Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০৯ মে ২০২১ ||  বৈশাখ ২৬ ১৪২৮ ||  ২৬ রমজান ১৪৪২

প্রচণ্ড তাপদাহে বিবর্ণ ফসলের ক্ষেত

বরগুনা সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:১০, ১৭ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১২:৩১, ১৭ এপ্রিল ২০২১
প্রচণ্ড তাপদাহে বিবর্ণ ফসলের ক্ষেত

বিবর্ণ হয়ে যাওয়া চিনাবাদামের ক্ষেত

বরগুনার আমতলী উপজেলায় প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে বিবর্ণ ফসলের ক্ষেত। পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে রবি মৌসুমের চিনাবাদাম, মরিচ, খেসারি, মুগ, মসুর, ছোলা ও ফেলনের আবাদ।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে, এ বছর উপজেলায় ৪২৫ হেক্টরে চিনাবাদাম, ৪৫০ হেক্টরে মরিচ, ৫ হাজার হেক্টরে খেসারি, ১০ হাজার ২৫০ হেক্টরে মুগ, ২০ হেক্টরে মসুর, ২৫ হেক্টরে ছোলা এবং ৯৬ হেক্টর জমিতে ফেলনের আবাদ হয়েছে। গত তিন মাস ধরে এখানে বৃষ্টি নেই। টানা অনাবৃষ্টির কারণে ও প্রচণ্ড তাপদাহে এখানের রবি ফসলের ক্ষেত পুড়ে ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। এতে ব্যপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন এ উপজেলার কৃষক।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) সরেজমিনে আঠারোগাছিয়া, কুকুয়া, চাওড়া ও হলদিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে চিনা বাদাম, মুগডাল, ফেলন, মসুর, খেসারি ও মরিচ ক্ষেতের মাটি ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে অনেক ক্ষেতের ফসলই পুড়ে গেছে। পানির অভাবে গাছ থেকে ফলন বের হতে পারছে না।

কুকুয়া গ্রামের কৃষাণী ফরিদা বেগম বলেন, ১৮ শতাংশ জমিতে মুগডাল চাষ করেছিলাম, তা পুড়ে গেছে। পানির অভাবে গাছ থেকে ফলন বের হতে পারছে না।

একই এলাকার জসিম বয়াতি ও ইসমাইলও বললেন, প্রচণ্ড রোদের তাপে সব পুড়ে চৌচির হয়ে গেছে।

আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম সোনাখালী গ্রামের আলমগীর মিয়া বলেন, ৫০ শতাংশ জমিতে বাদাম চাষ করেছিলাম। কিন্তু বৃষ্টি না হওয়ায় অধিকাংশই রোদে পুড়ে গেছে।

কাউনিয়া গ্রামের কৃষক আল আমিন ৪০ শতাংশ জমিতে মুগডাল চাষ করেছেন। বললেন, গাছ ভালো হয়েছিল কিন্তু রোদের তেজে ফলন বের হতে পারছে না। এ বছর লাভতো দূরের কথা আসলই উঠবে না।

আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামের আফজাল হোসেনও বললেন, প্রচণ্ড তাপে সবপুড়ে তছনছ হয়ে গেছে।

ক্ষেত পুড়ে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আক্ষেপ করলেন চন্দ্রা পাতাকাটা গ্রামের দুলাল মোল্লাও।

আমতলী উপজেলা কৃষি অফিসার সিএম রেজাউল করিম বলেন, প্রচণ্ড তাপদাহের ফলে মাটির নিচে জমানো পানি শুকিয়ে ক্ষেতে লবণাক্ততা দেখা দেওয়ায় গাছ পুড়ে নষ্ট হয়েছে। তিনি জানালেন, অনাবৃষ্টিতে কৃষক সঠিক সময়ে সেচ দিতে না পারায় এ বছর কাঙ্খিত ফলন পাবেন না। 

কাশেম/টিপু

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়