Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

সফল নারী উদ্যোক্তা রামপালের পুর্ণিমা মন্ডল

আলী আকবর টুটুল || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৩০, ৮ মার্চ ২০২১  
সফল নারী উদ্যোক্তা রামপালের পুর্ণিমা মন্ডল

ডিজিটাল যুগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিকাশ ও নগদের আর্থিক লেনদেনে ভাগ্য বদলেছেন বাগেরহাটের রামপালের পুর্ণিমা মন্ডল।

রামপালের প্রত্যন্ত এলাকায় ব্যাংকিং সেবা না থাকায় নগদ ও বিকাশে লেনদেনই ওই এলাকার মানুষের ভরসা। নিরাপদ লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে বিকাশ ও নগদকে বেছে নিয়েছেন এলাকাবাসী। আর এই সুযোগটি কাজে লাগিয়েই জীবনের মোড় ঘুরিয়েছেন পুর্ণিমা। পাশাপাশি মোবাইল ফোনের রিচার্জও করছেন তিনি। 

পুর্ণিমা মন্ডলের স্বামী মিলন কৃত্তনিয়া দীর্ঘদিন ধরে মোবাইল রিচার্জের ব্যবসা করে আসছিলেন।  কিন্তু তিনি সফল হতে পারেননি।  বরং সাড়ে তিন লাখ টাকা দেনা হন মিলন।  এরপরেই অদম্য সাহস ও মনোবল নিয়ে পুর্ণিমা নিজেই হাল ধরেন স্বামীর ব্যবসার।  সংসারের যাবতীয় কাজ ঠিক রেখে দোকানের ব্যবসা চালিয়ে গেছেন তিনি।

খুলনা-মোংলা মহাসড়কের রামপাল উপজেলার বাবুর বাড়ি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সোভা টেলিকম নামের দোকানে মোবাইল রিচার্জের ব্যবসা শুরু করেন।  শুরুর দিকে নারী হিসেবে মোবাইল রিচার্জের ব্যবসায় কিছুটা বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে তাকে।  সব বাধা পেরিয়ে দিন দিন দোকানে লেনদেনের পরিমান বাড়তে থাকে।  এক পর্যায়ে আশপাশের মাছ ব্যবসায়ী, রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শ্রমিকরা নগদের মাধ্যমে কম খরচে তাদের প্রয়োজনীয় অর্থ লেনদেন শুরু করেন পুর্ণিমার কাছ থেকে।  এরপর থেকে তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।  প্রতিদিন এক থেকে দেড়/দুই লাখ টাকা লেনদেন করেন তিনি।

বর্তমানে পুর্ণিমা স্বামীর দেনা পরিশোধ করে, ছেলের লেখাপড়া থেকে শুরু করে সংসারের সকল খরচই চালাচ্ছেন এই ব্যবসা থেকে।  

পুর্ণিমা মন্ডল নিজেকে একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবে দাবি করেন।

তিনি বলেন, ‘শুরুতে আমি কিছুটা ঘাবড়ে গিয়েছিলাম যে লোকেরা আমার সম্পর্কে কী ভাববে, কিন্তু নগদ  সহায়তায় আমার ব্যবসা যখন বাড়তে শুরু করে, আমি তাতে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠি।  মাঝে মাঝে আমি নিজের কাজটি নিয়ে গর্ববোধও করি।  আমি নগদ ও বিকাশকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, যা আমাকে সম্মান অর্জন করতে এবং আমার প্রতিবেশ বদলাতে সহায়তা করেছে।’  

তিনি বলেন, ‘যদি কোনো নারী চিন্তা করেন আমি বসে থাকবো না, আমি নিজে কিছু করবো, আমি আমার নিজেকে বদলাবো, অন্যের উপর নির্ভর হবো না এবং সে যদি মনে আত্মবিশ্বাস নিয়ে কোনো কিছু করার চেষ্টা করে- সে এক সময় সফল হতে পারবে।  আমার জীবনের যুদ্ধটাও এরকম।  আমি একসময় চিন্তা করেছিলাম আমি নিজে কিছু করবো।  যেহেতু আমি শিক্ষিত মেয়ে কিন্তু কোনোরকম চাকরিতে আমি যুক্ত ছিলাম না।  প্রথমদিকে সাধারণ  ব্যবসা মনে হলেও এখন বুঝি এই ব্যবসাতে এসেই আমি ঠিক করেছি।’

রামপাল উপজেলার হুড়কা  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তপন কুমার গোলদার বলেন, ‘পুর্ণিমা মন্ডল নিজের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য এখানে রিচার্জ ব্যবসা শুরু করেন।  তার লেনদেনও ভালো।  এ কারণে দিন দিন অসংখ্য লোকজন এখান থেকে লেনদেন করে।  আমরা চাই পুর্ণিমার মত আরো অনেক নারীরা নিজেদের উদ্যোগে যে কোনো কাজে এগিয়ে আসুক।  আমি পুর্ণিমার সার্বিক কল্যাণ কামনা করি।’

বাগেরহাট সদর উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি রিজিয়া পারভীন বলেন, ‘দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাচ্ছে নারী।  নারীরা এখন হাটে, মাঠে, ঘাটে, বাসে, ট্রেনে সব ক্ষেত্রে সর্বত্র তাদের দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছে।  নারীরা এখন উদ্যোক্তা হিসেবেও সফল।’ 

বাগেরহাট/টিপু

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে