Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ২৪ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ৯ ১৪২৮ ||  ১২ জিলহজ ১৪৪২

খুলনায় বিধি-নিষেধ প্রতিপালনে ২৪ ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:২৮, ১৪ জুন ২০২১  
খুলনায় বিধি-নিষেধ প্রতিপালনে ২৪ ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে

নগর ও জেলায় বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

খুলনা জেলা ও মহানগরীতে ১৩ জুন থেকে শুরু হওয়া ৭ দিনের বিধি-নিষেধ বাস্তবায়নের লক্ষ‌্যে ২৪ জন ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে নেমেছেন।

আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় তারা নগর ও জেলায় আলাদা আলাদা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন।

এদিকে, রোববার বিধি-নিষেধের প্রথম দিন উপজেলা ও মহানগর মিলিয়ে ৪০ মামলা দায়ের করা হয়। এ সময় ৪৮ জনকে ৭০ হাজার ২৫০ টাকা জরিমানা করা হয়।

জেলা প্রশাসন, খুলনার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেবাশীষ বসাক সোমবার (১৪ জুন) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দেবাশীষ বসাক জানান, খুলনার বিভিন্ন উপজেলায় এবং মহানগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে মোবাইল কোর্টের অভিযান পরিচালিত হয়। করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতকরণে এই মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। তিনি নিজেসহ মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় নেতৃত্বে ছিলেন— জেলা প্রশাসন, খুলনার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইসমাইল হোসেন, আরিফুল ইসলাম, গালিব মাহমুদ পাশা, মো. তকী ফয়সাল তালুকদার ও নূরী তাসমিন ঊর্মি এবং উপজেলাগুলোর নিজ নিজ উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণ ও সহকারী কমিশনারগণ (ভূমি)।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেবাশীষ বসাক জানান, করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ায় ১১ জুন অনুষ্ঠিত জেলা পর্যায়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও প্রতিরোধসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা কমিটির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে জারি করা গণবিজ্ঞপ্তির নির্দেশনাসমূহ সঠিকভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে কিনা তা তদারকি করতেই মূলত এই মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। মোবাইল কোর্ট পরিচালনায় এপিবিএন, বাংলাদেশ আনসার, র‍্যাব এবং পুলিশের সদস্যগণ সহযোগিতা করেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধকল্পে জেলা প্রশাসন কর্তৃক মোবাইল কোর্টের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ১৩ জুন থেকে ১৯ জুন পর্যন্ত খুলনা জেলা ও মহানগরীতে ৭ দিনের বিধি-নিষেধ শুরু হয়েছে। সে মোতাবেক সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দোকানপাট, মার্কেট, শপিংমল ও হোটেলসমূহ খোলা থাকবে। তবে মার্কেটের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার/হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। ‘স্বাস্থ্যবিধি না মানলে মৃত্যু ঝুঁকি আছে’— এই সতর্কবাণী অবশ্যই দৃশ্যমান স্থানে রাখতে হবে। দোকানসমূহে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে এবং দুই জনের মধ্যে তিন ফুট শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো পার্সেল করা/প্যাকেটজাত খাবার সরবরাহ করতে পারবে। বেরি ট্যাক্সি ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ সকল ধরনের যানবাহনে অর্ধেকের বেশি যাত্রী বহন করতে পারবে না। যানবাহনের চালকসহ প্রত্যেক যাত্রীদের অবশ্যই মাস্ক পরিধানসহ সকল স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে। তবে, ওষুধের দোকান সার্বক্ষণিক খোলা রাখা যাবে এবং কেসিসি সন্ধ্যা বাজার ও সোনাডাঙ্গা ট্রাক স্ট্যান্ড সংলগ্ন পাইকারী কাঁচাবাজার রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে।

খুলনা/নূরুজ্জামান/বুলাকী

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়