Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৮ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ১২ ১৪২৮ ||  ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

Risingbd Online Bangla News Portal

লাখাইয়ে নৌকা ভ্রমণে গিয়ে নববধূ ধর্ষণের শিকার: গ্রেপ্তার ৩

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪১, ২ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৯:০৪, ২ সেপ্টেম্বর ২০২১
লাখাইয়ে নৌকা ভ্রমণে গিয়ে নববধূ ধর্ষণের শিকার: গ্রেপ্তার ৩

হবিগঞ্জ জেলার লাখাইয়ে হাওরে নৌকাভ্রমণে যাওয়া নববধূকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের ঘটনার ছয় দিন পর মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও র‌্যাব। 

বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) দুপুরে নববধূর স্বামী বাদী হয়ে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। বিচারক জিয়াউদ্দিন মাহমুদ মামলাটি আমলে নিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এফআইয়ার করতে লাখাই থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

মামলার আসামিরা হলো— উপজেলার মোড়াকড়ি গ্রামের খোকন মিয়ার ছেলে মুছা মিয়া (২৬), ইব্রাহীম মিয়ার ছেলে মিঠু মিয়া (২১), পাতা মিয়ার ছেলে হৃদয় মিয়া (২২), বকুল মিয়ার ছেলে সুজাত মিয়া (২৩), মিজান মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া (২৫), ইকবাল হোসেনের ছেলে সোলায়মান রনি (২২), ওয়াহাব আলীর ছেলে মুছা মিয়া (২০) ও রুকু মিয়ার ছেলে শুভ মিয়া (১৯)। 

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো— লাখাই উপজেলার মোড়াকরি গ্রামের ইকবাল হোসেন ছোট্ট মিয়ার ছেলে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য সোলায়মান রনি (২২), একই এলাকার ইব্রাহিম মিয়ার ছেলে মিঠু মিয়া (২১) এবং রুকু মিয়ার ছেলে শুভ মিয়া (১৯)।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুল ইসলাম জানান, বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে মিঠু ও রনিকে আটক করে র‌্যাব। পরে বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে লাখাই থানায় সোপর্দ করলে তাদেরকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। একইদিন পুলিশ শুভকে গ্রেপ্তার করেছে। 

বাদী পক্ষের আইন হাফিজুল ইসলাম জানান, এক মাস আগে তাদের বিয়ে হয়। গত ২৫ আগস্ট দুপুরে বাড়ির পাশের ওই হাওরে তারা নৌকাভ্রমণে যান। নৌকায় নবদম্পতি, তাদের এক বন্ধু ও মাঝি ছিলেন। সেসময় আরেকটি নৌকায় করে গ্রামের আট যুবক তাদের নৌকার গতি রোধ করে। তাদের নৌকায় উঠে ওই যুবকরা নববধূর স্বামী ও তার বন্ধুকে মারধর করে আটকে রাখে। পরে নববধূকে নিজেদের নৌকায় তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ ঘটনার ভিডিও তারা মোবাইল ফোনে ধারণ করে রাখে।

সেসময় ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে জানালে ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেয় যুবকরা। এ কারণে বিষয়টি এতদিন গোপন করে রাখা হয়েছিল। তবে ঘটনার চার দিন পর ওই যুবকরা ভিডিওটি ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করে বলে জানান নববধূর স্বামী। 

টাকা না দেওয়ায় এলাকার কয়েকজনের কাছে ভিডিওটি ছড়িয়ে দেয় ওই যুবকরা। এর মধ্যে তার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থাও খারাপ হতে থাকে। এরপর তিনি স্ত্রীকে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) হাসপাতালে ভর্তি করেন।

মামুন/সনি

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়