Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ১৬ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ২ ১৪২৮ ||  ০৩ জিলক্বদ ১৪৪২

১৬ ফুট চওড়া রাস্তার ১২ ফুট ব্রিজ

দিনাজপুর প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৫৫, ১০ জুন ২০২১   আপডেট: ১৫:৫৮, ১০ জুন ২০২১
১৬ ফুট চওড়া রাস্তার ১২ ফুট ব্রিজ

রাস্তার চেয়ে ব্রিজ কম চওড়া হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন জেলার ঘোড়াঘাটের বাসিন্দারা। এলাকার তীর্মণি ঘাটের বেইলি ব্রিজ এমনিতেই অপ্রশস্থ, তার ওপর পুরনো হওয়ায় আতঙ্ক নিয়ে চলাচল করতে হয় যানবাহনের চালক এবং পথচারীদের। ব্রিজে বড় বাস বা ট্রাক উঠলে বাইসাইকেলও পাশাপাশি যেতে পারে না। ফলে অপর পাশে তৈরি হয় যানজট। এতে ভোগান্তি আরো বাড়ে।

বেইলি ব্রিজটি সংযোগ রাস্তার চেয়ে ৪ ফুট কম চওড়া। যে কারণে একটি গাড়ি ব্রিজে উঠলে অপর পাশে আরেকটি গাড়িকে অপেক্ষা করতে হয়। ব্রিজের প্লেটগুলোর বিট ক্ষয় হয়ে গেছে। যে কারণে ঝুঁকি নিয়েই এর ওপর দিয়ে যানবাহন চলাচল করে। কুয়াশার রাত কিংবা বৃষ্টি হলে ঘটে দুর্ঘটনা।

১২ ফুট ব্রিজের নিচে পিলারগুলো ১৬ ফুট চওড়া। কর্তৃপক্ষ চাইলে ব্রিজটি প্রশস্ত করার উদ্যোগ নিতে পারে। এলাকাবাসীর দাবি তাহলে অন্তত যানজট অনেকটাই কমে আসবে।

দিনাজপুর এবং জয়পুরহাটের সব যানবাহন এই ব্রিজ দিয়ে পলাশবাড়ী, গাইবান্ধা ও রংপুর জেলায় যাতায়াত করে। ফলে রাত-দিন যানবাহনের চাপ থাকে। চাপ সামলাতে সকালে ব্রিজের পশ্চিম পাশে এবং বিকেলে পূর্ব পাশে কাজ করেন রুবেল আহমেদ। প্রতিটি গাড়ি পর্যায়ক্রমে পারাপারের নির্দেশনা দেন তিনি। তিন বছর ধরে রুবেল এই কাজ করলেও নেই কোনো স্বীকৃতি। খুশি হয়ে যে যা দেয় তা দিয়েই চলে রুবেলের সংসার।

রুবেল বলেন, ব্রিজটি পুরনো হয়ে গেছে, দুই পাশও চওড়া না। ব্রিজটি ভেঙে নতুন করে করা উচিত। স্থানীয় বীজনাল চক্রবর্তীরও একই মত। তিনি বলেন, ব্রিজটি খুব ঝুঁকিপূর্ণ, যে কোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। গত ২০ বছর ব্রিজটি এভাবেই দেখছেন বলে জানান তিনি। 

ঘোড়াঘাট থেকে গাইবান্ধাগামী বাসচালক নওশাদ হোসেন বলেন, দিনে তিনবার আসা-যাওয়া করতে হয় এই ব্রিজ দিয়ে। আমাদের সময়ের গাড়ি, রাস্তা-ঘাট সবই ভালো, কিন্তু এই ব্রিজ পার হতে অনেক সময় নষ্ট হয়। তাছাড়া ব্রিজের বিট ক্ষয় হয়ে যাওয়ায় গাড়ির চাকা পিছলে যায়। ফলে সাবধানে চালাতে হয়।

এ প্রসঙ্গে গাইবান্ধার সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ফিরোজ আক্তার বলেন, আমরা ব্রিজটির উপরের অংশ ভেঙে নতুন করে তৈরির এবং বড় করার অনুমতি পেয়েছি। আশা করছি অল্প দিনের মধ্যে এর নির্মাণ কাজ শুরু হবে।
 

মোসলেম উদ্দিন/তারা 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়