ঢাকা     সোমবার   ০৩ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৮ ১৪২৯ ||  ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ রেলপথ সম্প্রসারণ এখনো অধরা

মেহেদী হাসান শিয়াম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪০, ১১ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১১:৫৯, ১১ আগস্ট ২০২২
চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ রেলপথ সম্প্রসারণ এখনো অধরা

প্রতীকী ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ পর্যন্ত রেলপথ সম্প্রসারণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে সরকার। সোনামসজিদ স্থলবন্দরের আমদানি পণ্য পরিবহন ও মানুষের রেল যোগাযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে এ পরিকল্পনা করা হয়। ইতোমধ্যে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষে দুই দফায় ঊর্দ্ধতন সরকারি কর্মকর্তাদের কাছে প্রতিবেদন দাখিলও করেন সংশ্লিষ্ট বিভাগ। কিন্তু পরিকল্পনাটি দৃশ্যমান হওয়ার আশা এখনও অধরাই আছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের ২৩ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ স্থলবন্দর পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণের ঘোষণা দেন। এরই প্রেক্ষিতে ইন্সটিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং অব বাংলাদেশ (আইবিএম) প্রতিনিধি দল সম্ভাব্য রেললাইনের বিভিন্ন এলাকা একাধিকবার পরিদর্শন করেন। একই সঙ্গে তারা তিন মাস জরিপ কাজ চালান। সোনামসজিদ স্থালবন্দর পর্যন্ত ৩১ কিলোমিটার পথে যে তিনটি রেলস্টেশন নির্মাণ করা হবে সে জায়গাও জরিপকালে নির্ধারণ করা হয়। 

২০২১ সালের জুনে সামগ্রিক সমীক্ষা কাজ সম্পন্ন হয়। সম্ভাব্যতা সমীক্ষা কাজের জন্য চুক্তিবদ্ধ পরামর্শক প্রতিষ্ঠান আইবিএম ২০২১ সালের ১৪ মার্চ সূচনা প্রতিবেদন আর একই বছরের ১ জুলাই অন্তর্বতীকালীন প্রতিবেদনও দাখিল করে। এ প্রস্তাব সরকার অনুমোদন করলে কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এখনো প্রকল্পটির অনুমোদনও মেলেনি, কাজও শুরু হয়নি।

বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প সমূহের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রকল্পের আওতায় চারটি প্রকল্পের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ অন্যতম একটি প্রকল্প।

শিবগঞ্জের পুকুরিয়া মহিলা কলেজের প্রভাষক মামুন উর-রশিদ রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেল স্টেশন থেকে সোনামসজিদ স্থলবন্দর পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণের কথা রয়েছে। যদি এ পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন হয় তাহলে মানুষ রেলপথে যাতায়াত বেশি করবে। ভারত-বাংলাদেশের যাতায়াতের ক্ষেত্রেও বিশাল অবদান রাখবে এই রেলপথ। এতে সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে।’

আজিজুর রহমান নামের এক আমদানিকারক বলেন, ‘সোনামসজিদ পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণ করলে ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্য রেলপথে দেশের সব জায়গায় পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। এতে সময় খুব কম লাগবে, পচনশীল পণ্যের ক্ষতি হবে না। আর ভাড়াও কম লাগবে।'

ইন্সটিটিউট অব ওয়াটার মডেলিং অব বাংলাদেশ (আইবিএম)-এর সার্ভেয়ার সানোয়ার বলেন, ‘বছর খানেক আগে জরিপের প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জমা দেওয়া হয়েছে। যে সব জায়গা দিয়ে রেললাইন সম্প্রসারণ হবে, সেসব জায়গার বিষয়ে ৩ মাস জরিপ চালানো হয়। ওই সময়ে আমরা বিভিন্ন জায়গায় পিলারও পুঁতে রাখি।'

রাজশাহী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘পরিকল্পনাটির কথা শুনেছি। কিন্তু এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো আলোচনা শুনতে পাইনি। অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে যোগাযোগ করলে, এ কাজের অগ্রগতির বিষয়ে তিনি বলতে পারবেন।'

রাজশাহী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (পথ) আসাদুল বলেন, ‘জমি মাপার কাজ সম্পন্ন করে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। এখন প্রতিবেদনের উপর স্টাডি চলছে।'

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ জেলার প্রতি সুদৃষ্টি রয়েছে। কিছু অসাধু রেলের কর্মকর্তারা এ অঞ্চলের উন্নয়ন চান না।'

চাঁপাইনবাবগঞ্জ -৩ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর) আসনের সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ বলেন, ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে সোনামসজিদ স্থলবন্দর পর্যন্ত রেললাইন সম্প্রসারণ পরিকল্পনার কথা আমার জানা নেই। রেলের এমন কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা তাও আমি জানি না।’

মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়