ঢাকা     বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৯ ||  ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই

পাবনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:৪২, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২   আপডেট: ১১:৩০, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২
ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা ছিনতাই

কামরুল ইসলাম খোকন

পাবনায় এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। পরে তাকে ঢাকার সাভারে নিয়ে গিয়ে মহাসড়কের পাশে ফেলে দেওয়া হয়। 

শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম। 

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে সদরের হাজিরহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অপহরণরে শিকার কামরুল ইসলাম খোকন (৪৮) আতাইকুলা থানার মধুপুর এলাকার মৃত শাহজাহান প্রামানিকের ছেলে। তিনি ফেব্রিক্স ব্যবসায়ী। 

ভুক্তোভোগীর পরিবার জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে ইসলামী ব্যাংক আতাইকুলা শাখা থেকে ১০ লাখ টাকা উত্তোলন করেন কামরুল। পরে তিনি মোটরসাইকেলে করে পাবনা শহরের আরিফপুর হাজিরহাটের গেঞ্জি ব্যবসায়ী সুমনের দোকানে যান। সুমনকে না পেয়ে ফোন করলে সুমন জানান, শহর থেকে আসতে তার আধাঘণ্টা সময় লাগবে। এর কিছুক্ষণ পর ব্যবসায়ী কামরুল টার্মিনালে উদ্দেশ্যে রওনা হন। এসময় তাকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেয় অপহরণকারীরা। রাতে বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন সদর থানায় যোগাোযোগ করে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধারের জন্য আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সব জায়গায় অভিযান চালায়।

শুক্রবার দুপুরে ঢাকার সাভার এলাকায় মহাসড়কের পাশে অচেতন অবস্থায় কামরুলকে পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ল্যাব জোন হাসপাতালে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সন্ধ্যার দিকে পাবনা পাঠিয়ে দেয়। বর্তমানে তিনি পাবনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কামরুল বলেন, বিভিন্ন দেশে ফেব্রিক্সের মালামাল সরবরাহ করায় শহরের বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে চলাফেরা করতে হয়। এরই জন্য বৃহস্পতিবার ব্যাংক থেকে ১০ লাখ টাকা তুলে মালামাল কিনতে আসছিলাম। হাজিরহাটের ফেব্রিক্স ব্যবসায়ী সুমনের দোকানের সামনে মোটরসাইকেল রেখে টার্মিনালের দিকে যাওয়ার পথে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে চোখমুখ বেঁধে আমাকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে ঢাকার সাভারে ফেলে যায় অপহরণকারীরা। 

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি। শিগগিরই আসামিদের খুঁজে বের করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। 

শাহীন/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়