ঢাকা     শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১০ ১৪২৭ ||  ০৭ সফর ১৪৪২

জন্মদিন পালনের এ কি হাল

শেখ নাসির উদ্দিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৪৯, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:০১, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
জন্মদিন পালনের এ কি হাল

প্রতিটি মানুষের কাছে জন্মদিন একটি বিশেষ দিন। দশ মাস দশ দিন মাতৃগর্ভে থাকার পর পৃথিবীর আলো দেখি আমরা। এজন্য মা-বাবার কাছে সন্তানের ঋণের শেষ নেই। তাই জন্মদিনটি প্রতি বছর ভিন্নভাবে পালন করতে চেষ্টা করে সবাই। মানুষের দোয়া আর শুভ কামনা কুড়িয়ে নতুন বছর শুরু হয়।

পরিবার কখনো আমার জন্মদিন পালন করেনি। সেটা নিয়ে তাদের প্রতি আমার ক্ষোভ বা অভিযোগ কিছুই নেই। অভাব-অনটনের সংসারে তারা কি বা করবে! তাদের জন্য এই পৃথিবীর সুন্দর আলো দেখতে পারছি সেটাই কম কিসে? আমি তাদের কাছে ঋণী। এই ঋণ কখনো শোধ হবে না। শুধু বলবো-ভালোবাসি মা-বাবা তোমাদের।

নিজের জন্মদিনের অনুষ্ঠান না হলেও ছোটবেলা থেকে অন্যের জন্মদিনের অনুষ্ঠান দেখেছি। এদিনের আগেই দাওয়াত পৌঁছে যেত আত্নীয়-স্বজনের বাড়ি। দিনটি উপলক্ষে বাড়ি-ঘর ভালোভাবে সাজানো হতো। থাকত ভুড়িভোজের বিশাল আয়োজন। ছোট ছেলে-মেয়েদের হই হুল্লোড়ে মুখরিত হয়ে ওঠতো বাড়ির আঙ্গিনা। রাতে কেক কাটা। তারপর শুরু হতো নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দিনগুলো কতো মধুর ছিল!

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে জন্মদিনেও এখন এসেছে ভিন্নতা। কখনো কখনো বর্বরতা। পারিবারিক আয়োজন তেমন একটা চোখে পড়ে না এখন। রেস্টুরেন্ট কিংবা রিসোর্টে গিয়ে আয়োজন করা হয় জন্মদিন। কেবল বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে চলে ঘণ্টা খানেকের জন্মদিন উদযাপন। নেই আগের মতো সুস্থ বিনোদন।

কোচিং শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে দেখি, একজন স্কুল ছাত্রকে বেশ কজন ছাত্র ধরে নিরিবিলি গলিতে নিয়ে যাচ্ছে। ভাবলাম ছেলেটি নিশ্চয়ই কিছু করেছে। এইজন্য অনেকে মিলে পেটানোর জন্য নিয়ে যাচ্ছে। আমি ওদের পিছু নিলাম। ওই ছেলেটিকে গাছের সঙ্গে বেঁধে তার মাথায় ডিম ভাঙ্গা হচ্ছে। আর আরেকজন মাথায় আটা দিয়ে দিলো। আরেকটা ছেলে লাল রঙ মেশানো পানি দিলো। তখনো আমার কাছে অজানা এখানে হচ্ছেটা কী?

আজ তার জন্মদিন। তাই তার মাথায় ডিম ভেঙে আটা ঢেলে কেক বানানো হচ্ছে। ব্যাপারটা অমানবিক হলেও ওরা বেশ উপভোগ করছে মনে হলো। মানুষকে কষ্ট দেওয়ার মাঝে কোনো আনন্দ নেই। কষ্টে থাকা মানুষের কষ্ট দূর করার মাঝে আনন্দ আছে।

সারাদেশে জন্মদিন পালনের অপসংস্কৃতির নামে খাদ্যের অপচয় হচ্ছে। সবার মনে রাখা উচিৎ, এখনো মানুষ খাবারের অভাবে না খেয়ে থাকে। জন্মদিনে ডিম আর আটা নষ্ট না করে সেগুলো কোনো ক্ষুধার্ত মানুষকে উপহার দাও। তোমাদের জন্য তারা দোয়া করবে আজীবন।

লেখক: এইচএসসি পরীক্ষার্থী, ছাফদার আলী কলেজ, মির্জাপুর। 

টাঙ্গাইল/মাহফুজ/মাহি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়