Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

শিমুল বাগানের ফুলকন্যা মনিরা-চামেলি

আশরাফ আহমেদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:০২, ৪ মার্চ ২০২১  
শিমুল বাগানের ফুলকন্যা মনিরা-চামেলি

ছবি তুলতে যাব, এমন সময় দৌড়ে আসে শিমুল বাগানের দুই ফুলকন্যা। ‘ভাইজান একটা মালা নিয়া ছবি তুলেন ভালা লাগব’। মালা দিয়ে ছবি তুললে ভালো লাগে বুঝি? ‘হ ভালা লাগে’। আচ্ছা তাহলে দাও। ছবি তুলে শিমুল ফুলের মালাটা পুনরায় তার হাতে দিয়ে বললাম, কত দেবো ভাইয়া? ‘১০ টাকা দিয়া দেন’। ২০ টাকার একটা নোট হাতে ধরিয়ে দিয়ে জিজ্ঞেস করি, তোমাদের নাম কী? মুচকি একটা হাসি দিয়ে ফুলকন্যারা উত্তর দেয় মনিরা, চামেলি। তারপর খানিকক্ষণের গল্প।

মনিরা বেগম এবং চামেলি আক্তার। দুজনের বয়সই সমান। ৮ বছরের এই মেয়ে দুটির বাড়ি সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের মানিগাঁও গ্রামে। দেশের সর্ববৃহৎ শিমুল বাগান থেকে ১০ মিনিট হাঁটলেই পৌঁছা যাবে মনিরা-চামেলিদের বাড়িতে।

তাহিরপুরের বাদাঘাট ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান প্রয়াত জয়নাল আবেদীন জাদুকাটা নদীর তীরে প্রায় ৩৩ একর জায়গাজুড়ে রোপণ করেছিলেন তিন হাজারের মতো শিমুল গাছ। ২০০২ সালে তৈরি করা প্রকৃতি প্রেমী জয়নাল আবেদীনের এই বাগানে এখন লাল টকটকা শিমুল ফুল ফোটে। ওপারে ভারতের মেঘালয় পাহাড়, মাঝে যাদুকাটা নদী, আর এপারে শিমুল বাগান। 

দূর থেকে রক্তের আভার মতো দেখতে এই শিমুল ফুলের বাগানটি মুগ্ধ করে সবাইকে। সুনামগঞ্জ শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে ঋতুরাজের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাসন্তী সাজে সেজেছে জাদুকাটা নদীর বালুময় এই জায়গাটি। শিমুল ফুলের এই যৌবন দেখতে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে হাজারো পর্যটক ছুটে আসছেন জাদুকাটার তীরে।

শিমুল বাগানকে কেন্দ্র করে এই এলাকার অনেক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। কেউ ফুলের মালা বিক্রি করেন, কেউ ছবি তুলেন, কেউ আবার ঘোড়া নিয়ে আসেন। অর্থাৎ নানাভাবে শিমুল বাগানে আসা পর্যটকদের বিভিন্ন ধরনের বিনোদনের খোরাক দিচ্ছেন এলাকার মানুষজন। তাদেরই দুজন মনিরা ও চামেলি। উভয়ই স্থানীয় প্রাইমারি স্কুলে ৩য় শ্রেণিতে পড়ে। সেইসঙ্গে ভালো বন্ধুও। মনিরা ও চামেলির মা জাদুকাটা নদীতে বালু উত্তোলনের কাজ করেন। আর এদিকে সকাল-সন্ধ্যা দুই বান্ধবী ঘুরে বেড়ায় শিমুল বাগানের ৩৩ একরে। সীমান্তঘেঁষা এলাকায় খুবই দুর্বিসহ জীবন তাদের।

মনিরা বলে, স্কুল বন্ধর লাগি সকালে ২০ টেখা (টাকা) দিয়া বাগানে ঢুকি। পরে বাগানের ফুল তুকাইয়া (কুঁড়িয়ে) মালা বানাই। এই ফুলের মালা মাথায় দিয়া মানুষে ছবি তুলে এর বিনিময়ে আমাদের ১০ টেখা দেয়। এভাবে সারাদিনে ১৫০-২০০ টাকা ইনকাম হয়। বাড়ি ফিরে সব টেখা মার কাছে দিয়া দেই’। 

চামেলি বলে, ফুলের মালা বানাই দেখে অনেকে আমাগো ফুলকন্যা বইলা (বলে) ডাকে। কথাগুলো বলেই খিলখিলিয়ে হেসে ওঠে তারা।

ভুবন জুড়ানো সেই হাসিটা অসম্ভব রকমের সুন্দর। যেন প্রকৃতির অনবদ্য কাব্য শিমুল বাগানের সঙ্গে খেলা করছিল মনিরা-চামেলির দাঁত কেলিয়ে খিলখিলানিটা। সকাল সন্ধ্যা পর্যটকদের বিনোদনের খোরাক যুগিয়ে সংসার চালায় শিমুল বাগানের মনিরা ও চামেলি। লাল টকটকে শিমুলের রক্তিম আভার সঙ্গে সারাটা দিন এভাবেই মিশে থাকে বাদাঘাটের এই ফুল কন্যারা।  

লেখক: শিক্ষার্থী, দর্শন বিভাগ, এমসি কলেজ সিলেট ও ক্যাম্পাস সাংবাদিক।

সিলেট/মাহি 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে