ঢাকা     সোমবার   ০৪ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২০ ১৪২৯ ||  ০৩ জিলহজ ১৪৪৩

পাটুরিয়ার যাত্রীদের চোখেও আনন্দঝিলিক

জাহিদুল হক চন্দন, মানিকগঞ্জ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৩১, ২৪ জুন ২০২২   আপডেট: ১৩:৩৬, ২৪ জুন ২০২২
পাটুরিয়ার যাত্রীদের চোখেও আনন্দঝিলিক

আগামীকাল স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন। এতে করে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সাথে রাজধানী ঢাকার সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন হতে যাচ্ছে। 

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার সাথে রাজধানীর ব্যস্ততম যোগাযোগ মাধ্যম পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট। কোন উৎসব বা প্রাকৃতিক দুর্যোগে যানবাহনগুলোকে ভোগান্তি নিয়েই যাতায়াত করতে হতো। ভোগান্তি থেকে রেহাই পেতে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বেশিরভাগ জেলার যাত্রীরা সেতু দিয়ে যাতায়াত করবেন বলে জানিয়েছেন। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পদ্মা সেতু খুলে যাওয়ার আনন্দে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কোনো কোনো যাত্রীদের চোখে দেখা গেলো সুখের জল টলমল অশ্রু। 

এদিকে পাটুরিয়া ঘাট কেন্দ্রিক ব্যবসায়ীরা পদ্মা সেতু নির্মিত হওয়ায় খুশি। তবে এ নৌরুটের ব্যস্ততা কমে আসলে ব্যবসা বাণিজ্যে ভাটা পড়ার শঙ্কায় রয়েছেন তারা। এ আনন্দের পরিপূর্ণ স্বাদ পেতে বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। 

শুক্রবার (২৪ জুন) চুয়াডাঙ্গাগামী যাত্রী বিলকিস মাহমুদা বলেন, জরুরি কাজে আজ পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট হয়ে বাড়িতে যাচ্ছি। দীর্ঘ আট বছর ধরে এ নৌরুট দিয়ে যাতায়াত করি। এই আট বছরে অসংখ্যবার এ নৌরুটে ভোগান্তিতে পড়েছি। স্বপ্নের পদ্মা সেতু হওয়ায় হয়তো পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে দিয়ে আর আসা হবে না। পদ্মা সেতু হওয়ায় আমাদের জন্য অনেক আনন্দের। 

জুনাইদ আহমেদ নামের পরিবহন যাত্রী বলেন, এ নৌরুটে পরিবার নিয়ে অনেক ভোগান্তি পড়েছি। পদ্মা সেতু চালু হলে আর ভোগান্তি হবে না। তবে এ নৌরুটের অনেক স্মৃতি জীবনে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। 

এ যুগ ধরে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় টং দোকানে চা বিক্রি করে সংসার চালান মো. হানিফ মিয়া। তিনি বলেন, এ দোকান থেকে প্রতিদিন তিন হাজার টাকা পর্যন্ত বেচাকেনা করেছি। পদ্মা সেতু হওয়ায় আমরা আনন্দিত। তবে এ নৌরুটে যানবাহনের চাপ কমে গেলে বেচাকেনা কমে যাবে। ব্যবসায়ীদের বিষয়ে কিছু করতে প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই। 

মুদি দোকানদার আব্দুর রশিদ বলেন, পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় তিনশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ নৌরুটে যানবাহনের চাপ কমে গেলে বিক্রি কমে যাবে। এতে করে অনেকেই বেকার হয়ে পড়বে। তবু মানুষের আনন্দে আমারও আনন্দ লাগছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম শাহ. মো. খালেদ নেওয়াজ বলেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর বুঝা যাবে কি পরিমাণ যানবাহন কমতে পারে। তবে গাজীপুর, আশুলিয়া, সাভারের যাত্রীরা এ নৌরুট ব্যবহার করতে পারে। 

/টিপু/ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়