ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৯ ||  ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

জেলা পরিষদ নির্বাচন: খুলনার তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীই বিত্তশালী

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৫৪, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২   আপডেট: ১৪:০০, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২
জেলা পরিষদ নির্বাচন: খুলনার তিন চেয়ারম্যান প্রার্থীই বিত্তশালী

(বাঁয়ে) শেখ হারিুনর রশিদ, ডা. শেখ বাহারুল আলম ও (ডানে) এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারা

খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী তিন প্রার্থীই স্নাতক উত্তীর্ণ। একই সঙ্গে তারা অর্থ-বিত্তশালী। তবে সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান প্রশাসক শেখ হারুনুর রশীদ ও তার স্ত্রীর অর্থের পরিমাণ বেশি।  

মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমা দেওয়া আয় ও সম্পদের বিবরণসহ ৮টি তথ্য জমা দিয়েছেন প্রার্থীরা। হলফনামার তথ্যে দেখা গেছে, এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, স্বতন্ত্র দুই প্রার্থী এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারা এবং ডা. শেখ বাহারুল আলম তিন জনই স্নাতক উত্তীর্ণ। শেখ হারুনুর রশীদের আয়ের উৎস বাড়ি ভাড়া, জেলা পরিষদের পারিতোষিক আয়, কৃষি আয়, এফডিআর ও সঞ্চয়পত্রের সুদ। 

এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারার আয়ের উৎস হিসেবে ঠিকাদারি, কার্গো ব্যবসা, কয়লা পাইকারি ব্যবসা, কৃষি ও এফডিআর সুদকে উল্লেখ করেছেন। 

বিএমএর পুননির্বাচিত সভাপতি ডা. বাহারুল আলম পেশা হিসেবে চিকিৎসা এবং ব্যবসা হিসেবে এপিসি ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেডের তথ্য উল্লেখ করছেন। 

তিন প্রার্থীর মধ্যে শেখ হারুনুর রশীদ ও ডা. বাহারুল আলমের বিরুদ্ধে অতীতে কোনো মামলা ছিলো না। ইতোপূর্বে এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারার বিরুদ্ধে ৩টি মামলা ছিলো। সবগুলোতেই তিনি খালাস পেয়েছেন।

হলফনামায় দেখা গেছে, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদের বার্ষিক আয় ৫০ লাখ টাকা। তিনি প্রতিবছর কৃষি খাত থেকে ১১ লাখ ৬০ হাজার, বাড়ি ও দোকানভাড়া থেকে ১১ লাখ ২০ হাজার টাকা, শেয়ার, সঞ্চয়পত্র ও ব্যাংকের সুদ থেকে ১৯ লাখ ২৫ হাজার টাকা আয় করেন। এছাড়া জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে প্রতি মাসে ৫৪ হাজার টাকা এবং মুক্তিযোদ্ধা ভাতা হিসেবে ১৫ হাজার ৩৩৩ টাকা পান।

অস্থাবর সম্পদের মধ্যে শেখ হারুনুর রশীদের কাছে নগদ ২ লাখ টাকা, ব্যাংকে জমা ৫৯ লাখ ৬৩ হাজার টাকা, সঞ্চয়পত্র বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ২ কোটি ৯৩ লাখ ও ২০ তোলা স্বর্ণ রয়েছে। স্থাবর সম্পদের মধ্যে তার কৃষি জমি রয়েছে ৮ দশমিক ৬১ একর।

হলফনামায় নির্ভরশীলদের সম্পদের তথ্য উল্লেখ করেছেন প্রার্থীরা। এর মধ্যে শেখ হানুরুর রশীদের স্ত্রীর কাছে নগদ ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা, ব্যাংকে ৫০ লাখ ৬ হাজার টাকা, ৫০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ও স্থায়ী আমানত, সাড়ে ৯ লাখ টাকা মূল্যের একটি গাড়ি এবং ৫০ তোলা স্বর্ণ রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

হলফনামায় দেখা গেছে, ক্রীড়া সংগঠক ও সাবেক খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারার বার্ষিক আয় ১৪ লাখ ৪২ হাজার টাকা। এর মধ্যে কৃষি খাত থেকে বছরে ২০ হাজার, ব্যবসা থেকে ১০ লাখ ৭৫ হাজার এবং এফডিআর সুদ থেকে ৩ লাখ ৪৬ হাজার টাকা আয় করেন তিনি। দারার কাছে নগদ ৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা, ব্যাংকে ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ৫০ লাখ টাকার এফডিআর রয়েছে। এছাড়া ৮৫ লাখ টাকা মূল্যের একটি কার্গো ও ১৩ লাখ ৭৬ হাজার টাকা দামের গাড়ি রয়েছে তার। বেসিক ব্যাংকে তার ঋণ রয়েছে ২ কোটি ৫৩ লাখ টাকা।

হলফনামায় দারার স্ত্রী কাছে নগদ সাড়ে ৪ লাখ টাকা এবং ১২ তোলা স্বর্ণ রয়েছে বলে তিনি হিসাব দিয়েছেন।

অপর প্রার্থী ডা. শেখ বাহারুল আলম এমবিবিএস উত্তীর্ণ। চিকিৎসা পেশা ও ওষুধ ব্যবসা থেকে তার বার্ষিক আয় ১০ লাখ টাকা। তার কাছে নগদ ৬ লাখ ৭ হাজার টাকা, ব্যাংকে ২৪ লাখ এবং ৯ লাখ ১১ হাজার টাকার শেয়ার রয়েছে। দুটি গাড়ি রয়েছে তার। তবে গাড়ির মূল্য তিনি উল্লেখ করেননি। 

এদিকে, নির্বাচনকে ঘিরে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মধ্যে অভ্যন্তরীণ চাপ বিরাজ করছে। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শেখ হারুনের বিপক্ষে একই ঘরানার দুজন প্রতিদ্বন্দ্বি থাকায় তিনি কিছুটা অস্বস্থিতে আছেন।

আগামী ১৭ অক্টোবর খুলনা জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নূরুজ্জামান/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়