Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২৮ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ১৩ ১৪২৮ ||  ১৬ জিলহজ ১৪৪২

খুলনার করোনা হাসপাতালে যুক্ত হলো ৩০ শয্যা, প্রস্তুত হচ্ছে আরও ৭০

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:০১, ১৭ জুন ২০২১   আপডেট: ০৯:০৬, ১৭ জুন ২০২১
খুলনার করোনা হাসপাতালে যুক্ত হলো ৩০ শয্যা, প্রস্তুত হচ্ছে আরও ৭০

খুলনায় ১০০ শয্যা বিশিষ্ট করোনা হাসপাতালে ৩০টি শয্যা বাড়িয়ে নতুন নামকরণের সাইনবোর্ড 

করোনার সংক্রমণ উর্ধ্বমুখী হওয়ায় খুলনায় প্রতিদিনই বাড়ছে রোগী। ফলে হাসপাতালে বেড মিলছে না। রোগী ভর্তি থাকছে ধারণ ক্ষমতার বাইরে। প্রতিদিন গড়ে ১০০ শয্যার করোনা হাসপাতালে ১৩০ থেকে ১৫৪ জন পর্যন্ত রোগী ভর্তি থাকছেন। এ কারণে নিতে হচ্ছে ফ্লোরে চিকিৎসা।

এদিকে, সার্বিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ খুলনার করোনা হাসপাতালকে ১০০ থেকে ৩০টি শয্যা বাড়িয়ে ১৩০ শয্যায় উন্নীত করেছেন। এছাড়াও খুলনায় আরও ৭০ শয্যা বিশিষ্ট নতুন আরেকটি করোনা ইউনিটও চালুর জোর প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। খুলনা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলারেল হাসপাতালে (সদর) ৭০ শয্যার করোনা ইউনিট চালু হচ্ছে আগামী সপ্তাহে।

বুধবার (১৭ জুন) সকালে খুলনা করোনা হাসপাতালের ফোকাল পারসন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার বিষয়টি জানিয়েছেন।

ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, রোগীর চাপ বাড়ায় শয্যা সংকট দেখা দেয়। এ কারণে বুধবার (১৬ জুন) থেকে ৩০টি শয্যা বাড়িয়ে ১০০ শয্যার হাসপাতালকে ১৩০ শয্যা বিশিষ্ট ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে পরিণত করা হয়েছে। হাসপাতালের সাইনবোর্ডও পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন থেকে এই হাসপাতালটির নাম ‘১৩০ শয্যা বিশিষ্ট ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল, খুলনা।’

ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার আরও জানান, ৩০ শয্যা বাড়লেও এখনো ঠিক করা হয়নি কতগুলো রেডজোন হবে আর কতোগুলো ইয়োলো জোন হবে। হাসাতালের জন্য ১০ জন নতুন চিকিৎসক ও ৩৭ জন নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মী দেওয়া হয়েছে। তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। তবে তারা সকলে এখানে থাকবে কি-না এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না।

ডা. সুহার রঞ্জন হালদার আরও বলেন, করোনা রোগীদের জন্য খুলনা জেনারেল হাসপাতালে ৭০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল হচ্ছে। সেখানে এরই মধ্যে সাধারণ রোগীদের ভর্তি নেওয়া বন্ধ করা হয়েছে। ওই সকল রোগী খুলনা মেডিক‌্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হবেন।

এদিকে, খুলনা জেনালের হাসপাতালের ফটকে নোটিশ টাঙিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘সর্বসাধারণের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, কোভিড-১৯ সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১১ জুন জেলা ও মহানগর করোনা প্রতিরোধ কমিটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালকে ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ অবস্থায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সকল বিভাগের (জরুরি/বহিঃবিভাগ/অন্তঃবিভাগ/ অপারেশন) সব ধরনের স্বাভাবিক কার্যক্রম কোভিড-১৯ পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সাময়িকভাবে সকল ধরনের রোগী ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ রাখা হলো। আগামী ২০ জুন থেকে ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতাল চালু হওয়ার কারণে ১৫ জুন থেকে সাময়িকভাবে করোনা রোগী ব্যতীত সকল ধরনের রোগীর ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ রাখা হলো’।

খুলনা সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ জানান, খুলনা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে কোভিড রোগীদের জন্য ৭০টি শয্যা থাকছে। তবে অন্যকোনো রোগাক্রান্ত রোগী এখানে ভর্তি নেওয়া হবে না। প্রথম ধাপে চিকিৎসক ২৪ চিকিৎসক লাগবে। এছাড়া, প্রয়োজনীয় জনবল আমাদের রয়েছে। চিকিৎসা সেবায় কোনো সমস্যা হবে না। সবঠিক থাকলে আগামী সপ্তাহে হাসপাতালে রোগী ভর্তি কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. রাশিদা সুলতানা জানান, খুলনায় ১০০ শয্যা বিশিষ্ট করোনা হাসপাতাল ছিল। সেখানে ৩০টি বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ ১৩০ শয্যা। এছাড়া খুলনা জেনারেল হাসপাতালে আরও ৭০ শয্যা করোনা রোগীদের জন্য বাড়ানো হচ্ছে। ফলে খুলনায় করোনা রোগীদের জন্য ২০০ শয্যা হচ্ছে।

খুলনা/নূরুজ্জামান/বুলাকী

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়