ঢাকা     বুধবার   ১৭ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ২ ১৪২৯ ||  ১৮ মহরম ১৪৪৪

নাসিরনগর যুবদলের নতুন কমিটির ২৫ জনের পদত্যাগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪১, ৪ অক্টোবর ২০২১  
নাসিরনগর যুবদলের নতুন কমিটির ২৫ জনের পদত্যাগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলা যুবদলের নবগঠিত আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব এম. নাসির উদ্দিন ও ৯ যুগ্ম আহবায়কসহ ২৫ জন পদত্যাগ করেছেন। কমিটিতে বিতর্কিত ব্যক্তিকে আহবায়ক করার অভিযোগে তারা পদত্যাগ করেন।

চলতি বছরের ১২ সেপ্টেম্বর নাসিরনগর উপজেলা যুবদলের ৩১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা দেওয়া হয়। 

সোমবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এই পদত্যাগের কথা জানান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নবগঠিত কমিটির সদস্য সচিব এম.নাসির উদ্দন।

আহবায়ক কমিটি থেকে পদত্যাগকারী ২৫ জন হলেন, কমিটির সদস্য সচিব এম.নাসির উদ্দিন, যুগ্ম আহবায়ক জামাল আহমেদ, মাসুদুর রহমান চৌধুরী, ইয়াছিন পাঠান, জিয়াউল করিম সোহেল, এম. রুহুল আমিন, তৌহিদুল ইসলাম, আবদুল হান্নান, মোশাররফ তালুকদার, সদস্য তুষার মোল্লা, ছাদেকুর রহমান, মিজান ভূইয়া, মো. জিয়াউর রহমান, সোহাগ ভূইয়া, ইসমাইল মীর, গোলাম মোহাম্মদ সেলিম, আবদুল মতিন, মুখলেছুর রহমান, মাহফুজুল ইসলাম, ফরিদ খাঁ ফয়েজ, গোলাম জালাল, আরিফ আহমেদ, জিল্লুর রহমান, এম. আমিনুল ইসলাম মুনির ও শেখ হোসাইন আহমেদ।

সংবাদ সম্মেলনে এম.নাসির উদ্দিন বলেন, ১২ সেপ্টেম্বর নাসিরনগর উপজেলা যুবদলের ৩১ সদস্যের আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়। কমিটিতে বিএনপির দলীয় পরিবারের সদস্যকে খুনের মামলার আসামি এবং আওয়ামী লীগের মদদপুষ্ট মীর মোস্তফা জালালকে আহবায়ক করা হয়। উপজেলা বিএনপি নেতাদের মতামতকে উপেক্ষা করে বিতর্কিত ওই ব্যক্তিকে আহবায়ক করা হয়েছে।  

তিনি আরো বলেন, গত ২০ সেপ্টেম্বর মীর মোস্তফা জালালকে আহবায়কের পদ থেকে ৭ দিনের মধ্যে অব্যাহতি দেওয়ার জন্য তিনি কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে চিঠি দিয়েছিলেন। কিন্তু ১০ দিনেও তারা বিষয়টির সুরাহা না করায় নসিরনগর যুবদলের নতুন কমিটির ২৫জন পদত্যাগ করেছেন। তাদের পদত্যাগপত্র যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কেন্দ্রে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে কমিটির যুগ্ম আহবায়ক জামাল আহমেদ, মাসুদুর রহমান চৌধুরী, মো. ইয়াছিন পাঠান, মো. জিয়াউল করিম সোহেল, এম. রুহুল আমিন, মো. তৌহিদুল ইসলাম, আবদুল হান্নান, সদস্য মো. ছাদেকুর রহমান, গোলাম মোহাম্মদ সেলিম ও এম. আমিনুল ইসলাম মুনির উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে মীর মোস্তফা জালাল বলেন, ‘আমি নাসিরনগর উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ছিলাম। তাহলে আমি নিষ্ক্রিয় হলাম কিভাবে? ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে কেন্দ্রীয় যুবদলের সাংগঠনিক টীম নাসিরনগর উপজেলা সফর করে ইউনিয়ন, ওয়ার্ড ও উপজেলা যুবদলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন ও আমাদের সিভি নিয়ে যান। আমি ওই বৈঠকে উপজেলা যুবদলের একক সভাপতি প্রার্থী হই। ১০ বছর ধরে থাকা উপজেলা যুবদলের কমিটি সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাতে ব্যর্থ হওয়ায় এবং ওই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় গত ১২ সেপ্টেম্বর আমাকে আহবায়ক করে ৩১ সদস্যের কমিটি গঠন করে দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। ’

তিনি বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনের কথা শুনেছি।  ওই সংবাদ সম্মেলনে থাকা ৯জন ছিলেন আরএকে সিরামিকস ও স্টার সিরামিকসের কর্মচারী।’

জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদ বলেন, ‘জেলার বিভিন্ন উপজেলায় যাচাই-বাচাই করে কমিটি করা হয়েছে। নাসিরনগরে শুধু আহবায়ক নিয়ে সমস্যা হচ্ছে।  কমিটি নিয়ে যেসব ঘটনা ঘটছে সেগুলোর সমস্যা নিয়ে কাজ করব আমরা।’

রুবেল/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়