RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ১২ ১৪২৭ ||  ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

যে কারণে পর্তুগালের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণায় এগিয়ে

সাফায়েতুল হক চৌধূরী || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:০৭, ১৩ জানুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৬:২০, ১৩ জানুয়ারি ২০২১
যে কারণে পর্তুগালের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো গবেষণায় এগিয়ে

ইউরোপের প্রাচীনতম দেশ হিসেবে পর্তুগাল পড়ালেখার জন্য একটি আদর্শ দেশ। বিশেষত রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়া ও সামুদ্রিক সৈকতের জন্য এই দেশটি সারাবিশ্বে বহুল পরিচিত। পর্তুগিজরা জীবনটাকে উৎসবের মধ্যে দিয়ে উদযাপন করতে খুব বেশি পছন্দ করেন। প্রায় সময় তাদের স্থানীয় উৎসব চলতে থাকে।

পর্তুগিজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একাধিক উচ্চ শিক্ষার জন্য সর্বপরি সক্রিয়। থিওরিক্যাল বিষয়ের পাশাপাশি প্রাকটিক্যাল বিষয়ের পড়ালেখার ব্যাপারে তারা সবসময় নজরদারি রাখে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব গবেষণা কেন্দ্র রয়েছে। সারাবিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গবেষণা কেন্দ্রের মধ্যে এক শতাংশেরও বেশি অবদান রয়েছে পর্তুগালের।

এখানে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা শেষ করার পর স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষানবিশ কার্যক্রমের সুযোগ পায়। এখানকার শিক্ষানবিশ শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করার জন্য বিশেষজ্ঞ কর্মী রয়েছে।

ইউরোপের অন্যান্য দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে পর্তুগালে পড়ালেখার খরচ খুবই কম। এক বছরে বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে ৫০০-৫০০০ ইউরো পর্যন্ত পড়ালেখায় খরচ হয়ে থাকে। কিন্তু স্থানীয় শিক্ষার্থীদের তুলনায় আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার খরচ খানিকটা বেশি হয়ে থাকে। শিক্ষার্থীদের সেখানে থাকা-খাওয়ার খরচ অনেক কম হয়।

পর্তুগিজ ভাষার গুরত্ব ইউরোপের আরো দশটি দেশের মধ্যে রয়েছে, কারণ এই ভাষাটি পর্তুগাল ছাড়াও অন্যান্য ১০টি দেশের মধ্যেও ব্যবহার হয়ে থাকে। এই ভাষা শেখা আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ। বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক কোম্পানিগুলোতে চাকরির জন্য ইংরেজি ভাষার পাশাপাশি পর্তুগিজ ভাষার গুরুত্ব দেওয়া হয়।

পর্তুগালে স্নাতক ডিগ্রির সঙ্গে বায়ো-টেকনোলজি, মেডিসিন ও সামাজিক বিজ্ঞানের উপর পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের সুযোগ রয়েছে। এগুলোর পাশাপাশি ইংরেজি ও কম্পিউটার বিষয়ের উপর ডিগ্রি অর্জনের সুযোগও রয়েছে।

পর্তুগালে প্রায় ৫০টি বিশ্ববিদ্যালয়, ৮০টি পলিটেকনিক্যাল কলেজ ও ৬টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ও পলিটেকনিক্যাল কলেজগুলোর মধ্যে পার্থক্য হলো- বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে থিওরিক্যাল পড়ালেখার পাশাপাশি গবেষণা করানো হয়, কিন্তু পলিটেকনিক্যাল কলেজগুলোতে শুধু গবেষণার মাধ্যেমেই পড়ালেখা করানো হয়ে থাকে।

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের পর্তুগালে পড়ালেখা করার জন্য ইংরেজি ভাষার উপর যথেষ্ট পারদর্শী হতে হয়। সেখানে পড়ালেখা করার জন্য ইংরেজি ভাষার উপর পরীক্ষা দিতে হয়। সাধারণত পিটিই একাডেমিক, আইইএলটিএসম, টোফেল, সি-১ এডভান্স ইত্যাদি কোর্সের উপর পরীক্ষা হয়ে থাকে।

ঢাকা/সাফায়েত/মাহি 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়