Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ১৪ জুন ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪২৮ ||  ০১ জিলক্বদ ১৪৪২

ধামরাইয়ে মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে যখম

সাভার প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:২৬, ১৫ মে ২০২১  
ধামরাইয়ে মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে যখম

ঢাকার ধামরাইয়ে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে স্থানীয় মসজিদের মুয়াজ্জিন আব্দুল কুদ্দুসকে (৬৫) কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। হামলায় ওই বৃদ্ধসহ তার পরিবারের আরও ৬ সদস্য আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত অবস্থায় বৃদ্ধ মুয়াজ্জিনকে রাজধানীর লাইফ কেয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

শনিবার (১৫ মে) বিকেলে আহত আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে ফারুক বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) আতিক রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে একইদিন সকাল ৯টার দিকে উপজেলার গাঙ্গুটিয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণপুরা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

আহতরা হলেন— ধামরাইয়ের কৃষ্ণপুরা এলাকার মৃত খুদু বক্সের ছেলে আব্দুল কুদ্দুস ও তার তিন ছেলে মো. ফারুক হোসেন (৪০), মো. মুসা মিয়া (৩২) এবং সিরাজুল ইসলাম সুরুজ (২৫)।

অভিযুক্তরা হলেন— একই এলাকার জয়নালের ছেলে রাজ্জাক, মেয়ে মনোয়ারা, কুলসুম, রেহালা, মেয়ের জামাই মজিবর ও তার ছেলে নাইম, নাতি কাউসার ও সেলেনাসহ প্রায় ৭-৮ জন।

আহত কুদ্দুসের বড় ছেলে মো. ফারুক বলেন, ‘‘কয়েকবছর আগে তারা আমাদের ৬ শতাংশ জমি দাবি করে ভূমি অফিসে মামলা দায়ের করে। পরে ২০১৭ সালে আদালত আমাদের জমির ৬ শতাংশ ভোগ করার নির্দেশ দেন। পরে বিবাদীরা এটা নিয়ে আবারও আপিল করে। তবে ২০২১ সালেও একই রায় বহাল থাকে। 

‘আজ সকালে অতর্কিতে তারা আমাদের ওই জমির বেড়া ভাঙ্গতে শুরু করে। এতে আমরা বাধা দিলে আমাদের ওপর হামলা চালায় তারা। এসময় লোহার দাঁ দিয়ে আমার বাবাকে তিনটি কোপ দেয়। এছাড়া রড, বাঁশ ও লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়িভাবে আমাদের তিন ভাই ও পরিবারের অন্য সদস্যদেরকেও মারধর করে। পরে আশপাশের লোকজন এসে আমাদেরকে উদ্ধার করে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বাবার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে রাজধানীর লাইফ কেয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”

গাঙ্গুটিয়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল মন্টু বলেন, ‘বিষয়টা নিয়ে আগে সামাজিকভাবে বসার কথা ছিল। কিন্তু রেজ্জাকের পক্ষ আগেই থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করে।’

ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) আতিক রহমান বলেন, ‘এ ঘটনায় দুই পক্ষই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। ঘটনার তদন্ত শেষে মামলা দায়ের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সাব্বির/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়