ঢাকা     বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ৫ ১৪২৮ ||  ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বিজয় বাইচ দেখতে লাউকাঠী নদীর দুই পাড়ে মানুষের ঢল 

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:২৮, ৯ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১১:৫১, ৯ ডিসেম্বর ২০২১
বিজয় বাইচ দেখতে লাউকাঠী নদীর দুই পাড়ে মানুষের ঢল 

পটুয়াখালীর লাউকাঠী নদীতে হানাদার মুক্ত দিবসের ঐতিহ্যবাহী বিজয় বাইচ উপভোগ করলো হাজারো দর্শক। বাইচ দেখতে নদীর দুই পাড়ে ঢল নেমেছিলো মানুষের।

পটুয়াখালী হানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষে বুধবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় মাগুরা টাইগার, জয় মা বাংলী, আতিকের তরী, মায়ের দোয়া, মা শিতলা ও বঞ্চজন  নামের রং বেরংয়ের ৬টি নৌকা নিয়ে ছয় বাইচ দল অংশ নেয়। 

নৌকা বাইচ এক নজর দেখতে লাউকাঠী নদীর দুই পাশে ভীড় জমিয়েছে হাজারো জনতা। প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী এ নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে মাগুরা টাইগার, দ্বিতীয় হয়েছে মায়ের দোয়া ও তৃতীয় হয়েছে মা শিতলা। 

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রথম পুরস্কার একটি মটরসাইকেল, দ্বিতীয় পুরস্কার একটি ফ্রিজ ও তৃতীয় পুরস্কার একটি টেলিভিশন প্রদান করা হয়। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহজাহান মিয়া, পটুয়াখালী-২ আসনের সংসদ সদস্য আসম ফিরোজ, জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীর, সাধারণ সম্পাদক ভিপি আবদুল মান্নান ও পটুয়াখালী পৌর মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। 

লাউকাঠী এলাকা থেকে নৌকা বাইচ দেখতে আসা সারা মনি জানান, এটা আসলেই আনন্দের। 

পটুয়াখালী পৌর শহরের অপর দর্শক শাহিন মিয়া জানান, সুন্দর আয়োজন হয়েছে। আসলেই দেখার মতো। একসঙ্গে বিভিন্ন কালারের গেঞ্জি পরিহিত ব্যক্তিরা রং বেরংয়ের নৌকার বৈঠা একসঙ্গে নদীতে ফেলছে আবার তুলছে। সময়টুকু খুবই আনন্দঘন পরিবেশে কাটিয়েছি। 

পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আলমগীর জানান, এই দিন পটুয়াখালী পাক হানাদার মুক্ত হয়েছিল। আর এই দিনেই জেলা প্রশাসন নৌকা বাইচের আয়োজন করেছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজারো মানুষ এসে এই বিজয় বাইচ প্রতিযোগিতা উপভোগ করেছে। জেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। 

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন জানান, সবার সহযোগিতায় এই বিজয় বাইচের আয়োজন করা হয়েছে। সব শ্রেণিপেশার মানুষ আনন্দ ঘন পরিবেশে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা উপভোগ করেছে। সামনে পটুয়াখালীবাসীকে আরো ভালো কিছু আয়োজন উপহার দেওয়া হবে। তবে সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। 

মো. ইমরান/টিপু 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়