ঢাকা     রোববার   ২৬ জুন ২০২২ ||  আষাঢ় ১২ ১৪২৯ ||  ২৫ জিলক্বদ ১৪৪৩

টাঙ্গাইলে কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৪৬, ২৩ মে ২০২২  
টাঙ্গাইলে কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী গ্রেপ্তার

রিনা আক্তার মায়া

টাঙ্গাইল শহরের দেওলা এলাকায় রিনা আক্তার মায়া নামে এক কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে সোমবার (২৩ মে) সকালে তার স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। 

স্বামী ওয়াহেদুল ইসলাম প্রান্তরকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। এর আগে রোববার (২২ মে) সন্ধ্যায় ভাড়াটিয়া বাসা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। 

মায়া সরকারি কুমুদিনী কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন। তিনি কালিহাতী উপজেলা মহেলা গ্রামের হাবিল উদ্দিনের মেয়ে।
তার পারিবারিক সূত্র জানায়, গত দেড় বছর আগে শহরের বিশেষ বেতকা মুন্সিপাড়া এলাকার সামাল খাঁনের ছেলে ওয়াহেদুল ইসলাম প্রান্তর সাথে রিনা আক্তার মায়ার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাকে শারীরিক ও মানুষিকভাবে নির্যাতন করতো। এ কারণে মায়ার বাবা হাবিল উদ্দিন মেয়ের জামাতা প্রান্তরের বাবার কাছে অভিযোগ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রান্ত দেওলার ভাড়াটিয়া বাসায় যায়।

হাবিল উদ্দিন অভিযোগ করে জানান, বাসায় অন্যদের অনুপস্থিতির সুযোগে মায়ার ওপর চড়াও হয় প্রান্ত। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে সে মায়াকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর মায়ার মরদেহ গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে ডাকচিৎকার করে। প্রতিবেশিরা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। সেসময় তারা প্রান্তকেও আটক করে। ময়না তদন্তের জন্য রিয়ার লাশ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

প্রান্তর বাবা সামাল খাঁন জানান, স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়ার এক পর্যায়ে রীনা আক্তার মায়া গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে। তার ছেলে প্রান্তকে অহেতুক দোষারোপ করা হচ্ছে।

টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, এ ঘটনায় মেয়ের বাবা বাদি হয়ে প্রান্তকে আসামি করে একটি হত্যার প্ররোচনার মামলা দায়ের করেছেন। প্রান্তকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কাওছার আহমেদ/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়