ঢাকা     শনিবার   ০১ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৬ ১৪২৯ ||  ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

পাট নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক 

কুমিল্লা সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৩৯, ১০ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১২:৪১, ১০ আগস্ট ২০২২
পাট নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক 

বাড়ির আঙ্গিনায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পাটের আঁশ ছাড়ানোয় ব্যস্ত এক কৃষক।

পাট চাষ করে সংসারে সচ্ছলতা ফেরানোর চেষ্টা থাকলেও এখন দুশ্চিন্তায় রয়েছেন কৃষকরা। বিশেষ করে আবহাওয়া অনুকূলে না থাকা, শ্রমিকের খরচ বৃদ্ধি এবং সার ও কীটনাশকের দাম বেড়ে যাওয়ায় ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার কৃষকরা। 

উপজেলার মাধপপুর ইউনিয়নের কান্দুঘর গ্রামের পাট চাষি মো. হানিফ মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘পাট চাষে এখন অনেক শ্রম দিতে হয়। উৎপাদন খরচও বেশি। বিক্রি করতে গেলে পাওয়া যায়না ন্যায্য দাম। তবুও এ বছর ২১ শতক জমিতে পাট চাষ কেরেছি। বীজ বপন থেকে শুরু করে পাটের আঁশ ছাড়িয়ে শুকানো পর্যন্ত অনেক টাকা খরচ হচ্ছে। এছাড়া অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে জমিতে পানি উঠায় পাট গাছের নিচের অংশ পঁচে যায়। যার কারণে নির্ধারিত সময়ের প্রায় ১ মাস আগেই পাটগাছ কেটে ফেলতে হয়েছে। ফলে ফসলের উৎপাদন ভালো হয়নি। আশা করছি ২১ শতক জমিতে ৩ মণ পাট পেতে পারি।’ 

তিনি আরো বলেন, ‘এখনো বাজারে পাটের দাম ২ হাজর ২০০ টাকা মণ। দাম না বাড়লে লোকশান হবে।’

অপর আরেক পাট চাষি আবদুল মালেক বলেন, ‘পাট চাষের উৎপাদন খরচ আগের যে কোনো  সময়ে তুলনায় এখন অনেক বেশি। বৃষ্টির কারণে প্রথমবার বীজ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় দ্বিতীয়বার জমিতে বীজ বপন করতে হয়েছে । যার কারণে খরচ বেশি হয়েছে। বাজারে পাটের দাম অনেক কম । এ বছর ১০ শতক জমিতে পাটের আবাদ করেছি। দাম ভালো পেলে আগামী বছর আরও বেশি পাটের আবাদ করবো। লোকসান হলে বিকল্প ফসল চাষ করবো।’ 

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার কৃষি কমকর্তা মো. তফাজ্জল হোসেন বলেন, প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে এ বছর অনেক কৃষক জমিতে দুই বার পাটের বীজ বপন করেছেন। পানিতে পাট গাছের নিচের অংশে পচন ধরায় নির্ধারিত সময়ের আগেই গাছ কাটতে বাধ্য হয়েছেন কৃষকরা। বর্তমান দামে পাট বিক্রি করলে কৃষকের কম লাভ হবে কিন্তু আশা করছি লোকসান হবে না।’

রুবেল/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়