ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ১২ ১৪২৮ ||  ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

জমে উঠেছে সিলেটের চেম্বার অব কমার্সের নির্বাচন

নূর আহমদ, সিলেট || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৫২, ৯ ডিসেম্বর ২০২১   আপডেট: ১২:৫৩, ৯ ডিসেম্বর ২০২১
জমে উঠেছে সিলেটের চেম্বার অব কমার্সের নির্বাচন

সিলেট সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ

শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে সিলেটে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ‘সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’র দ্বি-বার্ষিক (২০২২-২৩) নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা। 

আর মাত্র একদিন পর ১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ব্যবসায়ীদের বহুলপ্রতিক্ষিত এ নির্বাচন। সিলেট নগরীর ধোপাদীঘিরপাড়ে ইউনাইটেড কমিউনিটি সেন্টারে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ। সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন পরিচালনা বোর্ড।

নির্বাচন বোর্ড জানায়, সিলেট চেম্বারের ৪টি সদস্য ক্যাটাগরির মধ্যে অর্ডিনারি শ্রেণি থেকে ১২, অ্যাসোসিয়েট শ্রেণি থেকে ৬, ট্রেড গ্রুপ শ্রেণি থেকে ৩ ও টাউন অ্যাসোসিয়েশন শ্রেণি থেকে ১ জন পরিচালক নির্বাচিত হবেন।  এ ২২টি পদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪০ জন। 

এর মধ্যে অর্ডিনারি শ্রেণি থেকে ১৬ জন, অ্যাসোসিয়েট শ্রেণি থেকে ১২ জন, ট্রেড গ্রুপ শ্রেণি থেকে ৩ জন এবং টাউন অ্যাসোসিয়েশন শ্রেণি থেকে ১ জন প্রার্থী হয়েছেন। 

নির্বাচনে অর্ডিনারি ভোটার সংখ্যা ১৩৪৮ জন, অ্যাসোসিয়েট ১২৪২ জন, ট্রেড গ্রুপ ৯ জন ও টাউন অ্যাসোসিয়েশন ১ জন। ১১ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের পর পরিচালকদের মধ্য থেকে সভাপতি, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সহ-সভাপতি পদের নির্বাচন ১৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

৩ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান হচ্ছেন-সিলেটের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল জব্বার জলিল। ৩ সদস্যবিশিষ্ট আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রয়েছেন অ্যাডভোকেট এম. শহীদুল ইসলাম। সিলেট সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ ও সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ নামক দুটি সংগঠনের ব্যানারে দুটি প্যানেলে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন প্রার্থীরা।

সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ

অপরদিকে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ ৪ ক্যাটাগরিতেই অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় সিলেট সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদের ট্রেড গ্রুপ শ্রেণিতে বর্তমান সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব, মো. হিজকিল গুলজার ও মো. আতিক হোসেন এবং টাউন অ্যাসোসিয়েশন শ্রেণি থেকে আমিনুর রহমান নির্বাচিত হওয়ার পথে। কেবল ঘোষণা বাকী। এখন অর্ডিনারী ও এসোসিয়েট শ্রেণিতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে দুটি প্যানেলের। এছাড়া অর্ডিনারি শ্রেণিতে আরো ৪ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন।  

দুটি প্যানেলেই আরো ৪ জন শক্তিশালী প্রার্থী ছিলেন। সিলেটের অন্যতম শীর্ষ এই ব্যবসায়ী নেতারা আইনি জটিলতায় নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিলেও তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন পরিচালনা বোর্ড। তারা হচ্ছেন-সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদের এহতেশামুল হক চৌধুরী, মাসুদ আহমদ চৌধুরী, এমদাদ হোসেন ও সিলেট সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ প্যানেলের চন্দন সাহা।

সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদের তিন প্রাথীর মনোনয়ন আটকে দেওয়ার ঘটনা বর্তমান নির্বাচন বোর্ডের ‘অদূরদর্শিতা ও উদ্দেশ্যমূলক’ বলে অভিযোগ করছে সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদ। সিলেট ব্যবসায়ী পরিষদের আহবায়ক খন্দকার সিপার আহমদ বর্তমান নির্বাচন পরিচালনা বোর্ড নিরপেক্ষতা হারিয়েছে বলেও দাবি করেন।

সিলেট চেম্বার নির্বাচনকে ঘিরে সিলেটের শীর্ষ রাজনৈতিক নেতা ও প্রবীণ ব্যবসায়ী নেতারাও দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন । রাজনৈতিক নেতারা দুটি প্যানেলের সভা-সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন। সুন্দর পরিবেশের সঙ্গে উত্তেজনাও আছে ব্যবসায়ীদের নির্বাচনী এ উৎসবে।

সিলেট চেম্বারের নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার জলিল জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বিধি মোতাবেক নির্বাচন পরিচালনা করতে গিয়ে কারো স্বার্থে আঘাত পড়লে কিছু করার নেই। 

তিনি বলেন, আমি নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে কারো কথায় কর্ণপাত করছি না। সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

ঢাকা/টিপু

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়