ঢাকা     বুধবার   ০৬ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২২ ১৪২৯ ||  ০৬ জিলহজ ১৪৪৩

‘নাগরিকত্ব-নিরাপত্তা পেলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে’

কক্সবাজার প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৩১, ২৩ মে ২০২২   আপডেট: ১৭:৩৩, ২৩ মে ২০২২
‘নাগরিকত্ব-নিরাপত্তা পেলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে’

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা তাদের নিজ দেশে (মিয়ানমার) ফিরে যেতে চান। তবে সেক্ষেত্রে তাদের কিছু দাবি রয়েছে। যদি তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দেওয়া হয়, নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়; এ ছাড়া চলাফেরার স্বাধীনতা, চাকরির সুযোগ, লেখাপড়ার অধিকার দেওয়া হয়- তবেই তারা মিয়ানমারে ফিরতে রাজি।’

রোববার (২২ মে) দুপুরে কক্সবাজারে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

ফিলিপ্পো গ্রান্ডি বলেন, রোহিঙ্গারা দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশে অনিশ্চিত জীবনযাপন করছে। তাই রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যাটাকে আরো গুরুত্ব সহকারে দেখা উচিত। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরত পাঠাতে মিয়ানমার সরকারের সাথে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা জোরদার করা।

ফিলিপ্পো গ্রান্ডি ক্যাম্পে ইউএনএইচসিআর পরিচালিত একটি কমিউনিটি সেন্টারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে তাদের চাহিদা, চ্যালেঞ্জ এবং ভবিষ্যতের প্রত্যাশা নিয়ে মতবিনিময়ে অংশ নেন। এসময় রোহিঙ্গা প্রতিনিধিরা তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন। পরে তিনি রোহিঙ্গাদের ধর্মীয় ইমাম, শিক্ষক এবং কমিউনিটি লিডারদের সঙ্গে মতবিনিময়ে অংশ নেন। এসময় কমিউনিটি লিডাররা রোহিঙ্গাদের স্বদেশে প্রত্যাবাশনের বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

ফিলিপ্পো গ্রান্ডি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তা ব্যবস্থা, রোহিঙ্গা শরণার্থী ব্যবস্থাপনা ও এ বিষয়ে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা, আন্তর্জাতিক সহায়তা, হোস্ট কমিউনিটির জন্য করণীয়সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধি, শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাশন কার্যালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তা, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন। 

জাতিসংঘের শীর্ষ এ প্রতিনিধি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করেন।

এসময় অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত, ফিলিপ্পো গ্রান্ডির সফর সঙ্গী ইউএনএইচসিআর’র এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক ইন্দ্রিকা রাতওয়াত এবং হাইকমিশনারের সিনিয়র উপদেষ্টা হারভে ডি ভিলারোশে।

২১ মে কক্সবাজার পৌঁছে জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন জাতিসংঘের ১১তম শরণার্থী বিষয়ক এই হাইকমিশনার।

আগামী মঙ্গলবার (২৪ মে) তিনি ভাসানচর পরিদর্শন করবেন এবং একইদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। ফিলিপ্পো গ্রান্ডি গত শনিবার পাঁচ দিনের সফরে বাংলাদেশে আসেন।

এর আগে, ২০১৯ সালে বাংলাদেশে এসেছিলেন ফিলিপ্পো গ্রান্ডি। তিনি ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ইউএনএইচসিআর’র প্রধানের দায়িত্বে থাকবেন বলে জানা গেছে।

তারেকুর/মাসুদ/এনএইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়