ঢাকা     সোমবার   ০৩ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ১৯ ১৪২৭ ||  ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

risingbd-august-banner-970x90

টিউশনের গল্প-১

আর ফোন করেননি…

|| রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৫১, ৯ জুলাই ২০২০  

যেহেতু স্টুডেন্ট অবস্থায়ই বিয়ে করেছিলাম, সেজন্য টিউশনটাই ছিল আয়ের একমাত্র উৎস। টিউশনের ফাঁকে ফাঁকে যতটুকু সময় পেতাম, ততটুকু সময় গান, কবিতা আর নিজের বিনোদন চর্চা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যেতাম। বউকে সময় দিতাম।

চলুন আসল গল্পে যাই। ওটা ছিল আমার পুরান ঢাকায় একেবারে প্রথম টিউশন। আর টিউশন ক্যারিয়ারের তৃতীয়। দুজন ছিল টুইন বাচ্চা। দুজনই ক্লাস থ্রিতে পড়তো। পুরান ঢাকার স্থায়ী বাসিন্দা। মিটফোর্ড হাসপাতালের পাশেই তাদের বিরাট বাড়ি। বাবা বেশ বড় ব্যবসায়ী।

কোরবানি ঈদের দেড়মাস আগে ওখানে টিউশন শুরু করলাম। সপ্তাহে ৫ দিন যাই। বেতন নির্ধারণ হলো ৪ হাজার টাকা। আমি তখন ভীষণ অভাবী মানুষ। মাকে আর বউকে নিয়ে একাই যুদ্ধ করে যাচ্ছি। খুব কঠিন সময়। সে সময় ৪ হাজার টাকা মানে আমার কাছে চার লাখ টাকা! খুব মনোযোগ দিয়ে পড়ানো শুরু করলাম। একদিনও মিস করি না। নিজের ক্লাসে ঠিকমতো যাই না, কিন্তু টিউশনে একদম ঠিকঠাক। মাত্র তিনটা টিউশন করি তখন। দুটোতে আড়াই হাজার করে পাঁচ হাজার, আর এই নতুনটাতে মাস শেষ হলে পাবো চার হাজার।

আমি প্রতিদিন যাই, পড়াই, আর ক্যালেন্ডারের দিকে নজর দেই, কবে মাস শেষ হবে? মাস শেষ হলে ৪ হাজার টাকা। সামনে আবার ঈদ।

দুপুরে কোনো রকম চারটা ডালভাত খেয়ে বাসা থেকে বের হয়ে যেতাম, ফিরতাম সন্ধ্যার অনেক পর। মনে মনে আরও টিউশনও খুঁজতাম।

অবশেষে সেই ৪ হাজার টাকার টিউশনের মাস শেষ হয়ে এলো। অন্য দুটো টিউশনের টাকা অলরেডি পেয়ে গেছি। সামনেই কোরবানি ঈদ। কোরবানি দেওয়ার সামর্থ্য নেই, কিন্তু মা আর বউকে তো দুটো নতুন শাড়ি কিনে দেওয়াই যায়। কিনে দিলাম। বাকি কিছু টাকা দিয়ে সামান্য বাজার করে রাখলাম ঈদের জন্য। টাকা প্রায় শেষ। এখন শুধু আশায় আছি সেই ৪ হাজার টাকার জন্য।

মাস শেষ হয়ে গেলো। বেতনের খবর নাই। প্রতিদিন যাচ্ছি, কিন্তু কিছুই বলে না কেউ। ঈদের বাকি আর ৭দিন। সাধারণত এসময় স্টুডেন্ট ছুটি নিয়ে নেয় বা দিতে হয়। আমি তবুও যাচ্ছি, বেতনটা যে আমার লাগবেই। ৪ হাজার টাকা! এটা ছাড়া চলবো কী করে? টাকাও তো শেষ।

ঈদের ঠিক তিনদিন আগে দরজা ঠেলে স্টুডেন্টের মা সামনে এলেন। আমি ভাবলাম, যাক ছুটিও পাচ্ছি, টাকাও পাবো আজ। হাসিমুখে সালাম দিলাম। উনিও হাসিমুখে কুশল বিনিময় করলেন।

এরপর বলতে লাগলেন, ‘স্যার আপনে আবার ঈদের পর থেইকা ওদের পড়াইয়েন, আমরাই কল দিবোনে’। এইটুকু বলে উনি কিছুটা থামলেন। আমি ভাবতে লাগলাম, এই বুঝি বেতনটা তুলে দেবেন। উত্তেজনা বাড়ছে আমার।

উনি আবার শুরু করলেন, ‘স্যার ওদের বাবার ব্যবসার অবস্থা ভালো না, প্রতিবছর তিনটা গরু কোরবানি দেই, এইবার দেড়লাখ টাকা দিয়া মাত্র দুইটা কিনতে পারছে, তাই স্যার কিছু মনে কইরেন না, আপনের বেতনটা ঈদের পরেই দিবোনে’।

টেবিলের উপরে দুটো মিষ্টি রাখা। খেতে বলে উনি বিদায় নিলেন। আমি স্তব্ধ। উনাদের দেড় লাখ টাকার গরু কেনা সত্ত্বেও আফসোস, অথচ আমি মাত্র ৪ হাজার টাকার জন্য এত আফসোস করবো! একজন টিউশন করে বেড়ানো শিক্ষকের আবার কিসের ঈদ?

চোখ ভিজে আসছিল, বুঝতে পারছিলাম এখনি গাল বেয়ে পড়বে হয়তো। কোনরকম সামলে নিয়ে সেই বাসা থেকে বেরিয়ে এলাম। গ্যারেজের সামনে দুটো কালচে লাল রঙের গরু বাঁধা। সেই দেড় লাখ টাকার গরু!

ঈদের পর আর সেই টিউশনে যাইনি। উনারাও আর ফোন করেননি। সত্যি বলছি ফোন করেননি! বাচ্চা দুটোর জন্য মায়া হতো মাঝেমধ্যেই, ওরা আমাকে ভীষণ পছন্দ করেছিল। প্রাপ্তি ওটাই...

 

ঢাকা/সেফু/মাহি

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়