RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৭ ||  ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২

বিশ্ববিদ‌্যালয়ে সংকট এবং কিছু কথা

জুয়েল মামুন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪৬, ৮ নভেম্বর ২০১৯   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
বিশ্ববিদ‌্যালয়ে সংকট এবং কিছু কথা

আরবের বিভিন্ন দেশে ২০১০ সালে যে গণবিপ্লব হয়েছিল পশ্চিমারা তার নাম দিয়েছিল আরব বসন্ত।  সম্প্রতি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের প্রায় ৮টি পাবলিক এবং প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের আন্দোলনও অনেকটা আরব বসন্তের মতো।

উপাচার্যদের লাগামহীন লুটপাট, দুর্নীতি অনিয়ম ও আত্মীয় প্রীতির বিরুদ্ধে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সুন্দর বাংলাদেশের ইঙ্গিত বহন করে।

অক্টোবরে আন্দোলনের মুখে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ক্যাম্পাস ছেড়েছেন। শিক্ষার্থীদের যে মনে হলেই রাজাকারের বাচ্চা বলা যাবে না, তা তিনি শিক্ষার্থীদের টানা ৩৫ দিনের আন্দোলনে হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছেন। তিনি হয়তো এই লজ্জায় কিছুটা হলেও বদলে গেছেন। তবে বদলে যাননি অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা।  বদলে গেলে বর্তমানে আর এ সংকটে পড়তে হতো না অন‌্যান‌্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের।

অন্যায় অনিয়মের বিরুদ্ধে আন্দোলন হলেই একদল লোক রাজাকার খোঁজেন, জামায়াত খোঁজেন, শিবির খোঁজেন। কিন্তু কেন খোঁজেন? এর মূল কারণটা এমনও হতে পারে যে, আন্দোলনকারীদের জামায়াত শিবির বললে নিজে দুধের ধোয়া তুলসীপাতা হওয়া যায়। অথবা ব্যক্তিস্বার্থ হাসিলের জন্য এই জামায়াত শিবিরের গন্ধ খোঁজা হতে পারে।  আসলেই কি তাই?

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য কেন জামায়াত শিবির খোঁজছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে অনেকে বলেছেন, যারা জীবনভর বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের জন্য লড়াই করেছেন, তাদেরকে জামায়াত-শিবির বলা বেমানান।  শুধু ভিসিত্ব রক্ষা করার জন্যেই তিনি এমন মন্তব্য করতে পারেন।

যারা জীবনভর সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন তাদেরকে এমন ট্যাগ দেয়ার উদ্দেশ্যটা কী হতে পারে? এমনও হতে পারে, যোক্তিক আন্দোলনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা, না হয় নিজে বিপদ মুক্ত হয়ে আন্দোলনকারীদের বিপদে ফেলা। তবে এই প্রশ্নের উত্তর জাহাঙ্গীরনগরের ভিসি ভালো বলতে পারবেন।

এত কিছুর পরেও শিক্ষার্থীরা দিনভর আন্দোলন করছে, রাতভর কনসার্ট করেছেন।  আমার মনে হয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বসন্ত এসেছে।  শিক্ষক শিক্ষার্থীরা দুর্নীতিবাজ প্রশাসন চায় না।

লাগামহীন দুর্নীতি আর অনিয়মের বিরুদ্ধে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা ঐক্যবদ্ধ হওয়া শুরু করেছেন।  টানা ৮ দিন ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ কণ্ঠে প্রতিবাদ করে যাচ্ছেন।  সুতরাং বলা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আসলেই বসন্ত এসেছে।

লেখক:  শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।


রাবি/জুয়েল মামুন/হাকিম মাহি/সাইফ

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়