Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৭ ১৪২৮ ||  ১২ সফর ১৪৪৩

টানা বর্ষণে তলিয়ে গেছে খুলনার কয়রা-পাইকগাছা

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:২০, ৩০ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১২:৫৬, ৩০ জুলাই ২০২১
টানা বর্ষণে তলিয়ে গেছে খুলনার কয়রা-পাইকগাছা

নিম্নচাপ ও তিন দিনের টানা বর্ষণে খুলনার উপকূলবর্তী পাইকগাছা ও কয়রা উপজেলার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। ভারী বর্ষণে নিম্নাঞ্চলে জলাবদ্ধতাসহ চিংড়ি ঘের, আমন বীজতলা ও ফসলী জমি তলিয়ে গেছে। বেশ কয়েকটি কাঁচা ঘরও ধসে পড়েছে। বৃহস্পতিবার রাতেও টানা বৃষ্টিপাত অব্যাহত ছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) থেকে শুরু হওয়া টানা বর্ষণে পাইকগাছা পৌরসভা, গদাইপুর, রাড়ুলী, চাঁদখালী, লস্কর, কপিলমুনি ও হরিঢালী সহ বিভিন্ন ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে যায়। ভারী বর্ষণের ফলে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়। অনেক রাস্তা ঘাট তলিয়ে যাওয়ায় যাতায়াতে চরম ভোগান্তি পেতে হচ্ছে। অসংখ্য চিংড়ি ঘের, আমন বীজতলা ও ফসলী জমি তলিয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

রাড়ুলী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ গোলদার জানিয়েছেন, অতিবর্ষণের ফলে রাড়ুলীর মালোপাড়ার ৮/১০টি মাটির ঘর ভেঙে কপোতাক্ষ নদে চলে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শিয়াবুদ্দীন ফিরোজ বুলু।

অপরদিকে, ভারি বৃষ্টির পানিতে খুলনার কয়রা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থৈ থৈ করছে। ফলে বৃষ্টিতে ভিজে নিজেদের মৎস্য ঘের বাঁচাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৎস্য চাষিরা। কেউ মাটি দিয়ে রাস্তা উঁচু করছেন, কেউবা নেট জাল দিয়ে মৎস্য ঘের রক্ষা করতে ব্যস্ত রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে কয়রা উপজেলার গ্রামের পর গ্রাম। ডুবেছে বসতভিটাসহ ফসলি জমি ও মৎস্য ঘের। বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কয়রার জনজীবন। জলাবদ্ধতায় নাজেহাল হয়ে পড়েছে জীবনযাত্রা। নেমে এসেছে দুর্ভোগ। বৃষ্টিতে উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে বীজতলা, ফসলের মাঠ, পুকুর, রাস্তাঘাট ও বাড়ির আঙিনা তলিয়ে গেছে।

উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের মঠবাড়ি গ্রামের মৎস্য চাষি হরষিত মন্ডল বলেন, পরিবার পরিজন নিয়ে ভালোই চলছিলো আমার সংসার। আমার উপার্জনের উৎস মৎস্য ঘের। কিন্তু দুইদিন ধরে চলা বৃষ্টিতে সব ভেসে যাওয়ার উপক্রম। তাই সকাল থেকে ঘেরের রাস্তায় নেটজাল দিচ্ছি। টানা বৃষ্টিতে সব ভেসে যেতে বসেছে।

কয়রা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ উদ্দিন বলেন, দুর্ভোগ যেন কোনো অবস্থাতে পিছু ছাড়ছে না কয়রার মানুষের। কখনও নোনা পানির তোড়ে আবার কখনও অতি বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। বর্তমানে কয়রা সদর ইউনিয়নে অতি বর্ষণের ফলে যে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে তাতে চরম জনভোগান্তি সৃস্টি  হয়েছে। পুরো ইউনিয়নের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। বিশাল এ এলাকার পানি নিষ্কাশন কিছু সংখ্যক স্লুইসগেট দিয়ে সম্ভব হচ্ছে না।

খুলনা/নূরুজ্জামান/টিপু

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়