ঢাকা     বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৯ ||  ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

পৌর মেয়র দানুর বিরুদ্ধে ৫৪ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলা 

নীলফামারী প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৩০, ২৩ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ২১:১৫, ২৩ আগস্ট ২০২২
পৌর মেয়র দানুর বিরুদ্ধে ৫৪ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলা 

মনছুরুল ইসলাম দানু

নীলফামারীর ডোমার পৌর মেয়র মনছুরুল ইসলাম দানু, অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অর্থআত্মসাতের মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 

অগ্রণী ব্যাংক নীলফামারী শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক রথীন্দ্র নাথ ও ডোমার শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলামকে এ মামলার আসামি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে রংপুর দুদক কার্যালয়ে দুদক রংপুর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক হোসাঈন শরীফ বাদী হয়ে মামলা করেছেন।

দুদক রংপুর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক হোসাঈন শরীফ মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মেয়র দানু চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পোর্ট ড্যামারেজ বাবদ ২৭ কোটি এবং শুল্ককর বাবদ ৪ কোটি ১০ লাখ টাকাসহ মোট ৩১ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং অগ্রণী ব্যাংক নীলফামারী শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক রথীন্দ্র নাথ, ডোমার শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম এবং মেয়র মনছুরুল ইসলাম যৌথভাবে ২৩ কোটি ৩৪ লাখ সরকারি টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, মেয়র মনছুরুল ইসলাম দানু ‘শাওন অটো ব্রিকস লিমিটেডের’ নামে ১৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। ঋণের মঞ্জুরিপত্রের শর্ত মোতাবেক ঋণের প্রথম কিস্তি বিতরণের পর ওই অর্থের ব্যবহার বিষয়ে নিশ্চিত হয়ে দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের নির্দেশনা ছিল। তবে অগ্রণী ব্যাংক নীলফামারী ও ডোমার শাখার সাবেক দুই শাখা ব্যবস্থাপক ঋণের মঞ্জুরিপত্রের শর্ত না মেনে মনছুরুল ইসলাম দানুর চাহিদা মোতাবেক মঞ্জুরিকৃত ঋণের পুরো টাকা বিতরণ করেন। এতে চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ব্যাংকের সুদাসলে পাওনা ২৩ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ক্ষতিসাধন হয়, যা সরকারি অর্থআত্মসাতের শামিল।

মেয়র মনছুরুল ইসলাম দানু এলসির মাধ্যমে ২০১৬ সালের ২৩ জুন ও ১৩ আগস্ট মালামাল আমদানি করলেও চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ওই মালামাল গ্রহণ করেনি। এতে চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পোর্ট ড্যামারেজ বাবদ ২৭ কোটি এবং শুল্ককর বাবদ ৪ কোটি ১০ লাখ টাকাসহ মোট ৩১ কোটি ১০ লাখ টাকা পাওনা হয়। এই টাকা পরিশোধ না করে সরকারের আর্থিক ক্ষতিসাধন সরকারি অর্থআত্মসাতের শামিল, যা আইনগত শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এ বিষয়ে দুদক রংপুর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক হোসাঈন শরীফ রাইজিংবিডিকে বলেন, সব কিছু খতিয়ে দেখার পর দুদক আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। 

মনছুরুল ইসলাম দানু নীলফামারীর ডোমার পৌরসভার টানা তিন বার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সিথুন/বকুল 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়