Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ১৬ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ২ ১৪২৮ ||  ০৩ জিলক্বদ ১৪৪২

ইউনিভার্সিটি রোভার চ্যালেঞ্জে চ্যাম্পিয়ন এমআইএসটি’র “মঙ্গলবার্তা”

আন্তর্জাতিক ক্যাম্পাস ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪৩, ১০ জুন ২০২১  
ইউনিভার্সিটি রোভার চ্যালেঞ্জে চ্যাম্পিয়ন এমআইএসটি’র “মঙ্গলবার্তা”

সম্প্রতি অনলাইনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো “ইউনিভার্সিটি রোভার চ্যালেঞ্জ-২০২১”। এই প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছে মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির (এমআইএসটি) দল, এমআইএসটি মঙ্গলবার্তা। চতুর্থ হয়েছে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী।  কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে সরাসরি ইউআরসি-২০২১ ফাইনাল বাতিল করতে বাধ্য হলেও, অংশগ্রহণের আগ্রহী দলগুলোর পরিশ্রম যাতে বৃথা না যায় সেজন্য অনলাইনেই এই ইভেন্টের আয়োজন করে ইউআরসি কর্তৃপক্ষ।

এবারের চ্যালেঞ্জ ছিল, পরবর্তী প্রজন্মের এমন মার্স রোভার নকশা করা ও বানানো, যা মানুষের পাশাপাশি ফিল্ডে কাজ করতে সক্ষম হবে। বাছাইপর্ব পেরিয়ে ৫টি দেশের ১৩টি দল এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ পায়। চলতি মাসের ৩-৬ তারিখ পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতাটি অনুষ্ঠিত হয়। রেজিস্ট্রেশনের পর বাছাইপর্ব হয়েছে মূলত দুই ধাপে। প্রথমে, প্রাথমিকভাবে রোভারের ডিজাইন রিভিউ শেষে সিস্টেম অ্যাকসেপ্টেন্স রিভিউ করা হয়েছে। সফলভাবে প্রথম দুই ধাপ পেরুনোর পর  ১৩টি দল মূল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছে, তার মধ্যে ছিল বাংলাদেশের এমআইএসটি মঙ্গলবার্তা ও ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী। পুরো প্রতিযোগিতাটি ইউআরসির ইউটিউব চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। লাইভস্ট্রিমটি চ্যানেলের আর্কাইভে রাখা হয়েছে, দর্শকরা চাইলে দেখে নিতে পারবেন।

মূল প্রতিযোগিতাটি তিনটি পর্বে বিভক্ত ছিল। পর্বগুলো হলো ইকুইপমেন্ট সার্ভিসিং মিশন, অটোনোমাস নেভিগেশন মিশন ও এক্সট্রিম রিট্রিভাল অ্যান্ড ডেলিভারি মিশন। ইকুইপমেন্ট সার্ভিসিং মিশন পর্বে মানুষ করতে পারে এমন কাজ করে দেখাতে হয়েছে মার্স রোভারকে। যেমনঃ একটি ড্রয়ার খোলা, ভেতরে টুলবক্স রাখা, তারপর বন্ধ করে দেওয়া, কি-বোর্ডে নির্দিষ্ট কিছু টাইপ করা প্রভৃতি। এই পর্বে এমআইএসটি  মঙ্গলবার্তা পেয়েছে ১০০ তে ১০০, তবে  ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী পেয়েছে মাত্র ৪১ নম্বর।

অটোনোমাস নেভিগেশন মিশন পর্বে রোভারকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্দিষ্ট পথ ধরে লক্ষ্যে পৌঁছাতে হয়, পথে বেশ কিছু মার্কার দেওয়া থাকে। এসময় কেউ রোভারটিকে নিয়ন্ত্রণ করে না, পুরো কাজটা করতে হয় স্বয়ংক্রিয়ভাবে। ভার্চ্যুয়ালি এটি আয়োজন করার জন্য প্রতিটি দল নিজস্ব ক্যাম্পাসে নির্দিষ্ট জায়গা বেছে নিয়ে তাদের অবস্থান জানিয়েছে বিচারকদের। বিচারকেরা বলে দিয়েছেন মার্কার কোথায় কোথায় বসাতে হবে, অর্থাৎ রোভারটি কোন পথ ধরে এগিয়ে যাবে। এই পর্বে সবচেয়ে ভালো করেছে ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী, পেয়েছে ৩০ নম্বর।  দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভালো করেছে মিসরের ফারাওস টিম, পেয়েছে ১০। বেশির ভাগ দলই এই পর্বে শূন্য পেয়েছে, তাদের মধ্যে রয়েছে এমআইএসটি মঙ্গলবার্তাও।

এক্সট্রিম রিট্রিভাল অ্যান্ড ডেলিভারি মিশন পর্বে মঙ্গলের উচু-নিচু পথ ধরে ছুটতে হয় রোভারকে। খুঁজতে হয় বিভিন্ন সাপ্লাই এবং পৌঁছে দিতে হয় সঙ্গী নভোচারীকে।  এবার এই পর্বটি সঠিকভাবে আয়োজন করা যায়নি। তবে নভোচারীকে সাপ্লাই পৌঁছে দিতে কাজে লাগবে, এরকম বিভিন্ন কাজ ঠিক করে দিয়েছেন বিচারকেরা। যেমন ছোট-বড় প্যাকেট নিয়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে ছুটে যাওয়া, খাড়া পথ ধরে ওপরে ওঠা প্রভৃতি। এই পর্বে সবচেয়ে ভালো করেছে যুক্তরাষ্ট্রের হাস্কি রোবোটিকস দল, তারা পেয়েছে ১০০ নম্বর। দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল এমআইএসটি মঙ্গলবার্তা, তারা পেয়েছে ৮০ নম্বর। ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী পেয়েছে ৫২।

সব মিলিয়ে ১৮০ নম্বর পেয়ে এমআইএসটি মঙ্গলবার্তা প্রথম হয়েছে, মিসরের ফারাওস টিম ১৬০ পেয়ে হয়েছে দ্বিতীয়। হাস্কি রোবোটিকস ১৪২ পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। ব্র্যাকইউ মঙ্গলতরী ১২৩ পেয়ে হয়েছে চতুর্থ।

বিজয়ী দলগুলো ইন্টারন্যাশনাল মার্স সোসাইটি কনভেনশনে নিজেদের রোভার উপস্থাপন করার সুযোগ পাবে।

সূত্রঃ ইউআরসি মার্স সোসাইটি ডট ওআরজি 

ঢাকা/সাব্বির 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়