও জগ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহাদাত হোসেনের স্ত্রী হেনারা বেগম প্রচারণায় নেমে হামলার শিকার হয়েছেন। ওই ঘটনায় ইভামনি (২০) ও তামান্না লাবনী (২৪) নামের আরো দু’জন আহত হয়েছেন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। রবিবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে শহরের সদর সড়কের প্রেসক্লাব গলিতে এ ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার বরগুনা পৌর মেয়রের স্ত্রী হেনারা বেগম জানান, প্রতিদিনের মতো তিনি তার স্বামী স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বর্তমান পৌর মেয়র মো. শাহাদাত হোসেনের পক্ষে প্রচারণার জন্য পৌর সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ীদের কাছে যান। এসময় তার বোনের দুই মেয়ে ইভামনি ও তামান্না লাবনীসহ আরো কয়েকজন নারী সমর্থক সাথে ছিলেন।

প্রেসক্লাব গলিতে প্রচারণার সময় মুখে রুমাল বাধা অজ্ঞাত এক যুবক তাদের লক্ষ্য করে উপর্যুপুরি  ডিম ছুড়তে থাকে। ঘটনারা আকষ্মকিতায় হতভম্ব হয়ে যান তিনি। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ওই যুবক ডিমের খাঁচা দিয়ে তিনজনকেই পিটিয়ে আহত করে। একপর্যায়ে সেখানে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি যুবায়ের আদনান অনিক ও তানভীর হোসাইন উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি যুবায়ের আদনান অনিক বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থল থেকে যাওয়ার সময় জটলা দেখতে পাই, পরে সেখানে গিয়ে জানতে পারি, মেয়রের স্ত্রীসহ অন্যদের ওপর ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীদের কেউ ডিম ছুড়েছে। প্রাথমিকভাবে আমি পরিস্থিতি সামাল দিয়ে পুলিশকে খবর দিই।’

খবর পেয়ে বরগুনার পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মফিজুরর রহমান, সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারিকুল ইসলামসহ পুলিশ কর্মকর্তাগণ ঘটাস্থলে উপস্থিত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী একজন ব্যবসাীয় শহীদুল ইসলাম জানান, মেয়রের স্ত্রীসহ অন্যরা ব্যবসায়ীদের মাঝে লিফলেট বিতরণ করছিলেন। হঠাৎ ওই যুবক হাতে খাঁচাভর্তি ডিম নিয়ে এসে ছুড়ে মারতে থাকে। এসময় মেয়রের স্ত্রী’র সাথে থাকা দুজন তরুণী ওই যুবকের গেঞ্জি ধরে আটকাতে চেষ্টা করলে ডিমের খাঁচা দিয়ে তাদের পিটিয়ে নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

মেয়র ও স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহাদাত হোসেনের স্ত্রী হেনারা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন সাবুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে। আমরা পৌরবাসীর কাছে এর বিচার দিলাম।’

পৌর মেয়র শাহাদাত হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর টার্গেট আমি। প্রচারণার শুরু থেকেই হামলার ভয়ে আমি বাসায় অবরুদ্ধ। আমার পরিবারেরও নিরাপত্তা নেই। নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়াটাই আমার অপরাধ। আমার স্ত্রীসহ স্বজনদের ওপর এমন হামলার আমি বিচার প্রার্থনা করি।’

হামলার বিষয়ে যুবলীগ সভাপতি সাহাবুদ্দিন সাবু বলেন, ‘আমি শুনেছি পৌর মেয়রের দুর্নীতির শিকার ক্ষুদ্ধ ব্যবসায়ীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে যারা প্রচারণায় গিয়েছিল, তাদের ডিম ছুড়ে লাঞ্চিত করেছে। ঘটনার বিষয়ে আমি আদৌ কিছু জানি না। মেয়র বরাবরই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ দিয়ে আসছেন।’

আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থী অ্যাডভোটেক কামরুল আহসান মহারাজ বলেন, ‘শাহাদাত হোসেন দলের বাইরে গিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। তিনি পৌর মার্কেটকে কুক্ষিগত করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা আদায় করেছেন। ব্যবসায়ীরা তার দুর্নীতির কারণে ক্ষুদ্ধ হয়ে জগ প্রতীকের প্রচারকদের লাঞ্চিত করে থাকতে পারে। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগ বা আমার সমর্থকদের কেউ জড়িত নয়।’

বরগুনা সদর সার্কেলের পুলিশ সুপার মফিজুরর রহমান বলেন, ‘ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। প্রত্যেক প্রার্থী যাতে নিরপদে প্রচারণা চালিয়ে যেতে পারেন সে জন্য যা যা ব্যবস্থা নেয়ার পুলিশ সে ব্যবস্থা নিয়েছে। অভিযোগ পেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো।’

রুদ্র রুহান/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়