ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৪ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৯ ||  ২২ শাওয়াল ১৪৪৩

নিজে প্রার্থী হয়েও স্বামীর জন্য ভোট চাইছেন লাকী 

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:১৮, ১৬ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৩:১৯, ১৬ জানুয়ারি ২০২২
নিজে প্রার্থী হয়েও স্বামীর জন্য ভোট চাইছেন লাকী 

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বামী-স্ত্রী দুজনই স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। স্বামী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. বুলবুল খান আনারস ও স্ত্রী মোছা. আছমা আক্তার লাকী চশমা প্রতীক পেয়েছেন। এখন স্বামীর আনারস প্রতীকে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন স্ত্রী লাকী।  

জানা গেছে, বুলবুল খান অস্ত্র মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি। যদিও সাজার আদেশের উপর উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ রয়েছে। তারপরও মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার শঙ্কায় স্ত্রীকে দাঁড় করিয়েছিলেন বিকল্প প্রার্থী হিসেবে। যাচাই-বাছাইয়ে নিজের মনোনয়নপত্র বৈধ হলে স্ত্রীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করানোর পরিকল্পনা ছিল এ চেয়ারম্যান প্রার্থীর। কিন্তু তা করেননি।

বুলবুল খান জানিয়েছেন, বৈধ ঘোষণার পরও ঝুঁকি নিতে চান না বিধায় দু’জনই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়ে গেছেন।

স্ত্রীকে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করানোর অনেক নজির রয়েছে। তবে প্রতীক নিয়ে স্বামীর সঙ্গে বোঝাপড়া করে স্ত্রীর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামার ঘটনা নজিরবিহীন। এজন্য শায়েস্তাগঞ্জ ইউপিতে স্বামী-স্ত্রীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা আলোচিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে।

ইউনিয়নের কয়েকজন বাসিন্দা জানালেন, এর আগেও হবিগঞ্জে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে স্বামীর সঙ্গে স্ত্রীকে মনোনয়নপত্র কেনার ঘটনা ঘটেছে। তবে শেষ পর্যন্ত প্রতীক নিয়ে স্ত্রীর প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকার বিষয়টি একেবারে নতুন। এনিয়ে অনেক সাধারণ ভোটার সিদ্ধান্তহীনতায় পড়তে পারেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, যেহেতু প্রতীক বরাদ্দ হয়েছে, তাই ব্যালটে স্বামী স্ত্রী দু’জনের প্রতীকই থাকবে। এখন নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার কোন বিধান নেই।

চেয়ারম্যান প্রার্থী আছমা আক্তার লাকী বলেন, নিজের স্বামীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকার ইচ্ছে আমার ছিল না। কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আমার স্বামীর মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করানোর জন্য ষড়যন্ত্র শুরু করে। তাই আমি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি। 

তবে ভোটাররা যেন চশমা প্রতীকে ভোট না দিয়ে তার স্বামী বর্তমান চেয়ারম্যান বুলবুল খানের আনারস প্রতীকে ভোট দেন সেই অনুরোধ জানান তিনি।

বুলবুল খান বলেন, একটি মামলায় আমার বিরুদ্ধে সাজার আদেশ হয়েছিল। এজন্য মনোনয়নপত্র ঝুঁকিতে থাকায় বিপাকে পড়ে স্ত্রীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামিয়েছি। ইউনিয়নবাসী তাকে ভালবেসে ভোট দেবেন বলে আশাবাদী। তার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলাটি মিথ্যা বলেও দাবি করেন বুলবুল খান।

মামুন/টিপু 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়